Updates

Articles

Articles posted by Radical Socialist on various issues.

The unbearable burden of being an Indian farmer : shot dead for demanding debt relief-- by Sushovan Dhar

“There are reports in the media that clear instructions were issued to use maximum force against the agitating farmers”.


A nondescript district in the centre of this vast country has suddenly become a most sought after destination for politicians and media people. Lamentably, this transformation has come at the cost of human lives. Farmers in the Indian state of Madhya Pradesh started their protests since June 1 demanding higher crop prices and debt relief. This was no great news since popular protests from the peasantry have erupted time and again in different parts of the country demanding crop prices and debt-relief as the country is reeling under acute agrarian distress with over 300,000 farmers committing suicides cumulatively due to debt-burden [1]. However, what turned this case different was that as the farmers’ agitation turned militant, the administration clamped curfew to snuff out their protests. Unable to do so, the police openly fired on the agitating farmers killing five of them. Another died of lathi (baton) charge. The ruthlessness is further explained by the fact that there have been 45 FIRs against protesting farmers, but not one against those who murdered 6 farmers in cold blood. There are also reports in the media that clear instructions were issued to use maximum force against the agitating farmers.

This incident is an indication of a deeper malaise plaguing the Indian agriculture. Between 2001 and 2011, nine million farmers left their ancestral homes and migrated to cities. A study suggests more than 2,000 farmers are heading to cities every day to make a living. [2] And, this is towards the most precarious work in the informal sector. It is disgraceful to note that an overwhelmingly agricultural country like India doesn’t have a proper national agricultural policy. The neo-liberal policies adopted by the successive Indian governments in the last two and a half decades promoted market forces at an unmatched rapidity. It has forced agriculture on to a purely commercial footing and integrated domestic agriculture into the world markets. The consequences have been terrible with farmers mired in huge debts and facing terrible situations that have given rise to problems at multiple levels.

 Acute distress caused by prices of crops crashing

The Mandsaur region like other parts of western Madhya Pradesh has seen prices of crop falling 60 percent below the corresponding prices for last year. In the state of Maharashtra, earlier this year, “millions of Indian farmers look set to switch from growing pulses and oilseeds after a government campaign to boost output became a victim of its own success by flooding markets with the crops.” [3] This has also been the case with most of the crops that has seen bumper harvest. Local prices for oilseeds have plunged around 40 percent between October 2016 – March 2017, while lentils have dropped by nearly a third during the corresponding period. The almost withdrawal of the procurement at Minimum Support Prices (MSP) has been catastrophic. In this case, the government plans to buy a meagre 2 million tonnes of lentils at MSP prices against a record harvest of around 22 million tonnes in the 2016/17 crop year (July-June), up 35 percent from a year earlier. [4] Moreover, the prices offered by the government is 50,500 rupees against the previous year’s average prices of 110,000 rupees. Traditionally, agricultural crisis was attributed to the failure of crops due to droughts, flood or other natural catastrophe. However, it is being increasingly observed that bumper crops are also instigating such crisis.

The period that followed the implementation of the Structural Adjust Plans (SAP) witnessed rising input costs on one hand and dwindling produce price realisation on the other. The crisis started surfacing since the government planned to dismantle the measures that was built up, in stages, from 1947 to 1992-93 to safeguard the Indian farmers from the market fluctuations. This was also done without giving any adjustment time to Indian farmers. Such protectionist mechanisms, basically built on a combination of input price subsidies and output price support was not always perfectly implemented. However, it had enabled the Indian peasantry to take up production of various crops in a comparatively stable price environment. The implementation of SAPs not only saw the government slashing subsidies on major inputs, but also the withdrawal of procurement and distribution of farm produce. Subsequently, with the prices of farm inputs going up, private players took advantage of the situation and raised prices further. This was combined with the rise in rates of interests on institutional credits, the narrow window of such credits becoming narrower, forcing huge sections of the peasantry into the grips of private usury. And all these carried on with the inability of farmers to abandon cultivation in the absence of decent alternative livelihood sources.

The impacts of economic liberalisation with the abolition of agricultural subsidies and the opening of Indian agriculture to the global market has been severe. Small and medium farmers are frequently trapped in a cycle of unbearable debt, leading many to take their lives out of sheer desperation. This is currently a major human rights issue of epic proportions in the country and has impacted the peasantry in profound ways. The lives of the small and medium peasantry are entirely ruined. Their rights to life, water, food and adequate standards of living exists under the shadow of threat by market forces. It is scandalous that the government has taken no effective measures and the minuscule relief measures do not effectively address this issue as there is no attempt to deal with the broader structural issues that is at the root of this disaster.

Moreover, the suicide numbers fail to catch the enormity of the problems as entire categories of farmers are left out of the official listing since they do not possess land titles. This mostly includes women, dalits and indigenous people. In the case of Mandsaur and other parts of western Madhya Pradesh demonetisation and other faulty policies, like import of wheat and pulses, led to this fall in prices of farm produce despite a good harvest. It is reported that post-demonetisation, traders are paying 2 percent less on cash transactions to farmers at grain mandis (markets).

 Switch over to cash crops

The post-reform period also witnessed Indian agriculture turning towards cash crops. As there was a demand for cash crops like cotton in the international market, a sizeable part of Indian agriculture saw a government promoted shift from food crop to cash crop cultivation. However, excess production soon saw prices crashing making cash crops losing viability. Input costs sharply increased over the years since but the increase in market prices lag behind a long distance. These phenomena since the mid to late 1990s saw farmers suicides being recorded on a large scale. A report produced by Center for Human Rights and Global Justice, New York observed that “The government has long been alerted to the cotton farmer suicide crisis, yet has done little to adequately respond. Cotton exemplifies India’s general shift toward cash crop cultivation, a shift that has contributed significantly to farmer vulnerability, as evidenced by the fact that the majority of suicides are committed by farmers in the cash crop sector. The cotton industry, like other cash crops in India, has also been dominated by foreign multinationals that promote genetically modified seeds and exert increasing control over the cost, quality, and availability of agricultural inputs.” [5]

Last year, a severe agricultural crisis took place in the South Indian state of Karnataka. The coastal and Malnad regions have been bright spots in the state’s agriculture economy for the past two decades. However, “Farmers have been shaken by a steep drop in prices of three major cash crops --- arecanut, coconut and coffee ---- which have fallen roughly by 15- 50% from the historic highs of previous years. While Karnataka is the largest producer of arecanut and coffee in India, it stands third in coconut production. The market turmoil has hit arecanut and coconut right around harvest, when supplies are most abundant and grain prices are at seasonal lows.” [6] The report by Center for Human Rights and Global Justice also observed that “(a)s a result of economic reforms, Indian cotton farmers were thrust into competition with the international market, making them extremely vulnerable to price volatility. As new economic policies integrated India into the global market, the resultant devaluation of the Indian rupee dropped prices and increased demand for Indian crops. To capitalize on this potential source of revenue, the Indian government urged farmers to switch to cash crop cultivation, and India quickly redeveloped its agricultural sector to be export-oriented. Cash crops, such as cotton, can lead to short-term revenue gain but are ultimately subject to high levels of price volatility. India’s sudden switch to cash crop cultivation led to an over-saturation of the global market with cotton exports, and, in turn, a depression of cotton prices for these farmers.” and, “(d)espite these problems, the Indian government has continued to encourage farmers to switch to cash crops. Though India is currently one of the world’s leading cotton producers and exporters, like most cash crop commodity markets, the cotton market has become dominated by a small group of multinational corporations that exert increasing control over the cost, quality, and availability of agricultural inputs. In addition, in a cotton market where a corporate middleman ferries farmers’ products to the global market even those farmers who see high crop yields may not benefit from the prices their crops eventually fetch in the market. Finally, it is important to note that, although the focus here is on cotton, the general problems described continue to be a major concern for all Indian cash crop farmers for whom “investment in agriculture has collapsed,” leading to increased “[p]redatory commercialization of the countryside.” [7]

 In lieu of conclusion

It is high time that the government declares a comprehensive National Agricultural Policy putting a halt to commercialisation of agriculture. It must also implementation of the recommendations of the officially constituted National Commission on Farmers. The agricultural policy of the country should be designed to assign farmers’ rights to decent life and livelihood at the core of government policies and programmes. Otherwise, farmer’s debt would increase in an unhindered manner pauperising a large section of the population.

Access to institutional credit for peasants must be prioritised facilities extended to all farmers including women, dalits, indigenous people irrespective of the fact whether they have land titles or not. Right to water including irrigation remains another vital issue. These combined with other social protection mechanisms could be the only way out of this insurmountable indebtedness that is plaguing the Indian peasantry in such epic proportions.

 

[1The National Crime Records Bureau statistics say 318,528 farmers committed suicide between 1995 and 2015.

[3Off the pulse: India farmers switch crops as lentil prices plunge:
http://www.reuters.com/article/us-india-farm-idUSKBN16S0RM

[4Ibid

[5Center for Human Rights and Global Justice, Every Thirty Minutes: Farmer Suicides, Human Rights, and the Agrarian Crisis in India (New York: NYU School of Law, 2011).

[7Center for Human Rights and Global Justice, Every Thirty Minutes: Farmer Suicides, Human Rights, and the Agrarian Crisis in India (New York: NYU School of Law, 2011).

The Recent British Elections -- An Assessment in Socialist Resistance, organ of British Fourth Internationalists

A stunning result for Corbyn and Labour

Protesting Theresa May's visit to Ealing, west London May 20. Photo: Steve Eason

Alan Davies argues:

The election result is a triumph for Labour. Although the party has fallen marginally short of enough seats to form a government, Jeremy Corbyn has pulled off the biggest swing from one major party to another during the span of an election campaign since 1945. The polls were predicting a Labour share of the vote of 26% or 27% but ended up on the night at 40%—which is 12.8 million votes. This is more than Tony Blair got in 2001 or in 2005.

With 649 seats declared, the Conservatives have 318 seats, down 13, Labour 261, up 29, 35 seats for the SNP, down 21, the Lib Dems up 4 to 12, Plaid Cymru remain on three, the Greens on one and UKIP wiped out. Kensington and Chelsea is yet to declare. One recount has already taken place and the count has been suspended until 6pm tonight.

The turnout is up by 2% to the highest since 1997. The turnout amongst young people was unprecedented in modern times. The UKIP vote collapsed. Nuttall, who has resigned, came a distant third in Boston and Skegness.

Labour made significant gains in both Scotland and Wales. The SNP remain the largest party in Scotland but the Conservatives have won 12 seats off them so far, Labour have won seven and the Lib Dems three. In Wales Labour took back Gower, Cardiff North, and Vale of Clwyd from the Conservatives.

Jeremy Corbyn and John MacDonnell are right to say that they are ready to form a minority government but it is clear that May will attempt to do so. The result, therefore, is not just a hung parliament, but the slimmest and most precarious of hung parliaments with effectively a coalition between a crisis ridden Tory Party and the ultra-conservative Democratic Unionist Party – one of the most socially conservative political parties in Europe.

Its members deny climate change, oppose abortion and marriage equality and are mostly Biblical creationists. Its candidates were endorsed by the Ulster Defence Association, a sectarian murder gang which is now involved in racketeering and drug dealing.  This lash up gives the Tories a majority of  two. Even if this gets off the ground it is likely to extremely unstable and we should prepare for another election before the end of the year.

Labour’s election campaign was spectacular and had a huge impact. The outcome is a personal triumph for Jeremy Corbyn, who was vilified in the most brutal way from the start of the campaign until the end. The Tories weren’t even able to use the two horrendous terror attacks to their advantage.

The manifesto changed the politics of the election campaign the moment it hit the streets. It mobilised hundreds of thousands of young people to register to vote, join the campaign and vote in, what for many,  the first election in which they had participated. Young people how have been abused and used by successive government have struck back with a vengeance.

We are seeing tectonic shifts taking place at several levels in British politics. Labour’s anti-austerity election platform has appealed to many of the same marginalised people who were drawn towards a Brexit vote. The vote is a massive rejection of austerity—bringing about a fundamental change in British politics. There is a new generation on the scene for the first time, completely open to the kind of radical alternative Labour is putting forward. For example, it was the student vote which took Canterbury for Labour which has been Tory for ever.

Corbyn is now in a powerful position inside the party. The Labour right who have campaigned for two years to discredit and get rid of him have been politically defeated and have some decisions to make. Every one of the predictions they made about Corbynism have been proven wrong. It is time now to back Corbyn or stand aside.

In this situation the job of the radical left is clear. Join the Corbyn movement if you have not done so yet, help him to change and democratise the Labour Party. Deepen the political trajectory that he has initiated, and stand ready to fight the next election as and when it comes.

The DUP-Tory Deal: A View From Irish Revolutionaries

DUP / Conservative party deal

The future is bright, the future is Orange!

20 June 2017

A Conservative minister remarked quietly after the election that there would be many roads and hospitals built in Northern Ireland as a result of a DUP confidence and supply arrangement with his party. The assumption was that a large bribe would be paid and that it would benefit everyone in the North. Certainly there will be a bribe and it will contain some populist flourishes, but overall benefit will be slight. After all, this is a party that has just blown £500 million of public money in a corrupt “green heating” scheme. The main economic goal of this far-right party is to obtain funding for a public-private investment fund – a honey pot for failing businesses that would be open to the usual unrestrained corruption and leave the poor where they were before. The delay seems to be around the conflicting right-wing positions on Brexit and on the insistence by the DUP on sectarian concessions that are difficult for the British to openly concede on.

Almost all of the discussion in relation to re-establishing a local administration in the North of Ireland following the Westminster election is focused on political aspects - whether or not a “confidence and supply” arrangement between the Conservative party and the Democratic Unionist Party breaches the Good Friday agreement.

British neutrality

Gerry Adams told Theresa May that she is in breach. In a statement to reporters outside Downing Street on 15th June, Adams said: 
 

"We told her very directly that she was in breach of the Good Friday Agreement, and we itemised those matters in which she was in default in relation to that agreement."


Yet, although there are many unwelcome aspects and threats in a closer relationship between the DUP and the Conservatives, what is really remarkable is Adams’ belief that the status quo ante involved any level of neutrality on the part of the British or that the Good Friday Agreement or any of its constant redrafts in any way restricts or binds Britain as an imperialist power.

The political foundation of the Good Friday Agreement, the fiction of Britain having no selfish, strategic or economic interest in Ireland, is gone. This is made evident by the DUP pact with the Conservative government but is not the cause.  British Secretary James Brokenshire has been acting as the tribune for loyalism in a very open way, but predecessor Theresa Villiers was not far behind and the British have always acted to placate their unionist base and deflate the expectations of nationalists. British sponsorship of loyalism is what underlines the political settlement.  As Theresa May said during the election, the British government will never be neutral on Ireland.

Sinn Fein “revolt”

The dynamic of the political battle today flows from that reality. In a vice between Britain and loyalism and with Irish capitalism demanding stability, Sinn Fein have capitulated over and over again, settling for their share of the sectarian cake and accepting that there will be no real reform. The cost had been a gradual erosion of their support, until in 2016 the level of corruption and sectarian humiliation led to a revolt of their supporters and Sinn Fein were forced to change course – demanding that all the old promises that were part of the agreement and that they had let slide now be instituted if the political structures were to continue.

Sin Fein pulled the plug on the assembly, massively increased their vote, increased their vote again in the Westminster election and appealed to the British to play fair. However in a series of interviews during the March election DUP spokespeople underlined the fact that they had never agreed to reform elements of the Good Friday Agreement. Former British secretary of state Peter Hain explained that, although the British had included a section in the St. Andrews Agreement on an Irish language act, it “was not written in stone”. The DUP stood four-square against reform. British guarantees were worthless and meant only to get Sinn Fein inside the tent. The June Westminster vote saw the DUP give Sinn Fein the brush-off, a mass vote for the DUP in defence of sectarian privilege and a Conservative/DUP pact. Any hope they had of any support from Irish capitalism evaporated in days, with then sitting Minister Charlie Flanagan, supported by former Taoiseach Bertie Ahern, insisting that we could rely on the British to be impartial, that the Good Friday Agreement was an sanctified international treaty and that, in any case, they, the representatives of Irish capital, stood ready to step in as guarantors at the least sign of any backsliding.

DUP triumph

After a period of confusion the Democratic Unionist party have triumphed locally. The overpowering smell of corruption arising from the ongoing “cash for ash” scandal, costing £500 million and directly overseen by Arlene Foster, has not affected the outcome. Unionist groups such as Alliance looking for compromise with nationalists have been smashed. Open and public collaboration with Loyalist paramilitaries, even as one man was murdered in a loyalist feud, went unremarked. The DUP has emerged with 10 Westminster seats and close to 300,000 votes, having stood on a platform of “No surrender” and “defence of the Union.”  The campaign was overwhelmingly successful, wiping out the other unionist parties to establish the DUP as the leaders of a unionist monolith. The icing on the cake was the weakness of the Conservatives and the DUP role as queen-makers at Westminster.

The election also saw nationalist voters turn away from the decaying Social Democratic and Labour Party to increase their vote for Sinn Fein and award them 7 (abstentionist) seats at Westminster.

Yet the two votes do not cancel out. The DUP have won a vote for forthright defence of sectarian privilege. Their manifesto promises that the continuation of the Stormont assembly must meet a test of securing the union or they will embrace direct rule.  Sinn Fein, after years of decline in their vote, saw a massive uptick when they collapsed the executive. That uptick continued into the Westminster election, but their tone was much quieter and firm commitments missing, leaving the way open for post election negotiation. The DUP vote means that Sinn Fein must yet again choose between being the party of government and the party of protest. The pressure on the organisation will be all the greater as the DUP will claim that the Westminster deal will bring endless economic benefit. Adams has already remarked that extra funds should be distributed by the Executive – a difficult feat if there is no Executive! The pressure is all the greater as a position paper from the British set as a foundation for new talks makes it abundantly clear that the British will not stand over previous agreements, will abandon legacy requirements and will only reopen the Irish language on the DUP’s terms.

Onward to a united Ireland?

Gerry Adams response was: 
 

"We want into the institutions, because that is what the people desire, that is what the people voted for....but also because we think, strategically, that is the way to a united Ireland. The way forward is not to be in a vacuum, to have stagnation, the way forward is to have that forum working on the basis on which it should have been established."


Later he said that he was willing to meet the DUP half way and that the test of a new agreement would be that it was inside the terms of the Good Friday agreement, a sharp lowering of the bar from the demand that previous commitments be honoured.

What were the main demands Sinn Fein made on collapsing the executive? The demand that Arlene Foster step aside while there is an enquiry into the £500 million cash for ash scandal will have to be quietly forgotten. The demands for resolution of historic cases will have to be diverted yet again into harmless talking shops. The DUP refuse to accept that the brutal history of murder by state forces should ever be acknowledged, let alone investigated or apologised for and the Conservative party in Britain is moving firmly towards state impunity for their military. The one issue on which the DUP have indicated that they will soften their position is around an Irish Language Act and the former republicans, if an assembly is to be restored, will have to hail this as triumph despite the fact that it will be the absolute minimum needed to get the executive up and running and be surrounded by humiliating conditions requiring a bowing the of the knee to ”Orange culture.” 

At the time of writing negotiations have not concluded, but the only choices open to Sinn Fein are to be in a Stormont executive or to be campaigning for inclusion. They may conclude that it is better to wait until the chaos at Westminster dies down, but they have no alternative to Stormont. After all, the history of the institution up until the present has been one of sectarian triumphalism and corruption with Sinn Fein capitulating to unionism and grabbing their share of the spoils. Anyone who believes that the party can U-turn and fight the colonial and sectarian setup in the North, is living in dreamland and ignoring the many links connecting Sinn Fein to the interests of Irish capital.

A chaotic future

The future is chaotic. The DUP want to resurrect the executive to preserve the union with Britain, while Adams claims it is the road to a united Ireland. Neither party has a sustainable strategy. The DUP see powersharing as temporary and yearn for the old Stormont regime of the 50’s, ignoring the fact that the nationalist population is now almost equal to them in size. Sinn Fein aims to be in government in both parts of Ireland, imagining that the British will be more conciliatory at that point. Rather than adding stability, the DUP role in holding up a Conservative government will throw a spotlight on them and on their close links the loyal orders and the paramilitaries, attention they would like to avoid. Both groups are incoherent on Brexit, Sinn Fein wave their aspiration to a united Ireland. The DUP welcome a political separation that reinforces partition and reject a economic separation that will beggar their farming base.

If another settlement is put together we will be told that stability has arrived. Some years ago Gregory Campbell, from the far right of the DUP, launched a bigoted parody of the Irish language. When criticised he doubled down, ridiculing the language again at the DUP conference. A video of the audience showed uneasiness among some of the members. They understood that they had the advantage and thought it foolish to rub their opponent’s nose in it. Yet rubbing their opponent’s nose in it is a central element of loyalism. One of the first issues brought forwarded from the party’s base was that a deal with the Conservatives would allow the Orange Order to push through the nationalist Garvaghy Road in Portadown. This reflexive bigotry will continue to eat away at Sinn Fein and its support base. Temporary stability will be bought with further chaos ahead.

All of the institutions associated with the Good Friday Agreement live on the edge of collapse, yet that is against a background where there continues to be widespread public support for the concepts on which it is based. Equality of the two traditions is seen as a realistic way of evolving towards a better society rather than as a justification for sectarianism. Bigotry is seen as expression of culture. All of the political and civic forces reinforce this and there is no substantial opposition. The trade union movement has accepted eye-watering austerity on the grounds that workers should sacrifice themselves to save the political settlement.  Local socialists, joined at the hip to the union bureaucracy, give unconditional support to the return of the executive and argue that it can be used to deliver reforms for the workers.

Even the young nationalist voters that forced Sinn Fein out of the executive believe that the Assembly can be got to work and can deliver reforms. The new dispensation arising from the Westminster election will swiftly disabuse them. 

However the mini revolt against Stormont did happen.  For a brief period the mask slipped and the burning anger within sections of the working class was exposed. A similar desperation was shown by Bus Eireann workers in Dublin and by those facing the uncontrolled housing crisis in the South. The strongest signs of revolt are shown in Britain itself, with the gains of Jeremy Corbyn and the naked face of class warfare exposed by the massacre at Grenfell Tower.

 

At the moment Capitalist power is everywhere, but it is represented by a frantic scrabble for stability as the system jerks from crisis to crisis and capitalism itself begins to fail. Out of the crisis we look for the intervention of the working class - a class for itself, acting in its own interest and sweeping aside the oppressors who torment it.


http://www.socialistdemocracy.org/RecentArticles/RecentDUPConservativePartyDeal.html

Gandhi contra Gandhi --by Murzban Jal

Radical Socialist publishes left wing articles by activists and scholars who are

not necessarly members of RS, or the Fourth International, and whose views

may not coincide in all ways with RS. Only RS statements, documents

represent the standpoint of Radical Socialist. -- Administrator, RS website


GANDHI CONTRA GANDHI:

READING GANDHI IN THE ERA OF TRIUMPHANT GODSE-ISM.

 

If God doesn’t exist, then everything is permitted.

 

FyodorDostoevsky, The Brothers Karamazov.

 

The lessons of today’s terrorism is that it God exists, then everything is permittedincluding blowing up thousands of innocent bystanders, is permitted — at least to those who claim to act directly on behalf of God, since, clearly, a direct link to God justifies the violation of any merely human constraints and considerations.

 

Slavoj Žižek, ‘Defenders of the Faith’.

 

 

 

 

 

Introduction: Moksa as Fascist Permissiveness

 

The question of reading Gandhi in the period of triumphant fascism in India is an extremely interesting affair. While the dominant liberal reading of Gandhi approaches Gandhi from the anti-fascist vantage point, there is another reading that places Gandhi as not merely a conservative democrat (as Christophe Jaffrelot classifies him), but as Slavoj Žižek says a “social fascist”. So who was Gandhi and how does one understand him today when his own ideas of morality in the Hindu dharmic form have been realized in Indian fascism?

Was Gandhi a democrat or a social fascist?  Is there some deep meaning in reading the text of Gandhi? How should one read Gandhi? Should one read him as a great freedom fighter, a Romantic anti-capitalist and an igniter of the Indian masses, even a kind of Hegelian who synthesized the diverse political movements into a single current? And why did Gandhi have to experiment with not only a feudal socialist kind of political economy, but also with a strange form of libidinal economy as if he was suffering from what Theodor Adorno once called “syphilisophobia” where “sex and sexual disease become identical”?[1] Was this syphilisophobia, the fear of getting infected with syphilis, the driving factor in understanding Gandhi?

If however gender in Gandhi has to be located within this matrix of the unconscious—Gandhi wanting to become a woman—there is another matrix in Gandhi: that of dharma that so gripped his imagination. Yet the historian would know that Gandhi was not personally bothered about dharma. What he was personally interested in was moksa.  Dharma was for the plebeians, basically the subaltern Dalitbahujan people that he so disdain called “Harijan”. The argument between Gandhi and Ambedkar was about caste (along with gender and modernity), but it was also about the debate between humanism (which Ambedkar advocated) and the phantasmagoria of the superman (which was Gandhi’s secret fantasy). The “Mahatma” was of course this phantasmagorical superman. The superman has necessarily to go beyond good and evil. Maybe Gandhi could never succeed in this endeavor, but as the Mahatma he was a supersession of good and evil. The Mahatma had achieved Moksa, while we the plebeians of India (Gandhi’s Harijans) had to live by the code of caste dharma.  

It is in this context that we say that beyond good and evil is not a theme that was invented by Friedrich Nietzsche. It is the fulcrum of Brahmanical-Hindu philosophy. Take the above quote of Dostoevsky from his Brothers Karamazov that says that “If God doesn’t exist, then everything is permitted”. This form of “being permitted” is not a form of “possibility”, but a form of permissiveness. For Dostoevsky, the absence of God would lead to anarchist nihilism, almost a form of violent permissiveness. But for Brahmanical-Hinduism, the gods themselves are subservient to the Brahman superman. In this case Dostoevsky’s formula is written as: “gods do exist, and they being the servants of the Brahmans, thus everything is permitted for (at least for the Brahmans)”. For Brahmanism, nothing is possible for the masses, but for the one who has reached the status of Moksa everything is permissible.

            Moksa was the theme that haunted Gandhi through his life. Yet it was a Moksa that was different from the one that his assassin Nathuram Godse was obsessed with. In Event  Žižek talks of this idea (though strictly speaking incorrectly seen through the Buddhist lens of Nirvana). According to Žižek, Nirvana “retains inner peace and Gelassenheit (self-surrender)” works as “capitalism’s perfect ideological supplement” where “one can fully participate in capitalist dynamics while retaining the appearance of mental sanity”.[2] Not only can one have mental sanity in a brutal imperialist world dominated by the Military Arms Complex. One can in this state of dharmic enlightenment become a “perfect cold killing machine”[3].

 

 

Contextualizing Gandhi: Jesus vs. Judas

 

So was Gandhi a social fascist, as Žižek, once remarked? Or was Gandhi a subaltern type of Indian Hegelian who literally sublated (the Hegelian term is Aufhebung) the diverse anti-colonial movements, thus synthesizing all the positive aspects of these movements, whilst at the same time negating the retrogressive elements? Or was he a Romantic anti-capitalist who blended both Leo Tolstoy and Fyodor Dostoevsky where his Hind Swaraj became an Indian Resurrection and The Brothers Karamazov?  Or was he the Indian Christ, who troubled by the traditional Hindu scribes who made the gods into the fearsome Jehovah, ‘converted’ the wrath of Jehovah into agape, or pure love? And if indeed he was the Indian Jesus, albeit a secularized Jesus, then was Nathuram Godse, the assassin of Gandhi, Judas?

If indeed there are a number of Gandhis appearing on the scene of history, there is only one image of the Indian fascist, whether it is the fascism of V.D. Savarkar ot M.S. Golwalkar. Now that the Indian fascists who have declared India to be a “Hindu Rashtra” in public (after declaring it in private, not to forget declaring it in their dreams) have come to power, one asks: “what relevance does Gandhi have to do with this private-public fantasy of the deluded Hindu Rashtra?” There are a number of questions that one may ask along with this main question: “does Gandhi have any relevance today in the era of triumphant fascism?” But probably the most important issue is that after Ambedkar how can Gandhi be possible? So can Gandhism be possible today? And indeed, if Gandhism is possible, then how would Gandhism deal with this triumphant fascism of the Hindu Rashtra?

            After the victory of the Bharatiya Janata Party (BJP) a neo-con right-wing party in the 2014 National Elections under the label of “development”, the hydra creature of the BJP’s parent body the Rashtriya Swamsewak Sangh (RSS) has repeatedly attacked the fundamentals of Indian constitutional democracy. They brought in the frightening phantasmagoria of Muslims eloping with Hindu girls and called it “love jihad”. After declaring imaginary holy war against even more imaginary Islamic jihad, the fronts of the RSS said that Hindu women should produce 4 children. It went up to 5 and now with Praveen Togadia it has gone up to 10. We are counting….

Now they have declared that they will be building a temple of Nathuram Godse (the assassin of Gandhi). In Essentials of Hindutva as also in Hindu Rashtra Darshan, V.R. Savarkar the founder of the doctrine of “Hindutva” or “Hindudom” that ran parallel to feudal Europe’s ideology of Christendom, said that Hindus should militarize themselves. They should form, as the Hindu Rashtra Darshan claims, a “Hindu Militarization Movement”.[4] For him one had to “Hinduize all policies and militarize Hindudom”[5]. According to Savarkar, the very idea of the nation is based on the idea of race and for India it is the Hindu race that forms the contours of what he imagined as “Hindu nationalism”.[6] For him, like the general genre of fascism, it is blood descent that is the essence of a nation.[7]

In the Discovery of India, Nehru, who was exactly the opposite of Savarkar said that caste headed by the Aryanized Brahmans was a great and noble feature of Indian civilization. Recall Gandhi who in 1921 had talked of the “deep debt of gratitude” that Hinduism needed to have for the Brahmans. In this debt rendering scene, the very ideology of Gandhi is seen as being governed by what Walter Benjamin in his Ursprung des deutschenTrauerspielscalled“petrified primeval landscape”[8]. This petrified landscape is seen as what the young Georg Lukács called “charnel-house of long-dead interiorities”.[9] For Gandhi, history is not to be viewed through the Enlightenment inspired project of continuous development, but through what Benjamin calls a “process of inevitable decay”.  Gandhi was master of this decay. But he was also ridden with guilt at not being able to do anything with this decay.

Though tormented with guilt, Gandhi’s ideal was of pure fantasy. One the other hand he was dictated purely by practical reason when he talked of “working for the co-operation and co-ordination of capital and labour”.[10] Gandhi is here a pragmatist, but not of the John Dewey type. Gandhi of course has an ideal, but this ideal is once again a fantasy, in fact a high caste fantasy, who recalls Marx’s feudal socialist who creates despotic measures against the working class and then “stoops to pick up the golden apples dropped from the tree of industry”.[11] At this time one will have to point out how a certain section of the Established Left—(meaning the parliamentary left led by the CPI(M)—in India has almost been apologetic of the Congress and its upper caste hegemony.

For instance Prabhat Patnaik has written that one cannot, as Perry Anderson has done in his The Indian Ideology, classify pre-independence Congress as an upper caste party. For Patnaik the Congress did “try to provide a charter of citizenship transcending religion and caste”.[12] We also hear that that Gandhi had a renunciatory streak which is parallel to the figures of Ho chi Minh, Muzaffar Ahmed and P. Sundarayaya[13], and that the Congress was wedded to anti-colonial nationalism.[14]  The problem with the Established Left is that it allied and yet allies itself to Gandhi’s “Hinduistic” ideology despite leaders like B.T. Randive and E.M.S. Namboodripad muttering angry phrases against Gandhism. This Stalinist left is extremely stubborn in refusing to understand Ambedkar’s radical critique. Its solution is reductionist and nationalist.[15] The entire discourse of culture is totally absent. If culture is absent, so too is the idea of radical history: “If the left is to propose”, so we hear, “an anti-imperialist national agenda, then it must relate itself, however critically, to the anti-imperialist nationalism of the earlier, colonial period.”[16] This sort of politics we call after Gramsci, “historical mysticism” that awaits “a sort of miraculous illumination”.[17]

Despite this rendering there is the other side to Gandhi. It must be heard. It is Etienne Balibar who has said that “Lenin and Gandhi are the two greatest figures among revolutionary theorist-practitioners of the first half of the 20th century”[18] According to such a reading:

 

Both of them, Lenin as well as Gandhi, in different ways undertook the heroic and at the same time adventurous experiment of putting into practice the long cherished dreams of humanity. They were both rooted deeply in their own nations; and their reforms and their methods were entirely and their reforms and their methods were entirely the result of the destinies of their countries, of the limitations of Russian and Indian conditions, and that at a moment when both nations had arrived at a turning point in their national development. But the political enterprise of both the Russian and the Hindu goes far beyond the narrow boundaries of the national and the temporary. Russia and India were merely to be the subjects of a great and universally valid experiment whose success was to give an example to the world and to spread the new doctrines of the two reformers over the whole earth. Lenin and Gandhi were upheld by the emotion of an ecstatic faith, the faith that their country was called to redeem humanity.[19]               

             

Despite Ambedkar, Gandhi lives on. According to the logic of reason, Gandhi should have been left to a collective and happy amnesia. It is Ambedkar who should have been the face of Indian modernity, not Gandhi. And just as the ghost of Hamlet’s father was seen hovering around the unhappy nights of Denmark, the ghost of Gandhi is hovering on.

But this new ghost has also Savarkar’s saffron flag draped on his bare chest. This New Gandhi is not with a spinning wheel. He is with the Swastika. He is not bare footed. He wears jackboots. He is not for ahimsa. He swears for revenge, wanting to transform the ideology of riots into the culture of wars. In this sense it is important to re-visit Gandhi once again.

 



[1]Theodor Adorno, In Search of Wagner (London: Verso, 1981), pp. 93-4

[2]Slavoj Žižek, Event. A Philosophical Journey Through a Concept (London: Melville House, 2014), pp. 58-9.

[3] Ibid., p. 63.

[4] See V.D. Savarkar, Hindu Rashtra Darshan (Poona: Maharashtra Prantik Hindusabha, nd), pp. 125.

[5] Ibid., p. 127.

[6], Ibid., pp. 9, 14, 46.

[7] V.D. Savarkar, Essentials of Hindutva, pp, 30-33

[8] Walter Benjamin, The Origin of German Tragic Drama, trans. John Osborne (London: Verso, 2003).

[9] See Georg Lukács, The Theory of the Novel (trans. Anna Bostock (Cambridge, Massachusetts: The MIT Press, 1994), p. 64.

[10] M.K. Gandhi, ‘Answers to Zamindars, 25 July, 1934’, in The Penguin Gandhi Reader (London: Penguin, 1993), p. 238.

[11] See Karl Marx and Frederick Engels, ‘The Manifesto of the Communist Party’, in Marx. Engels. Selected Works (Moscow: Progress Publishers, 1975), p. 54.

[12] Prabhat Patnaik, ‘Modern India sans the Impact of Capitalism’, in Economic and Political Weekly, Vol. XLVII, No. 36, September 7, 2013, p. 31.

[13] Ibid.,

[14] Ibid., p. 32.

[15] Ibid., p. 35.

[16] Ibid.

[17] Antonio Gramsci, Selections from the Prison Notebooks, trans.Quintin Hoare and Geoffrey Nowell Smith (New York: International Publishers, 1987), p. 233.

[18] Etienne Balibar, ‘Lenin and Gandhi: A Missed Encounter’, in Radical Philosophy, 172, March/April, 2012. Also see René Fülöp-Miller’s Lenin and Gandhi, trans. F.S. Flint and D.F. Tait (London & New York: G.P. Putnam’s Sons, 1927).

[19] René Fülöp-Miller,  Lenin and Gandhi, trans. F.S. Flint and D.F. Tait (London& New York: G.P. Putnam’s Sons, 1927), p. VII. 

গ্রামশি এবং রুশ বিপ্লব

 

 

গ্রামশি এবং রুশ বিপ্লব

রুশ বিপ্লব নিয়ে তরুণ গ্রামশি কী ভেবেছিলেন?

-আলভারো বিয়াঞ্চি এবং ডানিয়েলা মুসি

দানিয়েলা মুসি সাও পাওলো বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন পোস্ট-ডক্টরেট গবেষক এবং “Outubro” পত্রিকার সম্পাদক

আলভারো বিয়ান্সি স্টেট ইউনিভার্সিটি অব্‌ ক্যাম্পিয়ানস্‌-এর পলিটিকাল সায়েন্সের অধ্যাপক। তিনি ‘ল্যাবোরেতোরিও দে গ্রামশি (আলামেদা, ২০০৮)’-র লেখক এবং “Blog Junho”-র সম্পাদক।

অনুবাদঃ প্রবুদ্ধ ঘোষ

সম্পাদনাঃ কুণাল চট্টোপাধ্যায়

জীবনের শেষ দশক ফ্যাসিস্ত কারাগারে রুদ্ধ হয়ে, আশি বছর আগের এই দিনেই মারা গেছিলেন আন্তোনিও গ্রামশি। গ্রামশির রাজনৈতিক চিন্তাভাবনার শুরু প্রথম মহাযুদ্ধের সময়কালে, যখন তিনি তুরিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষাতত্ত্ব বিভাগের ছাত্র ছিলেন। যদিও, তাঁর জীবনের শ্রেষ্ঠ অবদান ‘প্রিজন্‌ নোটবুকস্‌’-এর জন্যে তিনি বহু পরে স্বীকৃতি পেয়েছেন। তাঁর ছাত্রজীবনের রাজনৈতিক লেখাগুলো যেগুলো সমাজতান্ত্রিক পত্রিকাগুলোতে প্রকাশিত হত, সেগুলোতে শুধু মহাযুদ্ধের বিরোধিতাই করেননি উপরন্তু ইতালির উদারনৈতিক, জাতীয়বাদী এবং ক্যাথলিক সংস্কৃতিরও বিরোধিতা করেছিলেন

১৯১৭র শুরুতে গ্রামশি তুরিনের একটি সমাজতান্ত্রিক পত্রিকা, ‘ইল গ্রিদো দেল পোপোলো [জনগণের চিৎকার]’-র সাংবাদিক ছিলেন এবং ‘আভান্তি [সম্মুখে]’ পত্রিকার পিদমন্ত সংস্করণে্র সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন। রাশিয়ার ফেব্রুয়ারি বিপ্লবের একমাস পরেও সেই খবর ইতালিতে রীতিমত দুষ্প্রাপ্য ছিল। তারা শুধুমাত্র ব্রিটেন ও ফ্রান্সের খবরের পুনর্প্রকাশের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকত। কিন্তু, ‘আভান্তি’তে রাশিয়ার বেশ কিছু খবর প্রকাশিত হত ‘জুনিয়র’ ছদ্মনামে, যাঁর আসল নাম ছিল ভাসিলিজ ভাসিলেভিচ সুকোমলিন। সুকোমলিন ছিলেন তৎকালীন রাশিয়া থেকে নির্বাসিত এক সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবী।

ইতালিয়ান সমাজতান্ত্রিকদের বিশ্বাসযোগ্য তথ্য সরবরাহের উদ্দেশ্যে ইতালির সমাজতন্ত্রী পার্টি (পিএসআই)-এর নেতৃত্ব হেগ্‌ শহরে থাকা ডেপুটি ওদিনো মরগ্যারিকে নির্দেশ দেয় পেট্রোগ্রাড গিয়ে বিপ্লবীদের সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্যে। কিন্তু, সে সফর ব্যর্থ হয় এবং মরগ্যারি ইতালিতে ফিরে আসেন জুলাই মাসে। ২০ এপ্রিলের ‘আভান্তি’তে গ্রামশির একটি নোট প্রকাশিত হয়, যেখানে তিনি মরগ্যারিকে ‘রেড আম্বাস্যাডার’ নাম দিয়ে তাঁর রুশযাত্রার কথা উল্লেখ করেন। রাশিয়ার চলমান ঘটনাসমূহের ব্যাপারে তাঁর উৎসাহ ছিল প্রবল। এসময় গ্রামশির মনে দৃঢ় বিশ্বাস ছিল যে, ইতালির শ্রমিকবাহিনীর যুদ্ধের বিরোধিতা করার সম্ভাব্য শক্তি নিশ্চিতভাবেই রুশ প্রলেতারিয়েতদের শক্তির সঙ্গে প্রত্যক্ষ্যভাবে সংযুক্ত। তিনি ভেবেছিলেন যে, রুশ বিপ্লবের সাফল্যের ফলাফলস্বরূপ আন্তর্জাতিক সম্পর্কগুলোর মূলগত বদল ঘটবে।

প্রথম মহাযুদ্ধ তখন তুঙ্গে এবং সামরিক বাহিনীর প্রত্যক্ষ যোগদানে ইতালির সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠছে। গ্রামশির ঘনিষ্ঠ বন্ধুরা যথা অ্যাঞ্জেলো তাস্কা, উমবের্তো তেরাসিনি এবং পালমিরো তোইলিয়াত্তি তখন যুদ্ধফ্রন্টে- কিন্তু, শারীরিক দুর্বলতার কারণে অব্যাহতি পেয়েছেন গ্রামশি। তাই, সাংবাদিকতাই তখন তাঁর একমাত্র ‘ফ্রন্ট’। ইতালিতে কোরিয়ে দেলা সেরা দ্বারা প্রকাশিত মরগ্যারিকে নিয়ে লেখাটিতে গ্রামশি যথার্থভাবে উদ্ধৃত করেছিলেন রুশ সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবীদের। যেখানে সমস্ত ইউরোপীয় সরকারকে আহ্বান করা হয়েছিল আগ্রাসী নীতি প্রত্যাহার ক’রে শুধুমাত্র জার্মানির সমরাভিযানকে প্রতিরোধ করতে। আসলে, এই ‘বিপ্লবী রক্ষণাত্মক’ নীতিটি এপ্রিল মাসে সর্ব-রুশ সোভিয়েত সম্মেলনে বৃহত্তর অংশ দ্বারা সমর্থন পেয়েছিল। এই সম্মেলনের কয়েকদিন বাদেই এপ্রিলের ‘আভান্তি’ সংখ্যায় সম্মেলনের কর্তব্যসমূহের অনুবাদ প্রকাশিত হয় জুনিয়রের নামে।

রুশ বিপ্লবের কোনো টাটকা খবর রাশিয়া থেকে আসামাত্রই গ্রামশি সেগুলোকে বিশ্লেষণ করতে শুরু করতেন। ১৯১৭-র এপ্রিলের শেষ দিকে ‘ইল গ্রিদো দেল্‌ পোপোলো’-তে ‘নোটে সুলা রিভোল্যুজুনেরুশা’ [রুশ বিপ্লব বিষয়ক টীকা] নামে গ্রামশির একটি প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়। যখন তৎকালীন অধিকাংশ সমাজতন্ত্রী রুশ বিপ্লবকে ‘নব ফরাসি বিপ্লব’ বলে অভিহিত করছেন, তখন গ্রামশি এর বিপরীত বিশ্লেষণ রাখেন সমাজতন্ত্রের অভিমুখে ‘সর্বহারার সক্রিয়তা’ বলে।

গ্রামশির চোখে রুশ বিপ্লব শুধুমাত্র জ্যাকোবিন মডেল অনুযায়ী ‘বুর্জোয়া বিপ্লব’ ছিল না বরং তার থেকে অনেক আলাদা। পেট্রোগ্রাডের ঘটনাবলী বিশ্লেষণ ক’রে গ্রামশি ভবিষ্যতের রাজনৈতিক কর্মসূচী প্রকাশ করতে চাইছিলেন। আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে এবং একে শ্রমিক বিপ্লবের দিশা দিতে রুশ সমাজতন্ত্রীদের জ্যাকোবিন মডেল ভাঙ্গতেই হবে- যে মডেল বলে নিয়মবদ্ধ সহিংসতা এবং কম সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড।

১৯১৭ সালের শেষ দিকে গ্রামশি ধীরে ধীরে নিজেকে একাত্ম ক’রে নিচ্ছিলেন বলশেভিকদের সঙ্গে; আর, তাঁর সেই অবস্থান ইতালির সোশ্যালিস্ট পার্টির যুদ্ধবিরোধী ও অপেক্ষাকৃত বেশি বিপ্লবী অংশের সমমনোভাবাপন্ন ছিল। ২৮শে জুলাই গ্রামশি একটি নিবন্ধ লেখেন “আই মাসিমালিস্তি রুশি (রুশি ম্যাক্সিম্যালিস্ত)” নামে, যেখানে তিনি পূর্ণ সমর্থন জানান লেনিন এবং ‘ম্যাক্সিম্যালিস্ট’ রাজনীতিকে। তাঁর মতে এটা ছিল, “বিপ্লবের ধারাবাহিকতা, বিপ্লবের ছন্দ এবং সেইজন্যেই পূর্ণ বিপ্লব।” ম্যাক্সিম্যালিস্টরা ছিল অতীতের প্রতি আনুগত্যহীন এবং ‘সমাজতন্ত্রের সীমাবদ্ধ ধারণার’ অবতারস্বরূপ।

গ্রামশি একান্তভাবে চেয়েছিলেন যাতে বিপ্লব কোনোভাবেই বাধাপ্রাপ্ত না হয়ে বুর্জোয়া বিশ্বকে জয় করতে পারে। ‘ইল গ্রিদো দেল পোপোলো’-র সাংবাদিকের সমস্ত বিপ্লবের প্রতি, বিশেষতঃ রুশ বিপ্লবের প্রতি আশঙ্কার কারণ ছিল যে, বিপ্লবের এই প্রক্রিয়াটা যেকোনো মুহূর্তে বন্ধ হয়ে যেতে পারে। ম্যাক্সিম্যালিস্টরা এই বিপ্লবপ্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়ার ঘোরতর বিরোধী শক্তি বলেই তারা, “বিপ্লবপ্রক্রিয়ার শেষ যৌক্তিক যোগসূত্র” ছিল। গ্রামশির যুক্তিমতে, সমগ্র বিপ্লবপ্রক্রিয়াটাই সংযুক্ত এবং গতিমুখর ছিল; তাই সবচেয়ে শক্তিশালী ও আত্মবিশ্বাসীরা সবচেয়ে দুর্বল এবং দ্বিধাদীর্ণদেরও অংশগ্রহণ করাতে পেরেছিল।

৫ই অগাস্ট সোভিয়েতের প্রতিনিধি দল তুরিনে পৌঁছায়, যার মধ্যে ছিলেন জোসিফ গোল্ডেনবার্গ ও আলেক্সান্দার স্মার্নভ। এই সফরের প্রতি পূর্ণ সমর্থন ছিল ইতালির সরকারের, কারণ তাদের আশা ছিল যে নতুন রুশ সরকারও জার্মানির বিরুদ্ধে যুদ্ধে নামবে। রুশ প্রতিনিধিদের সঙ্গে সম্মেলনের পরেও ইতালির সমাজতন্ত্রীদের দোলাচল ছিল সোভিয়েতের ব্যাপারে। ১১ই অগাস্ট ‘ইল গ্রিদো দেল পোপোলো’-র সম্পাদক প্রশ্ন তুলেছিলেন,

‘যখন আমরা অবহিত হলাম যে, রুশ প্রতিনিধিরা যুদ্ধ চালানোকে সমর্থন করছে বিপ্লবের দোহাই দিয়ে, তখন আমরা জানতে উৎসুক হলাম- যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার মানে কি এই নয় যে, রাশিয়ায় সর্বহারার অগ্রগতির বিরুদ্ধে পুঁজিপতিদের কর্তৃত্ব মেনে নেওয়া?’

এ ছাড়া রুশ প্রতিনিধিদল আসায় বিপ্লবের প্রচার করার সুযোগ বাড়ে এবং এই সুযোগ কাজে লাগায় ইতালির সমাজতন্ত্রীরা। রোম, ফ্লোরেন্স, বোলোগান এবং মিলান ঘুরে প্রতিনিধিদল ফের তুরিনে আসে। দেল পোপোলোর অফিসের সামনে ৪০হাজার লোক অভ্যর্থনা করে তাদের; প্রথম মহাযুদ্ধের পরে এটাই ছিল প্রথম জনসমক্ষে অভিবাদন। বাড়ির বারান্দা থেকে প্রবল যুদ্ধবিরোধী এবং ম্যাক্সিম্যালিস্ট শাখার নেতা জ্যাচিন্তো মেনোত্তি সেরাত্তি রুশ প্রতিনিধি গোল্ডেনবার্গের ভাষণ অনুবাদ করে দিচ্ছিলেন। রুশ প্রতিনিধি বলামাত্রই সেরাত্তি অনুবাদ করে ঘোষণা করলেন যে, রুশ বিপ্লবীরা যুদ্ধের তৎক্ষণাৎ অবসান চায় এবং অনুবাদ শেষ করলেন, “ইতালির বিপ্লব দীর্ঘজীবী হোক” স্লোগান দিয়ে। উদ্বেলিত জনতাও সমস্বরে বলে উঠল, “রুশ বিপ্লব দীর্ঘজীবী হোক”, “লেনিন দীর্ঘজীবী হোন”।

‘ইল গ্রিদো দেল প্রোপোলো’-তে দারুণ উদ্দীপনা নিয়ে রুশদের সঙ্গে এই এই যৌথ মিছিলের কথা লিখলেন গ্রামশি। তাঁর মতে, এই মিছিল-সমাবেশ ছিল, “রুশ বিপ্লবের সংহতিতে সর্বহারা ও সমাজতন্ত্রীদের প্রকৃত অবস্থান।” কয়েকদিন বাদেই এই অবস্থান আরো স্পষ্টতর হল তুরিনের রাস্তায়।

২২শে অগাস্ট সকাল থেকেই তুরিনে রুটির সংকট প্রকট হলো, কারণ যুদ্ধের কারণে সমস্ত যোগান বন্ধ। দুপুর নাগাদ কারখানার শ্রমিকেরা কাজ বন্ধ করে দিলেন। বিকেল ৫টা নাগাদ সব কারখানা বন্ধ হয়ে গেল। শহরের জনগণ রাস্তায় বেরিয়ে বেকারি আর ওয়ারহাউসগুলো লুঠ করতে শুরু করল। কারোর নির্দেশে নয় কিন্তু স্বতঃস্ফূর্ত বিক্ষোভে ফেটে পড়ল শহর। রুটির যোগান পরে স্বাভাবিক হলেও এই বিক্ষোভ স্তিমিত হয়নি, বরং রাজনৈতিক অভিমুখ পেয়ে গেছিল।

পরের দিন বিকেলে শহরের দখল নিল সামরিক বাহিনী, ক্ষমতা কেন্দ্রীভূত করল তুরিন শহরের কেন্দ্রে। শহরের বাইরে তখনও লুঠপাট এবং ব্যারিকেড গড়া অব্যাহত। বোর্হো সান পাওলো, যেখানে সমাজতন্ত্রীদের শক্ত ঘাঁটি ছিল, সেখানে বিক্ষোভকারীরা ভাঙ্গচুর চালায় এবং সান বের্নার্দিনো চার্চে আগুন লাগিয়ে দেয়। পুলিশ নির্বিচারে জনগণের ওপর গুলি চালাতে শুরু করে। সংঘর্ষ তীব্রতর হয় ২৪শে অগাস্ট। সকালে বিক্ষোভকারীরা শহরের কেন্দ্র দখল করতে চেয়েও ব্যর্থ হয়। কয়েক ঘণ্টা বাদে নির্বিচারে মেশিনগান ও সামরিক গাড়ি থেকে গুলি চালাতে শুরু ক’রে পুলিশ। শেষপর্যন্ত ২৫ জন বিক্ষোভকারীর মৃত্যু হয় এবং বন্দী হন প্রায় ১৫০০ মানুষ। পরেরদিন সকালেও ব্যারিকেডহীন অবরোধ চলল। তারপরেই, ২৪ জন সমাজতন্ত্রী নেতা গ্রেপ্তার হলেন। স্বতঃস্ফূর্ত বিদ্রোহ দমিত হল।

এই দিনগুলোতে ‘ইল গ্রিদো দেল্‌ পোপোলো’ প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়নি।  সমাজতন্ত্রী নেতা মারিয়া গিউদিস গ্রেপ্তার হওয়ার পরে ১লা সেপ্টেম্বর থেকে গ্রামশির সম্পাদনায় পুনরায় প্রকাশিত হতে থাকে পত্রিকাটি। রাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞায় বিদ্রোহের কোনো খবরই প্রকাশ হতে পারে নি পত্রিকায়। গ্রামশি এই সুযোগে লেনিনের একটা সংক্ষিপ্ত তথ্যসূচী প্রকাশ করলেনঃ “কেরেনস্কি ঐতিহাসিক ক্ষতির প্রতিনিধিত্ব করেন আর লেনিন করেন সমাজতন্ত্রী হয়ে ওঠার প্রতিনিধিত্ব। আর, আমরা সোৎসাহে লেনিনের সাথেই আছি।” এটা ছিল রাশিয়ার জুলাই মাসের দিনগুলোর ইঙ্গিত এবং পরবর্তীতে বলশেভিকদের রাজনৈতিক অনুশীলন। এর জন্যেই লেনিনকে ফিনল্যান্ডে নির্বাসনে যেতে হয়েছিল।

কয়েকদিন বাদে সেপ্টেম্বর ১৫ তারিখে যখন জেনারেল লাভর কর্নিলভের নেতৃত্বে সামরিক বাহিনী পেট্রোগ্রাডের বিদ্রোহীদের দমন করে ক্ষমতা পুনর্দখল করে, তখন গ্রামশি আরো একবার উল্লেখ করলেন, “বিবেকের মধ্যে ঘটা বিপ্লব”সেপ্টেম্বর ২৯ তারিখে লেনিন আবার আখ্যায়িত হলেন, “বিক্ষুব্ধ বিবেক, ঘুমন্ত সত্তার জাগনঘণ্টা’ বলে। ইতালিতে তখনও অবধি রাশিয়া থেকে বিশ্বাসযোগ্য সংবাদ পৌঁছচ্ছিল না; একমাত্র ‘আভান্তি’তে প্রকাশিত জুনিয়রের অনূদিত কিছু খবর ছাড়া। এমতাবস্থায় গ্রামশি স্থির বিশ্বাসে সমাজতন্ত্রী বিপ্লবী ভিক্টর চের্নভকে অভিহিত করছিলেন, “একমাত্র মানুষ যাঁর পরিকল্পনা আছে এবং সেই পরিকল্পনাটি সম্পূর্ণ সমাজতান্ত্রিক। কোনোরকম জোট বরদাস্ত করে না। পরিকল্পনাটি যেহেতু ব্যক্তিগত সম্পত্তির বিরোধিতা করে তাই কখনোই বুর্জোয়াদের পছন্দ হবে না; এটাই সমাজবিপ্লবের শুরুর ধাপ।”

ইতালিতে রাজনৈতিক সংকট তখনো চলছিল। ১২ই নভেম্বর কাপোরেত্তোর যুদ্ধে ইতালির সৈন্যবাহিনী পরাজিত হওয়ার পরে ফিলিপ্পো তুরাতি ও ক্লদিও ত্রেভেসের নেতৃত্বে সংসদীয় সমাজতন্ত্রীরা বিগত সময়ের নিরপেক্ষ অবস্থান ভুলে খোলাখুলি জাতীয়তাবাদী অবস্থান নেন এবং ‘ন্যাশনালিজম’-এর স্বপক্ষে সওয়াল শুরু করেন। ‘ক্রিতিকা সোশিয়াল’-পত্রিকায় তুরাতি ও ত্রেভেস একটি প্রবন্ধ লেখেন যেখানে দেশের আভ্যন্তরীণ সনকটকালে প্রলেতারিয়েতদের প্রয়োজনীয়তাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়।

অন্যদিকে, পার্টির রক্ষণশীল-বিপ্লবীরা এই নতুন পরিস্থিতিতে নিজেদের সংগঠিত করতে শুরু করে। নভেম্বরে এই নেতারা ফ্লোরেন্সে একটি গোপন মিটিং আয়োজন ক’রে “পার্টির ভবিষ্যৎ অভিমুখ” বিষয়ে আলোচনা করতে। গ্রামশি তখন পার্টির তুরিন শাখার গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হিসেবে এই মিটিং-এ প্রতিনিধিত্ব করেন। এই মিটিং-এ তিনি আমাদিও বোরদিগা ও তাঁর সমমনোভাবাপন্নদের সঙ্গে সহমত হন যে, জঙ্গি কার্যকলাপ করতে হবে। কিন্তু সেরাত্তি সহ অন্যরা সেই পুরনো নিরপেক্ষবাদী অবস্থানের পক্ষেই অনড় থাকেন। অধিবেশন সমাপ্ত হয় বিপ্লবী আন্তর্জাতিকতাবাদ ও যুদ্ধবিরোধীতায় সহমত পোষণ ক’রে কিন্তু ভবিষ্যতের কর্মদিশা সম্বন্ধে রাজনৈতিক ধোঁয়াশা রয়েই যায়।

গ্রামশি তুরিনে ঘটা অগাস্ট মাসের ঘটনাবলীকে রুশ বিপ্লবের আলোকে বিশ্লেষণ করেন। গোপন অধিবেশন থেকে ফিরে সেই মুহূর্তে আরো সক্রিয় অংশগ্রহণের গুরুত্ব উপলব্ধি করেন। এই আশাবাদে উদ্দীপিত হয়ে এবং বলশেভিক কর্তৃক রুশ দেশের ক্ষমতা দখলে উজ্জীবিত হয়ে ডিসেম্বরে একটি প্রবন্ধ লেখেন তিনি “লা রিভলিউজিওনে কন্ত্রো ‘ইল ক্যাপিতালে’ [‘পুঁজি’র বিরুদ্ধে বিপ্লব]” নামে। এই প্রবন্ধে গ্রামশি লিখলেন, “বলশেভিক বিপ্লব নিশ্চিতভাবেই সাধারণ রুশ জনগণের বিদ্রোহের ধারাবাহিকতা।” বিপ্লবকে আবদ্ধ গণ্ডি থেকে বের করে লেনিনের পার্টিজানেরা ক্ষমতায় এসে ‘তাদের একনায়কতন্ত্র’ প্রতিষ্ঠা করল এবং ‘বিপ্লবের মধ্যে দিয়ে সর্বসম্মত উন্নয়ন যাতে গতিশীল থাকে, তার সমাজতান্ত্রিক প্রক্রিয়া’ বিস্তৃত করল। রুশ বিপ্লবীদের মধ্যে রাজনীতিগত মতানৈক্যের ব্যাপারে সুস্পষ্ট ধারণা ১৯১৭ সালে গ্রামশির ছিল না। এর পাশাপাশি, সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের ব্যাপারে তাঁর মূল ধারণাগুলি কিছু সাধারণ ধারণার ওপরে ভিত্তি করে ছিল যেমন, এটা ‘হিংসাত্মক কোনো সংঘর্ষ ছাড়া’ ধারাবাহিক প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়েই সম্পন্ন হবে।

বলশেভিকদের বিপ্লব তাদের একাত্ম এবং অপ্রতিরোধ্য সাংস্কৃতিক শক্তির ভিত্তিতে ‘তথ্যসমূহের থেকেও অনেক বেশি আদর্শগত’ ছিল। এই কারণেই রুশ বিপ্লবকে শুধুমাত্র ‘মার্ক্সের লেখাপত্রের’ পাঠে বেঁধে ফেলা যাবে না। গ্রামশি লিখছেন, রাশিয়াতে ‘দাস্‌ ক্যাপিটাল’ “শ্রমিকদের থেকেও বেশি বুর্জোয়াদের বই” ছিল। গ্রামশি উল্লেখ করছেন  ১৮৬৭-র মুখবন্ধের প্রতি, যেখানে মার্ক্স দাবি করছেন উন্নত দেশগুলি অনুন্নত দেশগুলোকে পথ দেখাচ্ছে এবং প্রগতির ‘স্বাভাবিক স্তর’গুলোকে এড়ানো যাবে না। এই পাঠ্যের ভিত্তিতেই মেনশেভিকরা রাশিয়ার সামাজিক উন্নয়নের পাঠ তৈরি করছে যেখানে সমাজতান্ত্রিক বাস্তবতার আগে বুর্জোয়াসমাজ ও পূর্ণ বিকশিত শিল্পসমাজের প্রয়োজনীয়তা দেখানো হচ্ছে। কিন্তু গ্রামশির মতে, লেনিনের নেতৃত্বাধীন বিপ্লবীরা গোঁড়া মার্ক্সবাদী নন। কারণ, তাঁরা মার্ক্সের ‘অন্তর্নিহিত ভাবনা’ প্রত্যাখ্যান করেননি বরঞ্চ তাঁরা “দাস্‌ ক্যাপিটালের বেশ কিছু বক্তব্য ‘পরমমান্য ও অপরিহার্য সিদ্ধান্ত’ বলে মেনে নিতে অস্বীকার করেন”।

গ্রামশির মতে, মার্ক্সের দাস্‌ ক্যাপিটালে লেখা পুঁজির বিকাশ বিষয়ক ধারণাগুলো সত্যি হতে পারত যদি ‘শ্রেণি অভিজ্ঞতার ধারাবাহিকতা’র মধ্যে দিয়ে ‘জনপ্রিয় সম্মিলিত ইচ্ছাশক্তি’-র স্বাভাবিক বিকাশের পরিস্থিতি তৈরি হতো। কিন্তু যুদ্ধটা এরকম গতি পেয়ে গেছিল অপ্রত্যাশিত উপায়ে এবং রুশ শ্রমিকরা তিন বছরের মধ্যে এই প্রভাবের গভীরতা উপলব্ধি করেছিলেনঃ “উচ্চমাত্রার ব্যয়, ক্ষুধা ও ক্ষুধাজনিত মৃত্যু বেড়ে গেছিল এবং একধাক্কায় প্রায় ১০ মিলিয়ন মানুষের মৃত্যু ঘটেছিল। [এর বিরুদ্ধে] প্রথম বিপ্লবের পরে স্বতঃস্ফূর্ততাগুলো সমস্বর হচ্ছিল প্রথমে যান্ত্রিকভাবে এবং পরে আবেগভরে।”

সম্মিলিত জনপ্রিয় ইচ্ছাশক্তি সমাজতান্ত্রিক প্রচারের ফলেই জেগে উঠছিল। রুশ শ্রমিকেরা এরকম ব্যতিক্রমী পরিস্থিতিতে এক ধাক্কায় সমস্ত প্রলেতারিয়েত ইতিহাসকে জাগরিত করে তুলেছিলেন। শ্রমিকেরা তাঁদের পূর্বজদের প্রচেষ্টা হৃদয়ঙ্গম ক’রে ‘দাসত্বের বাঁধন’ থেকে মুক্ত হতে চাইছিল। তাদের মধ্যে ‘নব চেতনা’ দ্রুত জেগে উঠছিল যা ছিল “আগামী ভবিষ্যতের বর্তমান দ্রষ্টা”। সর্বোপরি, এই চেতনা জেগে উঠছিল সেই সময় যখন ইংল্যান্ডের মতো দেশে পুঁজিবাদ  আন্তর্জাতিকভাবে সর্বোচ্চ বিকাশে পোঁছেছিল। সম্মিলিত চেতনার আবশ্যিক শর্ত হিসেবে রুশ প্রলেতারিয়েতরা দ্রুত অর্থনৈতিকভাবে পরিণত হয়ে উঠেছিলেন।

‘ইল গ্রিদো দেল্‌ পোপোলো’-র তরুণ সম্পাদকের ওই ১৯১৭ সাল ছাড়া বলশেভিকদের ভাবনার বিষয়ে কোনো ধারণা ছিল না। ফলে সহজেই তিনি ট্রটস্কির ‘পার্মানেন্ট রেভ্যলুশন’ ধারণাটির প্রতি আকৃষ্ট হয়েছিলেন। লেনিন এবং অন্যান্য বলশেভিকদের মধ্যে গ্রামশি দেখেছিলেন নিরবচ্ছিন্ন বিপ্লব প্রক্রিয়ার পুনঃপ্রয়োগ। গ্রামশি ইতালিতেও এই বিপ্লব-ধারণাকেই বাস্তব করতে চাইছিলেন।

বিশ বছর বাদে ইতালির ফ্যাসিস্ত কারাগারে মারা যান গ্রামশি। ইতিহাসকে ফিরে দেখার এই প্রসঙ্গে হয়তো আমাদের মনে হবে যে, অক্টোবর বিপ্লবের গভীর প্রত্যাশাকে গ্রামশি প্রশ্নবিদ্ধ করেছিলেন। অথবা তাঁর ‘প্রিজন নোটবুকস্‌’ ছিল কোনো ‘নতুন ধারা’ খুঁজে বের করার চেষ্টা, যেখানে পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে সংগ্রামের পথ আরো আপোষকামী ও নমনীয়।

কিন্তু, এরকম কোনো আত্মসমর্পণের কথা সেখানে নেই। গ্রামশি তাঁর জেলের লেখাপত্রে যে রাজনৈতিক তত্ত্বের কথা বলছেন, সেখানে শক্তি ও জনমতকে বিচ্ছিন্ন করে দেখছেন না। এই তত্ত্বে রাষ্ট্রকে দেখা হচ্ছে আভ্যন্তরীণ শক্তিগুলির পদ্ধতিকরণের ঐতিহাসিক ফলাফল হিসেবে এবং যে পদ্ধতিতে নিম্নবর্গীয় দলগুলোর প্রতিকূলতা আরো বেশি বেড়ে যায়। জীবনের সর্বক্ষেত্রেই সংগ্রামের সশস্ত্রতার প্রয়োজনীয়তা বিষয়ে লিখছেন গ্রামশিআর, একইসাথে, আধিপত্যকামী (Hegemonic) ঘনীভবন এবং রাজনৈতিক রূপান্তরবাদের (‘Transformism’) বিপদ সম্পর্কেও লিখছেন তিনি। জনপ্রিয় বাস্তবতায় বুদ্ধিজীবীদের ভূমিকা, যা সদাসর্বদা বিপজ্জনক, সেই বিষয়টিকে গুরুত্বসহ অনুধাবন করেছিলেন গ্রামশি। তাঁর ‘অনুশীলনের দর্শন’ (Philosophy of praxis) লেখায় সর্বজনীন বিশ্বদৃষ্টিভঙ্গি হিসেবে মার্ক্সবাদের ক্রমপ্রসারণের প্রয়োজনীয়তার কথা লিখছেন তিনি।

আর তাই, তাঁর জেলবন্দী জীবন কোনোভাবেই এই ইঙ্গিত দেয় না যে, গ্রামশি রুশ বিপ্লবকে বাতিল ক’রে দিয়েছিলেন শ্রমিকশ্রেণির মুক্তিসংগ্রামের কার্যকরী ও ঐতিহাসিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে। রুশ বিপ্লব গ্রামশির হৃদয়ে চিরজাগরুক ছিল তাঁর জীবনের অন্তিমলগ্ন তথা ১৯৩৭-র এপ্রিল পর্যন্ত।

টীকাঃ

১। প্রকৃতপক্ষে রাশিয়াতে ম্যাক্সিমালিস্ট হল সোশ্যালিস্ট রেভল্যুশনারী দলের একটি উপগোষ্ঠী। সশস্ত্র বিপ্লবের প্রবক্তা এবং পার্লামেন্টারী ব্যবস্থার বিরোধী, এঁদের অনেকে ১৯১৭ সালে বলশেভিকদের সঙ্গে বা বামপন্থী সোশ্যালিস্ট রেভল্যুশনারীদের সঙ্গে যোগ দেন। ইতালীর সময়াজতন্ত্রী দলের বামপন্থী অংশের নাম ছিল ম্যাক্সিমালিস্ট, এবং সম্ভবত এই কারণে গ্রামশির এই বিভ্রাট।

 

২। Hal Draper, Karl Marx’s Theory of Revolution, vol III, The ‘Dictatorship of the Proletariat’, -এ দীর্ঘ আলোচনার মাধ্যমে দেখিয়েছেন, মার্ক্স বা এংগেলস ঐ শব্দগুলি ব্যবহার করার ক্ষেত্রে একনায়কতন্ত্রের কোনো উল্লেখ করেন নি। 

১৯১৭-র ফিনল্যান্ডের বিপ্লব

১৯১৭র ফিনল্যান্ডের বিপ্লব

১৯১৭য় রাশিয়ার ঘটনা বহুল পরিস্থিতির তুলনায় ভুলে যাওয়া ফিনিশ বিপ্লব আজ হয়তো আমাদের অনেক কিছু শিক্ষা দেয়।

 

 

 

রচনা- এরিক ব্ল্যাঙ্ক; অনুবাদ- কৌশিক চট্টোপাধ্যায়; সম্পাদনা- কুনাল চট্টোপাধ্যায়

 

 

 

 

 

 

গত শতাব্দীর ইতিহাসবিদগণ ১৯১৭র বিপ্লব বলতে রাশিয়ার কথাই আগে ভাবেন এবং এই বিপ্লবের দুটি বিষয়কে তাঁরা মূলতঃ গুরুত্ব দেন – পেত্রোগ্রাদ এবং রুশ সমাজতন্ত্রীগণ। কিন্তু এটাও ইতিহাসসিদ্ধ যে রুশ সাম্রাজ্য প্রধানত অ-রুশীয়দের দ্বারাই গঠিত হয়েছিল এবং সাম্রাজ্যের সীমানায় টাল-মাটাল অবস্থা সৃষ্টির কারণ ছিল তার কেন্দ্রাঞ্চলে বিস্ফোরণ।

১৯১৭র ফেব্রুয়ারিতে জারতন্ত্রকে রাশিয়ার মাটি থেকে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়ায় তা রাশিয়া জুড়ে এক বাঁধভাঙা বৈপ্লবিক তরঙ্গের প্রবাহকে সঞ্চালিত করে। এই ধরনের অভ্যুত্থানের ব্যতিক্রমী চরিত্র হল ফিনল্যান্ড অধিবাসীদের [বা ফিনদের] বিপ্লব। বিষয়টিকে “বিংশ শতাব্দীতে ইউরোপের সুস্পষ্ট শ্রেণী সংগ্রাম” হিসেবে কোনো গবেষক বিবেচনা করতেই পারেন।  

 

ফিনল্যান্ডীয় ব্যতিক্রম

        ফিনল্যান্ডের অধিবাসীরাজারতন্ত্রের শাসনাধীন অনান্য জাতিগুলির মতো ছিলেন না। ফিনল্যান্ডকে১৮০৯ সালে সুইডেন থেকে দখল করারসে দেশকে স্বায়ত্বশাসন, রাজনৈতিক স্বাধীনতা এবং শেষে তার গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত পার্লামেন্টেরও অনুমোদন করা হয়েছিল। যদিও জার সেই স্বশাসনকে সীমিত করতে চেষ্টা করতেন, তবু হেলসিঙ্কির রাজনৈতিক জীবন পেত্রোগ্রাদের চেয়ে অনেক বেশী  ছিল বার্লিনের সদৃশ ।

        যে যুগে রুশ সাম্রাজ্যের অন্যত্র সমাজতন্ত্রীরা বাধ্য হতেন গোপন পার্টি সংগঠিত করতে,এবং যেখানে গোপন পুলিশ তাঁদের শিকার করে বেড়াত, তখন ফিনল্যান্ডে সোস্যাল-ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এস ডি পি) খোলামেলাভাবে আইনি বৈধতার মধ্যেতাদের রাজনৈতিক প্রচার চালাতো জার্মান সোশ্যাল ডেমোক্রেসীর মত, ফিনরাও ১৮৯৯ সাল থেকে গড়ে তুলেছিলএক বিশাল, শ্রমিক শ্রেণী ভিত্তিকপার্টি এবং এক নিবিড় সমাজতান্ত্রিক সংস্কৃতি। তাদের নিজেদের যেমন সাংস্কৃতিক প্রেক্ষাগৃহ ছিল, তেমনি ছিল শ্রমিক নারী গোষ্ঠী, গায়ক সমিতি, ক্রীড়া সংঘ, ইত্যাদি।

রাজনৈতিক দিক থেকে ফিনল্যান্ডীয় শ্রমিক আন্দোলন মূলতঃ পার্লামেন্টকেন্দ্রিক রণনীতিতে অঙ্গীকারবদ্ধ ছিল, যেখানে জোর পড়ত ধৈর্যের সঙ্গে শ্রমিকদের শিক্ষিত ও সংগঠিত করার উপর।প্রথমদিকে তারা ছিল নেহাৎইনরমপন্থী, এবং উদারনৈতিকদের সঙ্গে সহযোগিতা ছিল সাধারণ ঘটনা।  

কিন্তু ইউরোপের গণ, আইনি সমাজতন্ত্রী দলগুলির মধ্যে এস ডি পি অনন্য ছিল, কারণ প্রথম মহাযুদ্ধের পূর্ববর্তী সময়ে তাদের জঙ্গী রাজনীতির তীব্রতা বাড়ে।ফিনল্যান্ড যদি জারের সাম্রাজ্যের অঙ্গ না হত, তাহলে হয়ত ফিনিশ সোশ্যাল-ডেমোক্র্যাটরা অধিকাংশ ইউরোপীয় সমাজতন্ত্রী দলেদের মত নরমপন্থী পথ ধরত, যেখানে সংসদীয় ব্যবস্থায় অন্তর্ভুক্তিকরণ এবং আমলাতন্ত্রীকরণের ফলে র‍্যাডিকালরা উত্তরোত্তর  অকিঞ্চিতকর বলে গণ্য হতে

কিন্তু ১৯০৫র বিপ্লবে ফিনল্যান্ডের অংশগ্রহণ পার্টিকে বাঁ দিকে ঘুরিয়ে দেয়।এই বছরের নভেম্বরে সাধারণ ধর্মঘটের সময়ে একজন ফিনল্যান্ডীয় সমাজতন্ত্রী নেতা গণ অভ্যুত্থানে পরম বিস্ময়ের সঙ্গে বলেন, “আমরা এক আশ্চর্যজনক সময়কালের মধ্যে বাস করছি … যে সকল মানুষ দাসত্বের জ্বালাকে হাসিমুখে মেনে নিত এবং সবিনয়ে তাকে বয়ে নিয়ে চলতো, সেই সকল মানুষ হঠাৎ করেই তার জোয়াল ছুঁড়ে ফেলে দেয়। সেই সকল গোষ্ঠী যারা এতদিন পাইন গাছের ছাল খেয়েই খুশী ছিল, তারাও আজ রুটির দাবী করে।”

১৯০৫র বিপ্লবের তরংগের অনুসরণে, নরমপন্থী সমাজতন্ত্রী সাংসদ, ইউনিয়নের নেতারা, এবং পার্টির আমলারা এস ডি পি-র অভ্যন্তরে সংখ্যালঘু হয়ে ওঠে। ১৯০৬ পরবর্তী সময়ে জার্মান মার্কসবাদী তাত্ত্বিক কার্ল কাউটস্কির ছকে দেওয়া রণনীতির অনুসরণে পার্টির বৃহদাংশ আইনী কৌশল এবং সংসদীয় দিশার মধ্যে ঢুকিয়ে দিতে চেষ্টা করেন তীক্ষ্ণ শ্রেণী সংগ্রামের রাজনীতিকে । পার্টির একটি প্রকাশনায় বলা হয়, “শ্রেণী বিদ্বেষকে স্বাগত, কারণ এটা একটা সদগুণ।”

এস ডি পি ঘোষণা করল যে কেবলমাত্র একটি স্বাধীন শ্রমিক আন্দোলন শ্রমিক শ্রেণীর স্বার্থ এগিয়ে নিতে পারবে, রাশিয়ার হাত থেকে ফিনল্যান্ডের স্বাতন্ত্র্য রক্ষা ও সম্প্রসারণ করতে পারবে, এবং পূর্ণ রাজনৈতিক গণতন্ত্র আনতে পারবে। কালক্রমে সময়ের দাবী হয়ে উঠবে একটি সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব। কিন্তু তাঁর আগে পর্যন্ত পার্টিকে সাবধানে নিজের শক্তিবৃদ্ধি করতে হবে এবং শাসক শ্রেণীর সঙ্গে কোনোরকম অসময় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়া এড়াতে হবে

বিপ্লবী সোশ্যাল ডেমোক্রেসীর এই কৌশল – তার জংগী মর্মবাণী এবং ধীরগতি কিন্তু অবিচল পদক্ষেপ নিয়ে --ফিনল্যান্ডে ব্যাপক সফলতা পায়। ১৯০৭ সালে প্রায় লক্ষাধিক শ্রমিক পার্টিতে যোগ দেন। ফলে এক সাংগঠনিক প্রকৃতিতে ও পরিচিতিতে এস ডি পি দেশের জনসংখ্যার অনুপাতে বিশ্বের বৃহত্তম সমাজতন্ত্রী দলে পরিণত হয়। ১৯১৬র জুলাই মাসে ফিনল্যান্ডীয় সোশ্যাল ডেমোক্রেসী ইতিহাস সৃষ্টি করে যখন তারা বিশ্বের মধ্যে প্রথম কোনো দেশ যেখানকার সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে।  কিন্তু সাম্প্রতিক বছরগুলির জারতন্ত্রী “রুশীকরণ” প্রক্রিয়ার ফলে রাষ্ট্রক্ষমতার বড় অংশই চলে গিয়েছিল রুশ প্রশাসনের হাতে।কেবলমত্র ১৯১৭ সালেই  সমাজতন্ত্রীরা ধনতান্ত্রিক সমাজে সংসদীয় সমাজতন্ত্রী সংখ্যাগরিষ্ঠতা রাখার চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করতে বাধ্য হলেন

 

বিপ্লবের প্রথম মাসগুলিঃ

        ফিনরা যখন পেত্রোগ্রাদের ফেব্রুয়ারি অভ্যুত্থানের খবর শুনলো, সেই চমকপ্রদ খবরে তারা  প্রথমে কিছুটা বিস্মিত হয়ে পড়ে। কিন্তু সেই বিস্ময় তারা কাটাতে পারলো যখন দেখলো হেলসিঙ্কিতে থাকা রুশ সেনাঘাঁটির সৈন্যরা তাদের অফিসারদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে বিদ্রোহ করছে। বিষয়টি তখন আর নিছক গুজব থাকলো না। একজন প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনায়, “সকালবেলা রাস্তায় সেনারা এবং সাধারণ নাবিকরা মার্চ করছিল তাদের লাল পতাকা নিয়ে। এই সুশৃঙ্খল বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় একটা অংশ দেশাত্মবোধক বিপ্লবের-গান জুড়েছিল, আর তাদেরই একটা অংশ লাল ফিতে এবং লাল কাপড়ের টুকরো নিয়ে তাদেরই সঙ্গে কিছুটা বিশৃঙ্খলভাবে হাঁটছিল। শহরের সর্বত্র নীল জ্যাকেট পরা সশস্ত্র বাহিনীর টহলদারি চলছিল। তারা সেনা অফিসারদের অস্ত্র ত্যাগ করে লাল প্রতীক গ্রহণের আহ্বান জানাচ্ছিল। কিন্তু যে অফিসাররা বিষয়টিকে নিয়ে অল্প হলেও প্রতিবাদ করছিল, টহলে থাকা সেনারা তাদের বুলেটে বিদ্ধ করছিল এবং সেখানেই ফেলে রেখে যাচ্ছিল।”

        রাশিয়ান প্রশাসকদের ক্ষমতা থেকে উৎখাত করা হয়েছিল। ফিনল্যান্ডে থাকা রুশ সেনাদল পেত্রোগ্রাদ সোভিয়েতের প্রতি তাদের আনুগত্য প্রকাশ করে। এবং ফিনল্যান্ডীয় পুলিশী ব্যবস্থাকে পাকাপাকিভাবে ধ্বংস করে ফেলা হয়। রক্ষণশীল লেখক হেনিং সোদেরঝেলম্, এই বিপ্লবের প্রত্যক্ষ পর্যালোচনা করেছেন। ১৯১৮ সালে করা তাঁর এই সরাসরি অনুসন্ধান মূলতঃ ফিনল্যান্ডের উচ্চ শ্রেণীর বক্তব্যকেই তুলে ধরে। তিনি তাঁর বক্তব্যে হিংসার ক্ষেত্রে রাষ্ট্রের একচ্ছত্র অধিকার হরণের বিষয়টি প্রসঙ্গে আক্ষেপ প্রকাশ করেন। তিনি লেখেন, “ফিনল্যান্ডীয় পুলিশী ব্যবস্থাকে পুরোপুরি ধ্বংস করা  এস ডি পি-র এক ঘোষিত কর্মসূচী। বিপ্লবের শুরুতেই বিপ্লবীদের পক্ষ নিয়ে রুশ সেনা পুলিশ বাহিনীকে একেবারে নীচের স্তর থেকে যেভাবে উচ্ছেদ করে তাতে তার পুনর্বিন্যাস আর সম্ভব হয় না। ফিনল্যান্ডের ‘জনগণ’-ও আর এই প্রতিষ্ঠানটির প্রতি আস্থা রাখতে পারেন না, এবং এর বিকল্প হিসেবে সামাজিক শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য আঞ্চলিক সেনাবাহিনীর সহায়তায় গড়ে ওঠে ‘রক্ষীবাহিনী’। এই রক্ষীবাহিনীর সদস্যগণ মূলতঃ ছিলেন লেবার পার্টির সদস্য।”

        পুরনো আঞ্চলিক রুশ প্রশাসনের স্থান কে নেবে? র‍্যাডিকালদের একটা অংশ ‘লাল সরকার’-এর কথা বলেন। কিন্তু তারা সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিলেন না। ফলে প্রস্তাব গ্রহণের কোনো সম্ভাবনা দেখা গেল না। মার্চ মাসে সাম্রাজ্যের অন্য অংশের মতোই ফিনল্যান্ডও ‘‘জাতীয় ক্য’’ গঠনের ডাক দেয়। আশা করা হয় যে রাশিয়ায় সদ্য গঠিত নতুন সরকার ফিনল্যান্ডকে স্বশাসনের অধিকার দেবে। এস ডি পি-র নরমপন্থী অংশের নেতৃত্ব পার্টির দীর্ঘদিনের ঘোষিত অবস্থান থেকে সরে আসেন। তারা ফিনল্যান্ডীয় উদার মতাবলম্বীদের পক্ষ নেন এবং জোট প্রশাসন প্রতিষ্ঠার জন্য চেষ্টা চালান। বিভিন্ন র‍্যাডিকাল-প্রগতিবাদী-সমাজতন্ত্রী এই ধরনের প্রয়াসকে “বিশ্বাসঘাতকতার নিদর্শন” হিসাবে আখ্যা দিয়েই ক্ষান্ত থাকেন না। তারা বিষয়টিকে এস ডি পি-র মার্কসীয় নীতি থেকে বড় মাত্রায় বিচ্যুতি হিসাবেও ব্যাখ্যা দেন। এস ডি পি-র মুখ্য নেতৃত্ব অবশ্য পার্টির অনিবার্য বিভাজন এড়াতে সরকারে যাওয়ার পক্ষে মত দেন।

        এই রাজনৈতিক মধুচন্দ্রিমা ফিনল্যান্ডে বেশী দিন টেঁকে না। নতুন মিলি-ঝুলি সরকার এক সর্বব্যাপী শ্রেণী সংগ্রামের মধ্য দিয়ে ভেঙে পড়ে। সারা দেশে অভূতপূর্ব সন্ত্রাসের বাতাবরণ তৈরী হয়। এই অভ্যুত্থান কেবলমাত্র কল-কারখানা, অফিস-কাছারিতেই সীমাবদ্ধ থাকে না। গ্রাম-নগর-মহল্লা, রাস্তা-গলি-তস্যগলি - সর্বত্রই তা ব্যাপক আকার নেয়। ফিনল্যান্ডীয় সমাজতন্ত্রীদের একটা অংশ সশস্ত্র শ্রমিক রক্ষীবাহিনী গঠনের ওপর জোর দেন। আরেক অংশ তখন হরতাল, জঙ্গি শ্রমিক-সংঘাত এবং দোকান-কর্মচারী মহলে সক্রিয়তা ওপর গুরুত্ব দেন। এমন পরিবর্তনশীল পরিস্থিতির বর্ণনায় সোদেরঝেলম্ লেখেন, “এহেন পরিস্থিতিতে সর্বহারা করুণার কাঙালী হয় না, সে তার প্রাপ্য অধিকার দাবী করে। আমি কখনোই মনে করি না যে এই দাবী তাদের কাজের সঙ্গে সম্পর্কিত ছিল। বরং বলা ভালো যে খুবই রুক্ষভাবে তারা ক্ষমতা দখলের জন্য হাঁসফাঁস করছিল — ১৯১৭য় ফিনল্যান্ডে যেমনটি ঘটেছিল”

        ফিনল্যান্ডের উচ্চবর্গীয়রা প্রাথমিকভাবে আশা করেছিল যে জোট সরকারে নরমপন্থী সমাজতন্ত্রীদের অন্তর্ভুক্তি, এস ডি পি-র নীতিকে শ্রেণী সংগ্রামের লাইন থেকে সরিয়ে নিয়ে যেতে সফল হবে। কিন্তু এই প্রত্যাশা অচিরেই হতাশায় পরিণত হয়। এই প্রসঙ্গে সোদেরঝেলমের খেদোক্তি, “অপ্রত্যাশিত দ্রুততার সঙ্গে একটা নিছক উচ্ছৃঙ্খল জনতার-শাসন পরিপূর্ণতা পেতে থাকে। … প্রথম এবং প্রধান কারণ হয় লেবার পার্টির রণকৌশলগুলি। যদি এটাও ধরে নেওয়া হয় যে লেবার পার্টি তাঁর অফিসিয়াল চালচলনে, আচরণে কিছুটা মার্জিত ভাব প্রকাশ করে, তাহলেও এটা সত্য যে বুর্জোয়ার বিরুদ্ধে পার্টির বিক্ষোভনীতি তখনও অক্লান্ত উদ্যমের সঙ্গে সচল ছিল।”

        যেখানে সরকারে ঢোকা নরমপন্থী সমাজতন্ত্রীরা, এবং শ্রমিক আন্দোলনে তাঁদের মিত্ররা, গণ অভ্যুত্থানের তীব্রতা কমাতে সচেষ্ট হলেন, সেখানে পার্টির বিপ্লবী বামপন্থী অংশ একনিষ্ঠভাবে ডাক দিতে থাকলেন বুর্জোয়া শ্রেণীর সঙ্গে ভাঙ্গনের। এই দুই সমাজতন্ত্রী মেরুর মধ্যে ছিল এক দোদুল্যমান মধ্যবর্তী ধারা,  এই পরিস্থিতি সমাজতন্ত্রীদের মধ্যে একটা মেরুকরণকে অনিবার্য করে। সেই মেরুকৃত অবস্থানের মধ্যে যারা নতুন প্রশাসনকে সীমিত সমর্থন করতে থাকে। আর, যদিও এস ডি পি-র বেশিরভাগ নেতাই সাধারণভাবে সংসদীয় ক্ষেত্রকে অগ্রবর্তী করতে চাইতো, কিন্তু কাজের ক্ষেত্রে সংখ্যাগুরু অংশ সমর্থন করত, বা অন্তত গা ভাসাতো, নীচের থেকে বিক্ষোভের জোয়ারে।

         অপ্রত্যাশিত প্রতিরোধের ঝড়ের মুখোমুখি হয়ে ফিনল্যান্ডের বুর্জোয়াশ্রেণী উত্তরোত্তর আক্রমণাত্মক এবং আপসবিমুখ হয়ে পড়ে। ইতিহাসবিদ মরিস ক্যারেজলক্ষ্য করেছেন যে ফিনল্যান্ডের উচ্চবিত্ত শ্রেণী কোনোদিনই সাক্ষাৎ শয়তান বলে দেখত যে রাজনৈতিক কাঠামোকে, তার সঙ্গে ক্ষমতা ভাগ করে নিতে” হাল ছেড়ে দেওয়া ভাব দেখায় নি।

শ্রেণী মেরুকরণঃ           

        গ্রীষ্মকাল থেকে ফিনিশ জোট সরকারের ভিতর থেকে ভেঙ্গে পড়া শুরু হল। আগস্টের মধ্যে সাম্রাজ্যের খাদ্য সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছিল, এবং অনাহারের প্রেত ফিনল্যান্ডের শ্রমিকদের গ্রাস করতে বসেছিল। এই মাসের শুরু থেকেই গোটা ফিনল্যান্ড জুড়ে খাদ্যের জন্য দাঙ্গা বাঁধতে শুরু করলো। এস পি ডি-র হেলসিঙ্কিসংগঠন সরকার সংকটকে গুরুত্ব দিয়ে নির্ণায়ক পদক্ষেপ নিতে অস্বীকার করায় তাকে তীব্রভর্ৎসনা করেএই প্রসঙ্গে এস পি ডি-র বামপন্থীদের প্রধানতাত্ত্বিক অটো কুসিনেন, যিনি পরের বছর ফিনল্যান্ডের কমিউনিস্ট আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা হয়েছিলেন, তিনি লেখেন, “ক্ষুধার্ত শ্রমজীবী মানুষ অচিরেই জোট সরকারের ওপর সকল আস্থা হারায়।”

জাতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামে সমাজতন্ত্রীদের আপসবিমুখ অবস্থান পুনরায় শ্রেণী মেরুকরণে গতি আনে। ফিনল্যান্ডের অভ্যন্তরীণ জীবনে রাশিয়ার নাক গলানো বন্ধে সমাজতন্ত্রীরাকঠোর লড়াই করেন তাঁরা আশা করেন  যে স্বাধীনতা অর্জন করে সংসদে তাঁদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা এবং শ্রমিকদের রক্ষীবাহিনীর উপর তাঁদের নিয়ন্ত্রণের উপর ভিত্তি করে এক উচ্চাকাঙ্ক্ষী রাজনৈতিক এবং সামাজিক সংস্কারের কর্মসূচী ঠেলে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন।

জুলাই মাসে একজন সমাজতন্ত্রী নেতা বলেন, “এযাবৎ আমরা দুটো শক্তির বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে বাধ্য হয়েছিলাম -- আমাদের নিজেদের বুর্জোয়াদের বিরুদ্ধে, এবং রুশ সরকারের বিরুদ্ধে। যদি আমাদের শ্রেণী যুদ্ধকে সফল হতে হয়, এবং যদি আমরা আমাদের সকল ক্ষমতা একটা রণক্ষেত্রে জড়ো করতে পারি, আমাদের নিজেদের বুর্জোয়াদের বিরুদ্ধে, তবে আমাদের চাই স্বাধীনতা, যার জন্য এখনই সুপরিণত।”

ফিনল্যান্ডের রক্ষণশীল এবং উদারপন্থী উভয় পক্ষই তাদের নিজেদের প্রয়োজনে ফিনল্যান্ডের স্বায়ত্বশাসন জোরদার করতে চায়। কিন্তু এই লক্ষ্যপূরণে তারা কেউই বৈপ্লবিক পদ্ধতি অনুসরণে ইচ্ছুক ছিলেন না। এমনকি এক পূর্ণ স্বাধীনতার জন্য তারা এস পি ডি-লড়াইকেও সমর্থন করত না।

জুলাই মাসে সংঘাত চূড়ান্ত আকার নেয়। ফিনল্যান্ডের পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠ সমাজতন্ত্রীরা  এক দিগন্তকারী ভালতালাকি (ক্ষমতার আইন)বিল আনে। ক্ষমতা–আইন প্রসঙ্গে এই বিল ফিনল্যান্ডকে একটি পূর্ণ সার্বভৌম দেশ হিসাবে দাবি করে। সংসদে রক্ষণশীল সংখ্যালঘু অংশ অবশ্য এর তীব্র বিরোধিতা করে। কিন্তু সংখ্যাগুরুর ভোটে ১৮ই জুলাই তা সংসদে পাশ হয়ে যায়। কিন্তুলেকজান্ডার কেরেনেস্কর নেতৃত্বে রাশিয়ার অস্থায়ী সরকার তৎক্ষণাৎ ভালতালাকি-র বৈধতাকে প্রত্যাখ্যান করে এবং তাকে খারিজ করার নির্দেশিকা জারি করে। এই ঘোষণা কার্যকরী না হলে প্রয়োজনে ফিনল্যান্ড দখল করার হুমকিও রাশিয়া সরকারের পক্ষ থেকে দিয়ে রাখা হয়।

ফিনল্যান্ডের সমাজতন্ত্রীদের তখন আর পিছিয়ে আসার কোন জায়গা নেই। তারা ভালতালাকি-র দাবি ছাড়তেও নারাজ। এই সুযোগকে কাজে লাগাতে ফিনল্যান্ডের উদারপন্থী এবং রক্ষণশীল উভয় অংশই তৎপর হয়। এস পি ডি-কে জন-বিচ্ছিন্ন করার প্রত্যাশায় এবং সংসদে তাদের সংখ্যাধিক্য–অবস্থান খর্বের লক্ষ্যে তারা কেরেনেস্কির সিদ্ধান্তে অসূয়ক সমর্থন জানায়, এবং কেরেনস্কী কর্তৃক গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত ফিনিশ সংসদ  ভেঙ্গে দিয়ে পুনরায় নির্বাচনের পক্ষে মত দেয়। নতুন নির্বাচনে অ-সমাজতন্ত্রীরা অল্প কিছু আসনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে

ফিনল্যান্ডের সংসদ ভেঙ্গে দেওয়ার ঘটনা এক নির্ণায়ক সন্ধিক্ষণ হয়ে দাঁড়ায়। সেই মুহূর্ত পর্যন্ত,  শ্রমজীবী মানুষের কাছে এবং তাদের সাংসদদের কাছে এই প্রত্যাশা প্রবল ছিল যে সংসদকে ব্যবহার করেও সামাজিক অগ্রগতির পথ নিশ্চিত করা সম্ভব। এই প্রসঙ্গে কুসিনেন লেখেন, “আমাদের বুর্জোয়া শ্রেণীর কোনো সেনা দল ছিল না। এমনকি তাদের কোনো পুলিশ বাহিনীও নেই যাদের উপর তারা ভরসা করতে পারে। … অতএব সেখানে মনে হওয়ার যথেষ্ট কারণ ছিল যে সংসদের বৈধতার বাঁধা পথেও সোশ্যাল ডেমোক্রেসী একটার পরও একটা  জয় ছিনিয়ে আনতে পারবে।”

কিন্তু উত্তরোত্তর বেশী সংখ্যায় পার্টি নেতৃত্ব এবং শ্রমিকদের কাছেএটা ক্রমশঃ স্পষ্ট হচ্ছিল যে সংসদের উপযোগিতা শেষ হয়ে গিয়েছিল।

সমাজতন্ত্রীরা গণতন্ত্র বিরোধী ষড়যন্ত্রমূলক অভ্যুত্থানের তীব্র নিন্দা করে এবং ফিনল্যান্ডের জাতীয় অধিকার এবং তার গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলির বিরুদ্ধে রুশ রাষ্ট্রের সঙ্গে গোপন আঁতাত করার জন্য বুর্জোয়াদের আচ্ছারকম কষাঘাত করেন। এস ডি পি-র মতের, নতুন  সংসদ নির্বাচন অবৈধ এবং এক বৃহত্তর নির্বাচনী প্রতারণায় তাদেরকেপরাজিত করা হয়েছে। আগস্টের মাঝামাঝি পার্টি তার সকল সদস্যকে সরকার থেকে পদত্যাগ করার নির্দেশ দেয়। কম তা ৎ পর্যপূর্ণ নয়, যে এই সময় থেকে ফিনল্যান্ডের সমাজতন্ত্রীরা ক্রমান্বয়ে বলশেভিক পার্টির সঙ্গে নিবিড় সংযোগনিষ্ঠ হতে থাকে, কারণ বলশেভিকরা ছিল রাশিয়ার একমাত্র পার্টি যারা ফিনল্যান্ডবাসীর স্বাধীনতার লড়াইকেসমর্থন করছিল। সব পক্ষই এইভাব লড়াইয়ের ঘোষণা করেছিল, এবং এযাবৎ শান্তিপূর্ণ ফিনল্যান্ড বিপ্লবী বিষ্ফোরণের দিকে  সরবে এগিয়ে যায়।

 

ক্ষমতার জন্য লড়াইঃ                                    

         অক্টোবরে রুশ সাম্রাজ্য জুড়ে এক সর্বব্যপী সংকট ঘনীভূত হয়। ফিনল্যান্ডের শ্রমিক শ্রেণী গ্রাম ও শহর জুড়ে ক্রুদ্ধভাবে তাদের নেতৃত্বকে ক্ষমতা দখলের দাবী জানায়। হিংসাশ্রয়ী সংঘর্ষ গোটা ফিনল্যান্ড জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। এই সময়ে অবশ্য এস ডি পি নেতৃত্বের একটা বড় অংশ এই ধারণাও পোষণ করতো যে বিপ্লবের পরিপূর্ণ পরিসর তখনও ফিনল্যান্ডে তৈরি হয়নি কারণ শ্রমিক শ্রেণী তখনও তেমনভাবে সংগঠিত নয় এবং তাদের হাতে যথেষ্ট পরিমান অস্ত্র নেই। আর এক অংশ আবার সংসদীয় অবস্থা পরিত্যাগে কিছুটা ভয় পায়। এই প্রসঙ্গে অক্টোবরের শেষ দিকে সমাজতান্ত্রিক নেতা কুলেরভো মান্যের লেখেনঃ “আমরা বেশীদিনের জন্য বিপ্লবকে এড়িয়ে চলতে পারি না। … শান্তিপূর্ণ কর্মকাণ্ডের মূল্য আজ বিশ্বাস হারিয়েছে। এবং শ্রমিক শ্রেণী আজ তার নিজের ক্ষমতার ওপরই কেবল আস্থা রাখতে শুরু করেছে। … আমরা যদি বিপ্লবের গতিময় দিকটিকে ভুল বুঝি, আমি উল্লসিত হবো।”  

        অক্টোবরের শেষ দিকে বলশেভিকরা ক্ষমতা দখল করায় এটা মনে হল যে এর পরেই বুঝি ফিনল্যান্ডের পালা। কিন্তু তেমনটা ঘটলো না। রাশিয়ার অস্থায়ী সরকারের কাছ থেকে সামরিক সাহায্য থেকে বঞ্চিত হয়ে ফিনল্যান্ডের উচ্চবর্গীয়রা বিপজ্জনকভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।একাধিক দশ হাজারের মাপের রুশ সেনা ফিনল্যান্ডে মজুত ছিল, এবং তারা সাধারণভাবে বলশেভিকদের এবং তাঁদের শান্তির ডাককে সমর্থন করত। একজন ফিনিশ উদারপন্থী মন্তব্য করেন “বলশেভিকবাদের বিজয় তরঙ্গ আমাদের সমাজতন্ত্রীদের বল যোগাবে, এবং তারা অবশ্যইসেটা কাজে লাগাবে”

        এস ডি পি-র সাধারণ কর্মীরা, এবং  পেত্রোগ্রাদেবলশেভিকরা ফিনল্যান্ডের সমাজতন্ত্রী নেতাদের অতিসত্ত্বর ক্ষমতা দখলের অনুরোধ করেন। কিন্তু পার্টি নেতৃত্ব কৌশলে বিষয়টিকে এড়িয়ে যায় এটা প্রায় সকলের কাছেই অস্পষ্ট ছিল, যে বলশেভিক সরকার কয়েকদিনের বেশী টিকবে কি না। নরমপন্থী সমাজতন্ত্রীরা যে বদ্ধমূল প্রত্যাশা আকড়ে থাকেন, তা হল শান্তিপূর্ণ সংসদীয় পথেই বর্তমান সমস্যার সমাধানে পৌঁছানো সম্ভব হবে। কিছু র‍্যাডিকাল অবশ্য বলেন যে ক্ষমতা দখল যুগপৎ শুধু সম্ভবই নয়, এটা সেই সময়ের প্রধান চাহিদাও বটে। এই দুই প্রকার সম্ভাবনার মধ্যে কোনটি গ্রহণ করতে হবে সে বিষয়ে বেশিরভাগ নেতাই দ্বিধাগ্রস্ত হয়ে পড়েন।  

         এই সংকটময় পরিস্থিতিতে পার্টির সিদ্ধান্তহীনতাকে স্মরণ করে কুসিনেন লেখেন, “আমরা সোশ্যাল-ডেমোক্র্যাটরা ‘শ্রেণী সংগ্রামের ভিত্তিতে একত্রিত’ হয়েছিলাম, কিন্তু তারপর প্রথমে একদিকে এবং পরে অন্য আর একদিকে আমরা ঝুঁকলাম। এইভাবে আন্দোলিত হতে থাকায় বিপ্লব প্রসঙ্গে আমরা কোনো জোরালো শিক্ষা পেলাম না, কেবল নিজেদের দুর্বলতাগুলিকেই বজায় রেখে চললাম।”         

        সশস্ত্র অভ্যুত্থানের পক্ষে কোনো ঐকত্যে না আসতে পারায়, পার্টি কেবলমাত্র ১৪ই নভেম্বর একটা সাধারণ ধর্মঘটের ডাক দেয়-- বুর্জোয়া শ্রেণীর বিরুদ্ধে গণতন্ত্র রক্ষার স্বার্থে, শ্রমিকদের আশু অর্থনৈতিক চাহিদাপূরণে, এবং ফিনল্যান্ডের  সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার লড়াই হিসাবেসমাজের একেবারে নীচের তলা থেকে সমর্থন ছিল অভাবনীয়। বস্তুত, তা অপেক্ষাকৃত সাবধানী ধর্মঘটের সচেতন আবেদনের তুলনায় অনেক বেশী এগিয়ে যায়

        ফিনল্যান্ড একদম থমকে দাঁড়ালবিভিন্ন শহরে এস ডি পি-র আঞ্চলিক সংগঠনগুলি এবং লাল রক্ষীবাহিনী ক্ষমতা দখল করে, রণনীতিগতভাবে জরুরী বাড়িগুলি দখল করে এবং বুর্জোয়া রাজনীতিবিদদের গ্রেপ্তার করে।

        মনে হল, অভ্যুত্থানের এই ধাঁচ হেলসিঙ্কিতে দ্রুত পুনরাবৃত্তি হবে১৬ই নভেম্বর রাজধানীর সাধারণ ধর্মঘট কাউন্সিল ক্ষমতা দখলের পক্ষে ভোট দেয়। কিন্তু নরমপন্থী ইউনিয়ন এবং সমাজতন্ত্রী নেতৃত্বের একটা অংশ এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে পদত্যাগ করলে কাউন্সিল সেইদিনই তার সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসতে বাধ্য হয়। কাউন্সিল স্থির করে, “যেহেতু কাউন্সিলে কিছু ছোটখাটো মতানৈক্য আছে তাই এখনই শ্রমিক শ্রেণীর হাতে ক্ষমতা নিতে অপারগ, কিন্তু বুর্জোয়া শ্রেণীর ওপর চাপ বাড়াতে প্রয়োজনীয় কর্মসূচী ধারাবাহিকভাবে চালিয়ে যেতে হবে।” এর অল্পকাল পরই ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

        ফিনল্যান্ডের ইতিহাসবিদ হান্নু সৈক্কানেন খুব জোরের সঙ্গে দাবী করেন যে নভেম্বরের ধর্মঘট একটা বড় সুযোগ হাতছাড়া করে। তাঁর কথায়ঃ

        “শ্রমিক সংগঠনগুলির কাছে ক্ষমতা দখলের যে এটা সবচেয়ে ভালো সময় সে বিষয়ে সন্দেহের অবকাশ কমই ছিল। নিচের স্তর থেকে চাপ ছিল সবচেয়ে বেশী এবং এর জন্য তারা লড়াই করতেও প্রস্তুত ছিল। …সাধারণ ধর্মঘট বুর্জোয়া শ্রেণীকে, মুষ্টিমেয় ব্যতিক্রম ছাড়া, বুঝিয়েছিল যে সমাজতন্ত্রীরা গভীর বিপদ হিসেবে দেখা দিয়েছে। তারা প্রকাশ্য গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়া পর্যন্ত সময়টা ব্যবহার করল দৃঢ়চেতা নেতৃত্বের পরিচালনায় নিজেদের সংগঠিত করতে।”

        গণঅভ্যুত্থানের অভিমুখে তাকাতে এস ডি পি-র ইতস্তত ভাব দেখে আন্টনী আপটন লিখছেন, “ফিনল্যান্ড বিপ্লবীগণ ইতিহাসের সবচেয়ে দুর্দশাগ্রস্ত বিপ্লবী”। এই ধরনের বক্তব্য মানা যেত, যদি আমাদের গল্পটা  নভেম্বরে শেষ হয়ে যেত। কিন্তু পরবর্তী ঘটনাবলী দেখাল, ফিনল্যান্ডের সোশ্যাল ডেমোক্রেসীর বিপ্লবী হৃদয় শেষ অবধি অন্তর্দ্বন্দ্বে জয়ী হয়েছিল।   

        সাধারণ ধর্মঘটের পর হতাশ শ্রমিকরাঅস্ত্রের খোঁজ করেন এবং প্রত্যক্ষ সংগ্রামের দিকে তাকান। সরাসরি প্রত্যাঘাত দাবী করে এবং সংগঠিত হতে থাকে। বুর্জোয়া শ্রেণীও অবশ্য তখন বসে নেই। গৃহযুদ্ধের প্রস্তুতি তখন তারাও নিতে শুরু করেছে। আপন স্বার্থরক্ষায় গড়ে তুলেছে “হোয়াইট গার্ড” রক্ষীবাহিনী। গোপনে যোগাযোগ চলছে জার্মান সরকারের সঙ্গে যাতে তারা সৈন্যবাহিনীর সাহায্য নিশ্চিত করে।

        সামাজিক সংসক্তিপ্রবণতার দ্রুত অবলুপ্তি সত্ত্বেও বহু সমাজতন্ত্রী নেতা নিষ্ফল সংসদীয় আলোচনা চালাতে থাকেন। কিন্তু এই দফায়  এস ডি পি-র বামপন্থী ধারা মেরুদন্ড শক্ত করেন ও ঘোষণা করেন যে বিপ্লবী পথ ধরতে আর দেরী হলে কেবল সর্বনাশই হবে।  ডিসেম্বর থেকে জানুয়ারীর শুরু পর্যন্ত পার্টির আভ্যন্তরীণ পরিমণ্ডলে লড়াই করে র‍্যাডিকালরা অবশেষে জয়যুক্ত হলেন।

        জানুয়ারিতে এস ডি পি-র বৈপ্লবিক বক্তব্য কাজে পরিণত হয়।অভ্যুত্থানের সূচনা সংকেত দিতে পার্টির নেতৃত্ব এই মাসের ২৬ তারিখের সন্ধ্যায় হেলসিঙ্কির শ্রমিক হলের গম্বুজের মাথায় একটা লাল লন্ঠন ঝুলিয়ে দেয়। পরের দিন থেকেই সোশ্যাল- ডেমোক্র্যাটরা এবং তাদের শ্রমিক সংগঠনগুলির জোট, ফিনল্যান্ডের সকল বড় শহরগুলিতে ক্ষমতা খুব সহজেই দখল করে নেয়। তার বিপরীতে ফিনল্যান্ডের উচ্চ শ্রেণীর হাতে থাকল মূলত উত্তরের গ্রামীণ এলাকা।

        ফিনল্যান্ডের বিদ্রোহীরা এক ঐতিহাসিক বিজ্ঞপ্তি জারি করে। বলা হয় বিপ্লবের প্রয়োজন তখনই অনুভূত হয়েছে যখন ফিনল্যান্ডের বুর্জোয়া শ্রেণী বিদেশি সাম্রাজ্যবাদী শক্তির সঙ্গে হাত মিলিয়ে শ্রমিক শ্রেণীর অধিকার এবং গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে একটা প্রতি-বিপ্লবী অভ্যুত্থান চালিয়েছেঃ

        “শ্রমিক শ্রেণী এবং তাঁর সংগঠনগুলির ওপর ভিত্তি করেই ফিনল্যান্ডে বৈপ্লবিক ক্ষমতার প্রসার ঘটেছে। … সর্বহারা বিপ্লব হল এক মহৎ আদর্শ এবং তা আপসহীন। … মানুষের উদ্ধত শত্রুর বিরুদ্ধে সে শক্তি বড়ই কঠিন। কিন্তু একই সঙ্গে প্রান্তিক, বঞ্চিত, শোষিত ও নিপীড়িত মানুষের সাহায্যার্থে সে সদা তৎপর।”

        সদ্য গঠিত লাল সরকার প্রথমে চেষ্টা করে খুবই সচেতন ও সাবধানী পথে তার কাজ চালাবারকিন্তু ফিনল্যান্ড দ্রুত নেমে গেল এক রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধে। ক্ষমতা দখলের এই দেরী ফিনিশ শ্রমিক শ্রেণীর অনেক ক্ষতি করে দিয়েছিল, যেহেতু জ্যানুয়ারির মধ্যে অধিকাংশ রুশ ফৌজ দেশে ফিরে গিয়েছিল। নভেম্বরের ধর্মঘট থেকে জানুয়ারির শেষ - এই তিন মাস সময় বুর্জোয়া শ্রেণী হাতে পেয়েছিল যেখানে তারা নিজেদের সশস্ত্র করে তুলতে এবং জার্মানির সাহায্য নিশ্চিত করতে কাজে লাগায়। এই গৃহযুদ্ধে লাল রক্ষীবাহিনীর সাতাশ হাজার তাজা প্রাণ সমর্পিত হয়েছিল। ১৯১৮ সালের এপ্রিলে ফিনল্যান্ডীয় সমাজতন্ত্রী শ্রমিক প্রজাতন্ত্র ধ্বংস করে দক্ষিণপন্থীরাআরও আশি হাজার শ্রমিক ও সমাজতন্ত্রীকে বন্দী শিবিরে নিক্ষেপ করেছিল।

        ফিনল্যান্ডের বিপ্লব আগে শুরু হলে এবং আরো আক্রমণাত্মক রাজনৈতিক ও সামরিক রণনীতি নিলে জয়যুক্ত হত কি না তা নিয়ে ইতিহাসবিদরা বিভক্ত। কেউ কেউ মনে করেছেন যে চূড়ান্ত নির্ণায়ক উপাদান ছিল ১৯১৮-র মার্চ ও এপ্রিলে সাম্রাজ্যবাদী জার্মান সেনাবাহিনীর প্রত্যক্ষ হস্তক্ষেপ। কুসিনেনও এমনই এক হিসেব টেনে বলেছেন

        “আমাদের বুর্জোয়া শ্রেণীর বিলাপে জার্মান সাম্রাজ্যবাদ কান দিয়েছিল। এবং ফিনল্যান্ডের সোশ্যাল-ডেমোক্র্যাদের অনুরোধেরাশিয়ার সোভিয়েত প্রজাতন্ত্র ফিনল্যান্ডকে যে স্বাধীনতা দিয়েছিল, তাকে জার্মানরা গ্রাস করতেগ্রহী হয়েছিল। ফিনল্যান্ডের বুর্জোয়া শ্রেণীর জাতীয়তাবাদী চেতনা এতে কষ্ট পায় নি। বৈদেশিক সাম্রাজ্যবাদের জোয়াল কাঁধে তুলে নিতে তাদের একটুকুও ভয় করে নি। বরং তারা এটা ভেবে নিজেদের খুশী রেখেছিল যে তাদের ‘পিতৃভূমি’ ক্রমে শ্রমিক শ্রেণীর পিতৃভূমিতে পরিণত হচ্ছে। ফলে তারা স্বেচ্ছায় তাদের দেশবাসীকে মহান জার্মান দস্যুদের হাতে উৎসর্গ করলো যা তাদের নিজেদের জন্য দাস চালকের হীনমর্যাদার অবস্থানকে নিশ্চিত করে।”

 

শিক্ষণীয় বিষয়সমূহঃ

        ফিনল্যান্ডের বিপ্লব থেকে আমরা কি পেলাম? এই ঘটনা অবশ্যই আমাদের সামনে হাজির করলো যে শ্রমিক শ্রেণীর বিপ্লব একমাত্র মধ্য রাশিয়ার ঘটনা নয়। এমনকি শান্তিপূর্ণ সংসদীয় ফিনল্যান্ডেও শ্রমিক  শ্রেণী ক্রমেই মিনে করতে থাকে যে একমাত্র একটি সমাজতন্ত্রী সরকারই পারে তার জাতীয় নিপীড়ন ও সামাজিক সংকটকে মুছে ফেলতে।

        একটি রাজনৈতিক দল হিসাবে একমাত্র বলশেভিকরাই সাম্রাজ্যের ভিতরে শ্রমিক শ্রেণীকে ক্ষমতা দখলের পথে পরিচালিত করেনি। একটু অন্যভাবে দেখলেও দেখা যায় যে ফিনল্যান্ডের এস ডি পি এই অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করে যেখানে বিপ্লবের সাবেকী রূপ আদতে কার্ল কাউটস্কির প্রস্তাবিত রণনীতির সমর্থন করে : ধৈর্যের সঙ্গে শ্রেণী সচেতন সংগঠন ও শিক্ষার মাধ্যমে সমাজতন্ত্রীরা সংসদে সংখ্যাধিক্য লাভ করে, ফলে  দক্ষিণপন্থীরা সেই প্রতিষ্ঠানটিকেই ভেঙ্গে দিতে চায়, যা আবার সমাজতন্ত্রীদের দ্বারা পরিচালিত বিপ্লবের বারুদে বিক্ষোভের ফুলকি ছড়ায়।

        একটা রক্ষণাত্মক সংসদীয় রণনীতির প্রতি পার্টির অগ্রাধিকার তাকে পুঁজিবাদী শাসন অবসানের লক্ষ্যপূরণে এবং সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি। বিপরীত দিকে কাউটস্কির রণনীতি দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যাগ করা আমলাতান্ত্রিক জার্মান সোশ্যাল-ডেমোক্র্যাসি, ১৯১৮-১৯ সালে পুঁজিবাদী শাসনকে সক্রিয়ভাবে তুলে ধরে এবং তাকেউল্টানোর চেষ্টাকে হিংসাশ্রয়ী ধ্বংসাত্মক পথে পরাস্ত করেছিল।

 

        ফিনল্যান্ড বৈপ্লবিক সামাজিক গণতন্ত্রের শুধুমাত্র সামর্থ্যগুলিকেই প্রকাশ করেনি, কিছু সম্ভবনাময় দুর্বলতাকেও তুলে ধরেছিলঃ সংসদীয় মল্লভূমি পরিত্যাগ করতে একটা দ্বিধা;গণক্ষোভের আঁচ না বুঝতে পারা ও তাকে খাটো করা; এবং পার্টির ঐক্য ধরে রাখতে নরমপন্থী সমাজতন্ত্রীদের সঙ্গে সহমতে আসার প্রবণতা

ফেব্রুয়ারি বিপ্লবের কাহিনী

জ্যাকব্যাঁ পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে ২০১৭ ধরে রুশ বিপ্লবের উপর অনেকগুলি প্রবন্ধ প্রকাশিত হবে। ইতিমধ্যেই চারটি প্রকাশিত হয়েছে। আমরা সেগুলির বাংলা অনুবাদ (প্রয়োজনে কিছু টীকা সহ, কিন্তু মূল প্রবন্ধের পরিবর্তন না ঘটিয়ে) প্রকাশ করছি। প্রবন্ধগুলির মতামত লেখকদের।-- অ্যাড মিনিস্ট্রেটার – র‍্যাডিকাল সোশ্যালিস্ট।

ফেব্রুয়ারি বিপ্লবের কাহিনী

 

১৯১৭ সালের আন্তর্জাতিক নারীদিবসে রুশ শ্রমিকদের ধর্মঘট শুরু হয়। শেষ হয় জার শাসনের অবসান ঘটিয়ে।

 

কেভিন মারফি

বাংলা অনুবাদ আত্রেয়ী দাশগুপ্ত, সম্পাদনা কুণাল চট্টোপাধ্যায়

 

 

১৯১৭ সালের আন্তর্জাতিক নারীদিবসে (পুরোনো জুলিয়ান ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ২৩শে ফেব্রুয়ারি), রাশিয়ার পেত্রোগ্রাদে পৃথিবীর ইতিহাসে ঘটে যাওয়া সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ধর্মঘট যে টেক্সটাইল শিল্পের নারী-শ্রমিকদের নেতৃত্বে হয়, তা কোনো নিছক সমাপতন ছিল না 

স্বামী ও সন্তানেরা যখন যুদ্ধ-সীমান্তে, তখন এই নারীদের ওপরেই সম্পূর্ণ দায়িত্ব ছিল পরিবারের দেখাশোনারদিনে তেরোঘন্টা খাটুনির পরে শুধু রুটি জোগাড়ের আশায় প্রবল ঠাণ্ডার মধ্যে তাঁদের ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে অপেক্ষা করতে হত। তাই, সুয়োশি হাসেগাওয়ার ফেব্রুয়ারী বিপ্লব সম্পর্কিত সবচেয়ে মৌলিক গবেষণাগ্রন্থ আমাদের জানায়, এই নারীদের প্রতিরোধে উদ্দীপ্ত করতে কোনো বিশেষ প্রচারের প্রয়োজন হয়নি।[i] 

একদম ওপরতলার বিত্তবান শ্রেণি এবং সমাজের বাকি মানুষের মধ্যেকার অর্থনৈতিক বিভেদ দূর করতে বা কোনোরকম অর্থবহ সংস্কার জারি করতে জারতন্ত্রী প্রশাসন চূড়ান্ত ব্যর্থ হয়। এবং এই ব্যর্থতার মধ্যে দিয়েই রাশিয়ার গভীর সঙ্কটের শুরু হয় দুমা, অর্থাৎ রাশিয়ার নির্বাচিত সংসদ তখন আদতে ক্ষমতাহীন, কিন্তু আইনত বিত্তবানদের প্রভাবে। রাশিয়ার তৎকালীন শাসক স্বৈরতন্ত্রী জার দ্বিতীয় নিকোলাসের নির্দেশে দুমা বারবার খারিজ হয়ে যাচ্ছে 

যুদ্ধের প্রাক্কালে শ্রমিকদের ধর্মঘটের কার্যবিধি ১৯০৫এর বিপ্লবকেও টেক্কা দিতে পারত। শ্রমিকেরা রাজধানীর রাস্তায় রাস্তায় ব্যারিকেড গঠন করেন। যুদ্ধের জন্য জার-সাম্রাজ্য সাময়িক উপশম পেলেও, উপর্যুপরি সামরিক ব্যর্থতা এবং প্রায় সাতকোটি মানুষের মৃত্যুর জন্য সমাজের প্রতিটি স্তর থেকে দুর্নীতির অভূতপূর্ব অভিযোগ উঠে আসে। পচন এত গভীরে চলে গেছিল যে সরাসরি কিছু না করেও ভবিষ্যৎ প্রধানমন্ত্রী প্রিন্স লভভের নেতৃত্বে এক চক্রান্ত করা হয় জারকে দেশ থেকে বিতাড়িত ও জারিনাকে এক মঠে নির্বাসিত করার, যদিও তাঁরা বাস্তবে কাজ করেন নি। এই সময়ে, ১৯১৬ সালের ডিসেম্বর মাসে কুখ্যাত ঠগ সন্ন্যাসী রাসপুটিন,  যিনি জারের সভাতে বিরাট প্রভাব অর্জন করেছিলেন, তিনি খুন হলেন, নৈরাষ্ট্রবাদীদের হাতে না, রাজতন্ত্রীদের হাতে ।

বামদিকে তখন বলশেভিকরা ছিলেন প্রশস্ততর এক বিপ্লবী মহলের মধ্যে  সবচেয়ে প্রভাবশালী, যারা মিলে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন পৃথিবীর সর্ববৃহৎ ধর্মঘটের (নরমপন্থী সমাজতন্ত্রীদের মধ্যে যুদ্ধের সমর্থকরা সাধারণত ধর্মঘট করা থেকে বিরত থাকত)।

এই বিপ্লবী বামপন্থীরা বছরের পর বছর  জারতন্ত্রের বিরুদ্ধে  লড়াই করে চলেছেন  ১৯১২ সালের লেনা স্বর্ণখনিতে ২৭০ জন শ্রমিকের গণহত্যার অর্ধ-দশকের মধ্যে তিরিশটি ধর্মঘট পালিত হয়, এবং জারের গুপ্ত-পুলিশের (ওখরানা) হাতে অসংখ্যবার ধরা পড়েও এঁরা লড়াই জারি রাখেন। ১৯১৫ ও ১৯১৬র বন্দী-নামায় বিপ্লবীদের সংখ্যা বিভাজন দেখিয়ে দেয় পেত্রোগ্রাদে বামেদের আপেক্ষিক শক্তি কতটা ছিল:  বলশেভিক - ৭৪৩, নির্দলীয় - ৫৫৩, সমাজতন্ত্রী বিপ্লবী (Socialist Revolutionaries – SR) - ৯৮,  মেনশেভিক - ৭৯,  মেজরাইওন্তসি (Mezhraiontsy) - ৫১,  নৈরাষ্ট্রবাদী - ৩৯। ভাইবর্গ জেলার ধাতু, প্রযুক্তি, ও টেক্সটাইল শিল্পে প্রায় ৬০০র কাছাকাছি বলশেভিক সদস্য নিযুক্ত ছিলেন। ফলে এই জেলা গোটা যুদ্ধ পর্ব জুড়ে সবচেয়ে জঙ্গি ছিল।

১৯১৭ সালের ৯ই জানুয়ারি, রক্তাক্ত রবিবার গণহত্যা থেকে স্ফুরিত ১৯০৫'র বিপ্লবের দ্বাদশ বার্ষিকীতে,  ১৪২,০০০ জন শ্রমিক ধর্মঘট শুরু করেন। ১৪ই ফেব্রুয়ারি, দুমা খুললে, যুদ্ধ-সমর্থক মেনশেভিকদের নেতৃত্বে, আরও ৮৪,০০০ শ্রমিক বেরিয়ে আসেন।

ক্রমবর্ধমান খাদ্য-সংকটের দরুন সরকার গ্রামের দিকে শস্য-ফরমান জারি করে। পেত্রোগ্রাদে রুটি তৈরির কারখানাগুলো বন্ধ হয়ে যায়, সরবরাহ কমে মাত্র কয়েক সপ্তাহের তলানিতে এসে ঠেকে। তার পরেও জারতন্ত্রী কর্তৃপক্ষ দাবী করে যে কোনও রকম খাদ্য-সংকট নেই। এই সময়ে ওখরানা নিয়মিতভাবে পেত্রোগ্রাদে রুটির জন্য লাইনে দাঁড়ানো মহিলাদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের খবর জমা দিত উপরমহলের কাছে। "যে মা চোখের সামনে নিজের উপোসী, রুগ্ন শিশুদের দেখছেন তিনি শ্রীযুক্ত মিলিউকভ, রোদিচেভ এবং তাদের সাগরেদদের চেয়ে বিপ্লবের অনেক কাছাকাছি অবস্থিত এবং তিনি অবশ্যই অনেক বেশি বিপজ্জনক।

২২শে ফেব্রুয়ারি বলশেভিক নেতা কায়ুরভ ভাইবর্গের মেয়েদের একটি সভায় বক্তব্য রাখেন, যেখানে তিনি মেয়েদের আসন্ন আন্তর্জাতিক নারী দিবসে ধর্মঘট না করতে আহ্বান করেন, এবং পার্টির নির্দেশাবলীমেনে চলতে বলেন। কায়ুরভের গভীর ক্ষোভ সত্ত্বেও --পরবর্তীকালে তিনি লিখেছিলেন যে বলশেভিক মেয়েরা পার্টির নির্দেশ অগ্রাহ্য করাতে তিনি  অত্যন্ত রুষ্ট হয়েছিলেন পরদিন, ২৩শে ফেব্রুয়ারী সকালে পাঁচটি টেক্সটাইল মিলে ধর্মঘট শুরু হয়।

নেভা থ্রেড মিলের মহিলারা উস্কানী দিয়ে গর্জন করেনঃ রাস্তায় নামো, থামো! অনেক হয়েছে, আর না!”,  এবং তাঁরা বন্ধ দরজা ধাক্কা দিয়ে খুলে শয়ে শয়ে মেয়েদের বার করে নিয়ে যান আশেপাশের ধাতু এবং ইঞ্জিনিয়ারিং কারখানাগুলিতে। কাতারে কাতারে মহিলারা নোবেল ইঞ্জিনিয়ারিং কারখানার গায়ে তুষারপিণ্ড ছুঁড়ে শ্রমিকদের আহবান জানান যোগদানের জন্য। হাত নেড়ে, চিৎকার করে তাঁরা ডাকেন, "বেরিয়ে এস! কাজ বন্ধ!" মিছিল এরিকসন ওয়ার্কস অবধি পৌঁছে যায়। এখানে কায়ুরভ এবং অন্যান্য বলশেভিকরা কারখানার সমাজতন্ত্রী বিপ্লবী (স-বি) এবং মেনশেভিকদের সঙ্গে সংক্ষেপে মিলিত হয়ে সর্বসম্মতিক্রমে অন্যান্য শ্রমিকদের যোগদানের আহবান জানানোর সিদ্ধান্ত নেন।

পুলিশ রিপোর্ট অনুযায়ী অসংখ্য মহিলা ও অল্পবয়সী শ্রমিকদের মুখে তখন রুটির দাবী ও বিপ্লবের গান। পুরুষদের হাত থেকে লাল পতাকা কেড়ে নিয়ে মহিলাদের মিছিল এগিয়ে যায় - আজ আমাদের ছুটির দিন, আজ পতাকা আমরা বইবশহরের কেন্দ্রে যাবার পথে লিটেয়িনি ব্রিজের কাছে, মিছিলকারীদের বারংবার এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা স্বত্তেও পুলিশ মিছিল অবরোধ করে, যাতে তাঁরা শহরের কেন্দ্রে যেতে না পারেন।

শেষ বিকেলে শত শত শ্রমিক বরফের মধ্যে এগিয়ে যায় ও পুলিশ দ্বারা আক্রান্ত হয়। শহরের মাঝখানে নেভস্কি প্রস্পেক্টে "একহাজার মানুষ, মূলত নারী ও তরুণএসে পৌঁছলে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেওয়া হয়।  ওখরানার খবর অনুযায়ী জনতা এতই বিক্ষুব্ধ ছিল যে "সর্বত্র পুলিশ নিয়োগ করা জরুরী হয়ে পড়েছিল।

ধর্মঘটে মোট ৭৮,০০০ জনের  মধ্যে ষাট হাজার ছিলেন ভাইবর্গ জেলা থেকে। মিছিলে যুদ্ধবিরোধী এবং জার বিরোধী স্লোগান উঠলেও, মূল চাহিদা ছিল, রুটি। বস্তুত, জারের  প্রশাসনের মনে হয়েছিল এটা আরও একটা রুটির জন্য দাঙ্গা; যদিও তাদের বিশ্বস্ত কসাক সৈন্যদের আন্দোলনকারীদের উপর হামলা করতে দ্বিধা তাদের শঙ্কিত করে তোলে। সেই রাতে ভাইবর্গ বলশেভিকরা মিলিত হয়ে ভোটের মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেন তিনদিনব্যাপী সাধারণ ধর্মঘটের এবং নেভস্কি অবধি মিছিলের।

পরেরদিন যোগদানকারীর সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে ১৫৮,০০০ জনের এই ধর্মঘট যুদ্ধের সর্ববৃহৎ রাজনৈতিক ধর্মঘটের আকার নেয়। ৭৫,০০০ জন ভাইবর্গ শ্রমিকের পাশে, ধর্মঘটে যোগ দেন পেত্রোগ্রাদ, ভাসিলেভস্কি, ও মস্কো জেলা থেকে ২০ হাজার করে শ্রমিক। এছাড়া, ৯ হাজার জন আসেন নার্ভা থেকে। শ্রমিক শ্রেণির পোড় খাওয়া যুবকেরা এগিয়ে যান ব্রিজের কাছে পুলিশ ও সৈন্যদের মোকাবিলা করতে এবং শহরের কেন্দ্রস্থিত নেভস্কি দখল করতে।

আভিয়াজ কারখানায় মেনশেভিক এবং স-বির বক্তারা তখন সরকার অপসারণের ডাক দিচ্ছেন, শ্রমিকদের অনুরোধ করছেন দায়িত্বহীন কিছু থেকে বিরত থাকতে এবং আহবান করছেন তৌরিদে প্রাসাদে মিছিল করে যেতে, যেখানে দুমার সদস্যরা তখন আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছেন জারতন্ত্রকে কিছু রেয়াৎ করাতে।  এরিকসন কারখানার বলশেভিকরা শ্রমিকদের অনুরোধ করেন কাজান চত্বরের দিকে মিছিল করে এগিয়ে যাবার। পুলিশের সাথে আসন্ন লড়াইয়ের জন্য সঙ্গে নিয়ে যেতে বলছেন ছুরি, যন্ত্রাদি, বরফ ইত্যাদি। ৪০,০০০ বিক্ষোভকারীর এক বড় জনতা লিটেইনি ব্রিজের ওপরে পুলিশ ও সৈন্যদের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় কিন্তু আবার পিছু হঠতে বাধ্য হতে হয়। সাম্পসোনিয়েভস্কি প্রসপেক্টে কসাকদের মুখোমুখি হন প্রায় ২৫০০ এরিকসন শ্রমিক। অফিসারেরা ভিড়ের দিকে ধেয়ে রাস্তা করে দিলেও, কসাকরা খুবই সন্তর্পণে সেখান দিয়ে এগোচ্ছিল। কায়ুরভ স্মৃতিচারণ করেছেন, “কেউ কেউ হেসে তাকাল, একজন শ্রমিকদের চোখ টিপে ইশারা করলঅনেক জায়গায় মহিলারা উদ্যোগ নিলেন: আমাদের স্বামী, বাবা, ভাই যুদ্ধ-সীমান্তে... আপনাদেরও তো মা, স্ত্রী, বোন, শিশু আছে। আমরা চাই রুটি আর এই যুদ্ধের শেষ

ঘৃণিত পুলিশের সাথে বিক্ষোভকারীরা সখ্যতার কোনও চেষ্টাই করেনি। তরুণেরা রাস্তায় গাড়ি থামিয়ে, বিপ্লবী গান গেয়ে, পুলিশের দিকে বরফ, বোল্ট ছুঁড়ছিল। কয়েক হাজার শ্রমিক বরফ পার হয়ে পৌঁছলে, নেভস্কি দখলের জন্য পুলিশের সাথে ভয়ঙ্কর যুদ্ধ শুরু হয়। এরমধ্যেই শ্রমিকেরা মিছিল করতে সক্ষম হন কাজানের প্রথাগত বিপ্লবী ক্ষেত্রগুলিতে ও ঝনামেনস্কায়া চত্বরের বিখ্যাত তৃতীয় অ্যালেক্সান্দারের জলহস্তীমূর্তির কাছে । ক্রমশ দাবীগুলো আরও রাজনৈতিক হয়ে ওঠে যখন বক্তারা শুধু রুটির দাবীই না, যুদ্ধ ও স্বৈরতন্ত্রর বিরুদ্ধে আওয়াজ তোলেন।[ii]

২৫ তারিখ, এই ধর্মঘট, সাধারণ ধর্মঘটে পরিণত হয় যখন ২,৪০,০০০ কারখানার শ্রমিকদের পাশাপাশি, অফিসে চাকুরিজীবি,  শিক্ষক-শিক্ষিকা, রেস্তোঁরা-কর্মী, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী, এমনকি উচ্চ-বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরাও যোগ দেন। ট্যাক্সিচালকরা শপথ নেন কেবলমাত্র এই প্রতিরোধের নেতাদেরতাঁরা যাতায়াত করাবেন। শ্রমিকেরা আবার তাদের কারখানায় আন্দোলন শুরু করেন। ভাইবর্গের পারভিয়ান কারখানার এক উত্তেজনাময় মিটিং চলাকালীন বলশেভিক, মেনশেভিক এবং স-বি বক্তারা শ্রমিকদের নেভস্কি অবধি মিছিল করে এগিয়ে যেতে অনুরোধ করেন। এক বক্তা শেষ করেন বৈপ্লবিক কবিতা দিয়ে –“পথ ছেড়ে দাও এই আপাদমস্তক পচে যাওয়া পুরাতন বিশ্ব, নবীন রুশ আজ আসছে এগিয়ে

পুলিশের সাথে বিক্ষোভকারীদের সতেরোটি তীব্র সংঘর্ষ হয়, এবং শ্রমিক ও সৈন্যরা পুলিশের আওতা থেকে কমরেডদের বার করে আনতে সফল হন। বিদ্রোহীরা পুলিশের উপর টেক্কা দেওয়ার মত অবস্থায় এলেন, এবং বেশ কিছু ব্রিজে জারতন্ত্রী বাহিনীকে সফলভাবে মোকাবিলা করে অথবা বরফের উপর দিয়ে কেন্দ্রের দিকে এগিয়ে যান। নেভস্কি দখল করে বিক্ষোভকারীরা আবার ঝনামেনস্কায়াতে মিছিল বার করেন। পুলিশ আর কসাকেরা জনতাকে বেত দিয়ে মারতে থাকে, কিন্তু যখন পুলিশের প্রধান জনতার দিকে ধেয়ে যায়, তখন তাকে কেটে ফেলে এক কসাকের ছুরি। এই সময় মহিলা শ্রমিকেরা আরও একবার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেন, “বেয়নেট নামিয়ে রাখুন, আমাদের সঙ্গে আসুনবলে তারা ডাক দেন।

সন্ধ্যের মধ্যে ভাইবর্গের দিকটা বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। বিক্ষোভকারীরা পুলিশ স্টেশন লুঠ করে, সেপাইদের থেকে বন্দুক, ছুরি বাজেয়াপ্ত করে এবং পুলিশ ও বিশেষ পুলিশ (জান্দার্ম)দের বাধ্য করে পালিয়ে যেতে।

বিদ্রোহ অবশেষে জার নিকোলাসকে কোণঠাসা করে তোলে। তিনি ঘোষণা করেন, "আমি আদেশ করছি, রাজধানীতে এই অরাজকতা আগামীকাল বন্ধ হোক!পেত্রোগ্রাদ সেনানিবেশের কম্যান্ডার খাবালোভকে নির্দেশ দেওয়া হয় গুলির সাহায্যে জনতাকে ছত্রভঙ্গ করার। খাবালোভ এই নির্দেশ সম্পর্কে সন্দিহান (এক দিনের মধ্যেই কীভাবে এদের থামানো সম্ভব?) থাকলেও আদেশ মেনে নেন। অভ্যন্তরীণ মন্ত্রী, প্রোটোপোপভ পৌর ভবনে স্বৈরাচারের সমর্থকদের বিক্ষোভ দমন করার আহ্বান জানান: "জয়ের জন্য প্রার্থনা ও আশা করুন" বলেন তিনি। পরদিন ভোরবেলা বিক্ষোভ নিষিদ্ধ করে ঘোষণাপত্র প্রচার করা হয় এবং জানানো হয়, নির্দেশটি দরকারে অস্ত্র দিয়ে লাগু করা হবে।

রবিবার, ২৬ তারিখ সকালে পুলিশ গ্রেপ্তার করে বলশেভিক পিটার্সবার্গ কমিটির মুখ্য সদস্যদের এবং অন্যান্য সমাজতন্ত্রীদের। বন্ধ করে দেওয়া হয় কারখানা, ব্রিজগুলি তুলে নেওয়া হয়[iii] এবং শহরের কেন্দ্রকে সশস্ত্র ছাউনীতে পরিণত করা হয়। খাবালোভ সদর দপ্তরে টেলিগ্রাফ পাঠান, “শহর আজ সকাল থেকে শান্ত। এই রিপোর্টের একটু পরেই হাজার হাজার শ্রমিক বরফ পার করে বিপ্লবী গান গাইতে গাইতে ও স্লোগান দিতে দিতে   নেভস্কি এসে পৌঁছন, কিন্তু সৈন্যরা ক্রমাগত তাদের ওপর গুলিবর্ষণ করতে থাকে।

ভলিনস্কি রেজিমেন্টের কয়েকটি দলের কাজ ছিল ঝনামেনস্কায়া চত্বরে মিছিল আটকানো। অশ্বারোহী বাহিনী চাবুক মেরেও জনতাকে হঠাতে পারেনা। কম্যান্ডার তখন সেনাবাহিনীকে গুলি চালানোর নির্দেশ দেন। কিছু সৈন্য শূন্যে গুলি চালালেও, ঝনামেনস্কায়ার কাছে ৫০জন বিক্ষোভকারী গুলিতে মারা যান, কিছু শ্রমিক লোকের বাড়িতে কিম্বা ক্যাফেতে আশ্রয় নেন। এই নিধনযজ্ঞের বেশিটাই করেছিল উচ্চস্তরের প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত জারের অনুগত ফৌজ, যাদের ব্যবহার করা হত নন-কমিশনড অফিসারদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার। 

কিন্তু এই রক্তপাত বিদ্রোহ থামাতে পারলনা।

বিপ্লবীদের এই অসম্ভব আপোষহীন ও স্বার্থহীন মনোভাবের কথা পুলিশ রিপোর্টে পাওয়া যায়:

বিশৃঙ্খলার মধ্যেও সাধারণ পর্যবেক্ষণ ছিল যে, বিক্ষোভকারী জনতা, সামরিক বাহিনীর সামনে তীব্র প্রতিরোধ দেন। এদের যখন সরে যেতে বলা হয়, এরা রাস্তা থেকে পাথর আর বরফ কুড়িয়ে ছুঁড়তে থাকে। প্রথমদিকে যখন শূন্যে গুলি চালানো হয়, জনতা নিজের জায়গা থেকে সরে তো যায়ইনা, বরং প্রবল হেসে উত্তর পাঠায়। একমাত্র যখন ভিড়ের দিকে সরাসরি গুলিবর্ষণ হয়, তখন এরা আশেপাশের বাড়ির বাগানে লুকোনোর চেষ্টা করেন আর গুলি থামতেই আবার রাস্তায় বেরিয়ে আসেন।

শ্রমিকরা সৈন্যদের অনুরোধ করেন অস্ত্র নামিয়ে রাখতে, এমনকি তাদের বিবেকের প্রতি আবেদন করে কথা চালানোর চেষ্টা করেন। যেমন ট্রটস্কী বলেছিলেন, “রাইফেল আর মেশিন-গানের আওয়াজে বিদীর্ণ আকাশের তলায় নারী ও পুরুষ শ্রমিক এবং সৈন্যদের মধ্যেকার এই যোগাযোগ, স্থির হয়ে যাচ্ছিল শাসকের, যুদ্ধের এবং সমগ্র দেশের ভবিষ্যৎ। 

২৬শে সন্ধ্যাবেলা শহরের ঠিক বাইরে এক সব্জি-বাগানে ভাইবর্গের বলশেভিকরা মিলিত হন। অনেকে প্রস্তাব দেন, বিদ্রোহ এইবার থামানো হোক, কিন্তু এরা ভোটে হেরে যান। লড়াই জারি রাখার পক্ষে সবচেয়ে জোরালো সওয়াল যিনি করেন, পরে জানা গেছিল সে আসলে ওখরানার চর। সামরিক পরিপ্রেক্ষিতে ২৬ তারিখের পর বিপ্লবের চাকা বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথাই ছিল । কিন্তু বিদ্রোহ দমন করতে পুলিশের কয়েক হাজার সৈন্যের সমর্থন দরকার ছিল।

আগের দিন দুপুরে শ্রমিকরা পাভলোভস্কি ব্যারাকের সাথে যোগাযোগ করেন: আপনাদের কমরেডদের বলুন যে পাভলোভস্কিও আমাদের দিকে গুলি চালাচ্ছে। আপনাদের পোশাক পরা সৈন্যদের আমরা নেভস্কিতে দেখেছি। সৈন্যদের আতঙ্কিত ও ফ্যাকাশে দেখাচ্ছিল। অন্যান্য রেজিমেন্টের ব্যারাকেও প্রায় একই আবেদন প্রতিধ্বনিত হয়েছিল। সেদিন সন্ধ্যাবেলা, পাভলোভস্কির সৈন্যরা প্রথম বিদ্রোহে যোগদান করে, (যদিও পরে তাঁরা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন বুঝতে পেরে তারা ব্যারাকে ফিরে আসেন এবং অবিলম্বে উনচল্লিশ জন নেতা গ্রেপ্তার হন)।

২৭ তারিখ দিনের শুরুতে ভোলিনস্কি রেজিমেন্টে বিদ্রোহ পৌঁছে যায়। এখানেরই প্রশিক্ষণ দল ঝনামেনস্কায়া চত্বরে বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালিয়ে ছিল। চারশো জন বিদ্রোহ ঘোষণা করে তাদের লেফট্যানান্টকে জানায়, “আমরা আর গুলি চালাবো না আর অনর্থক আমাদের ভাইয়ের রক্তপাত আর হতে দেবনা।লেফট্যানান্ট যখন বিদ্রোহ দমন করতে জারের আদেশ পড়ে শোনাতে যায়, তাকে সোজাসুজি গুলি করে হত্যা করা হয়। ভোলিনস্কির অন্যান্য সৈন্যরাও এরপর বিপ্লবে যোগ দেয় এবং পার্শ্ববর্তী প্রেওব্রাজেন্সকি ও লিথুয়ানিয় রেজিমেন্টের ব্যারাকে চলে যায়, এবং তারাও বিদ্রোহ ঘোষণা করেন।

পরবর্তীকালে এক অংশগ্রহণকারী এই দৃশ্যের বর্ণনা করেন: হাতে রাইফেল সহ সৈন্য দিয়ে ঠাসা একটা ট্রাক ভিড় চিরে সাম্পসোনিয়েভস্কি দিয়ে ছুটে চলেছে। রাইফেলের বেয়নেট থেকে লাল পতাকা উড়ছে, এ দৃশ্য কেউ কখনো দেখেনি এর আগেসৈন্যবাহিনী বিদ্রোহ ঘোষণা করেছে, ট্রাকের সাথে আসা এই খবর দাবানলের মত ছড়িয়ে গেল।

জেনেরাল কুটেপভের নেতৃত্বে শাস্তি দেওয়ার জন্য পাঠানো এক বাহিনী কয়েকঘন্টা ধরে অভিযান চালায়, অনিয়ন্ত্রিত ভাবে বিক্ষোভকারী ও ট্রাক-ভর্তি শ্রমিকদের ওপর গুলিবর্ষণ করে। কিন্তু সন্ধ্যের মধ্যে, কুটেপভ জানায়, “আমার বাহিনীর এক বড় অংশ জনতার মধ্যে মিশে গেছে।

সেদিন সকালেই জেনেরাল খাবালোভ শহরের ব্যারাকগুলিতে ঘুরে সৈন্যদের হুমকি দিয়ে বেড়িয়েছেন যে বিদ্রোহ করলেই তাদের মৃত্যুদণ্ড হবে। ঐদিন সন্ধ্যাবেলা জেনেরাল ইভানোভ, যার বাহিনী তখন জার-অনুগতদের সাথে যোগ দিতে এগিয়ে আসছে, পরিস্থিতি মূল্যায়নের জন্য খাবালোভকে টেলিগ্রাফ করেন।

ইভানোভঃ শহরের কোথায় কোথায় শান্তি বজায় আছে?

খাবালোভঃ পুরো শহরই এখন বিপ্লবীদের দখলে।

ইভানোভঃ মন্ত্রণালয়গুলো ঠিকঠাক কাজ করছে?

খাবালোভঃ বিপ্লবীরা সব মন্ত্রীদের গ্রেপ্তার করেছে।

ইভানোভঃ আপনার হাতে এই মুহূর্তে কোন পুলিশ বাহিনী রয়েছে?

খাবালোভঃ কিছুই নেই।

ইভানোভঃ প্রযুক্তি ও রসদের কোন বিভাগগুলো এখন আপনার নিয়ন্ত্রণে?

খাবালোভঃ আমার হাতে কিছুই নেই।

অবস্থার বিচার করে জেনেরাল ইভানোভ পিছু হঠার সিদ্ধান্ত নেন। বিপ্লবের সামরিক ধাপের এখানেই ইতি।

ফেব্রুয়ারি বিপ্লবের আপাতবিরোধিতা এখানেই যে তা জারের শাসনকে ঝেঁটিয়ে বিদায় করলেও, তাকে পালটে আনল এমন এক অনির্বাচিত উদারপন্থীদের সরকারকে, যারা তাঁদের ক্ষমতায় আনল যে বিপ্লব তার ভয়েই ভয়াবহ ভীত ছিলেন।   

২৭ তারিখ এক উদারপন্থী দুমা ডেপুটি (প্রতিনিধি) লিখছেনঃ দীর্ঘশ্বাস শুনতে পাচ্ছিলাম... এসে গেছে, অথবা বাস্তবিক জীবন নাশের আশঙ্কায় অকপট ভীতির অভিব্যক্তি। এরই মাঝে আনন্দদায়ক, কিন্তু আদতে বেঠিক খবর এলো যে শীঘ্রই অরাজকতা দমন করা হবেআরেক পর্যবেক্ষক লেখেন, “ওরা সন্ত্রস্ত ছিল, প্রচণ্ড ভয়ে কাঁপছিল, ওদের মনে হচ্ছিল শত্রুপক্ষের হাতে বন্দী হয়ে যেন এক অজানা রাস্তায় চলেছে ওরা

বিপ্লবের সময় পুঁজিপতিদের অবস্থান খুবই পরিষ্কার ছিল। একদিকে তারা বিপ্লব থেকে নিজেদের দূরত্ব বজায় রাখত এবং দরকারে জারের কাছে বিশ্বাসঘাতকতা করত, আর অন্যদিকে নিজেদের সুবিধার্থে তাকে ব্যবহার করতএই মূল্যায়ন করেছিলেন সুখানোভ, যিনি পেত্রোগ্রাদ সোভিয়েতের নেতা ছিলেন ও মেনশেভিকদের প্রতি সহানুভূতিশীল ছিলেন, আর উদারপন্থীদের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরে যিনি এক চরম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন ।

অধিকতর নরমপন্থী সমাজবাদীদের কাছ থেকে ইনি অনেক সাহায্য পেয়েছিলেন। তৌরিদে প্রাসাদে একটি ঘর পাবার জন্য মেনশেভিক নেতা স্কোবেলেভ যোগাযোগ করেন চতুর্থ দুমার চেয়ারম্যান রোডজিয়াঙ্কোর সাথে। স্কোবেলেভের উদ্দেশ্য ছিল শৃঙ্খলা বজায় রাখতে শ্রমিক ডেপুটিদের এক সোভিয়েত সংগঠন করার। এই সোভিয়েত বিপজ্জনক হতে পারে, রোডজিয়াঙ্কোর এ আশঙ্কাকে প্রশমিত করতে কেরেনস্কী বলেন, “কাউকে তো শ্রমিকদের নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

বিদ্রোহের পর ফেব্রুয়ারি ২৭এর এই সোভিয়েত, ১৯০৫এর শ্রেণি-সংগ্রাম থেকে উঠে আসা শ্রমিকদের সোভিয়েত থেকে আলাদা ছিল। এই সোভিয়েতের নির্বাহী কমিটির মুখ্য সদস্যরা প্রায় সবাই একচেটিয়াভাবে বুদ্ধিজীবী ছিলেন, যারা বিপ্লবে সরাসরি কোনও অংশ নেননি। এছাড়াও আরও বিচ্যুতি ছিল: শ্রমিক ও সৈন্যদের এই সোভিয়েত সঙ্ঘে পেত্রোগ্রাদের  ১৫০,০০০ সৈন্যর তরফ থেকে প্রতিনিধিত্বের আধিক্য ছিল। মহিলাদের প্রতিনিধিত্ব ছিল শোচনীয় - সিংহভাগ পুরুষ, ১২০০ (শেষ অবধি ৩০০০) সদস্যের মধ্যে মুষ্টিমেয় ছিলেন মহিলা। উনিশে মার্চের মহিলাদের ভোটাধিকারের বিক্ষোভ, যাতে হাজার হাজার শ্রমিক-শ্রেণির মহিলা সহ ২৫,০০০ জন অংশ নিয়েছিলেন, সে নিয়ে সোভিয়েত কোনও আলোচনার উত্থাপনই করেনি।

পেত্রোগ্রাদ সোভিয়েত অবশ্য বিখ্যাত আদেশ সংখ্যা -১-এর অনুমোদন করে। এই আদেশ দ্বারা সৈন্যরা নিজেদের বিভাগ চালানোর জন্য কমিটি নির্বাচন করতে পারবে, এবং আধিকারিক ও অস্থায়ী সরকারের নির্দেশ মানতে পারবে যতক্ষণ তা সোভিয়েতের নিজস্ব নির্দেশের বিরোধিতা না করছে কিন্তু এই আদেশ বিপ্লবী সৈন্যদের নিজেদের উদ্যোগেই লিপিবদ্ধ করা হয়।

এসব সত্ত্বেও সোভিয়েত গঠনের ফলে উদারবাদীরা ও তাদের স-বি সহযোগী কেরেনস্কী বাধ্য হয় নড়ে উঠতে। রোডজিয়াঙ্কো যুক্তি দেন, “এখন যদি আমরা ক্ষমতা দখল না করি তাহলে অন্য কেউ করবেকেননা কারখানাগুলোতে এর মধ্যেই কোন না কোন  বদমাশকে নির্বাচিত করে রেখেছে। কেরেনস্কী লিখেছিলেন আমরা এখনই অস্থায়ী সরকার না বানালে, সোভিয়েত নিজেকে বিপ্লবের সর্বময় কর্তা বলে ঘোষণা করবেএই পরিকল্পনা অনুযায়ী, এক স্বনির্বাচিত সমিতি, নিজেদের অস্থায়ী কমিটি নাম দিয়ে সোভিয়েতের প্রতিপক্ষ হিসেবে কাজ করবে, এই ঠিক হল। কিন্তু চক্রান্তকারীরা নিজেদের এই পরিকল্পনায় নিজেরাই খুব একটা আস্থা রাখতে পারেননি; তারা মেনশেভিক ও স-বি নেতাদের দিয়েই নিজেদের নোংরা কাজ সারতে চান।

সুখানোভ লিখেছেন, মেনশেভিকদের বিপ্লবের বীজগাণিতিক হিসেব অনুযায়ী যে সরকার জার-শাসনের জায়গায় আসবে, তাকে সম্পূর্ণভাবে বুর্জোয়া হতে হবে সমগ্র রাষ্ট্রযন্ত্র... শুধু মিলিউকোভের আদেশ মানতে পারতমার্চের এক তারিখ সোভিয়েত কার্যনির্বাহী সমিতি অনির্বাচিত উদারপন্থী নেতাদের মধ্যে আলোচনা হয়। মিলিউকভ  পরিষ্কার বুঝতে পারছিলেন যে কার্যনির্বাহী সমিতি  এমন জায়গায় আছে যেখান থেকে বুর্জোয়া সরকারকে ক্ষমতা দেবে কি দেবেনা, তা ঠিক করতে পারেকিন্তু, সুখানোভ যোগ করেন, “জার শাসনকে প্রতিস্থাপন করতে কেবলমাত্র বুর্জোয়া ক্ষমতাই পূর্বনির্দিষ্ট হয়ে আছে... আমাদের এই দিকেই যেতে হবে, নইলে অভ্যুত্থান সার্থক হবেনা, এবং বিপ্লব ভেঙ্গে পড়বে

সোভিয়েত নেতারা উদারপন্থীরা ক্ষমতায় আসুক, এই প্রচেষ্টায় এমনকি বিপ্লবী দলগুলির ন্যূনতম সর্বসম্মত - "তিন তিমি" কার্যক্রম (আট ঘণ্টার দিন, ভূমি-সম্পদ বাজেয়াপ্তকরণ, এবং গণতান্ত্রিক সাধারণতন্ত্র) ছাড়তেও রাজি ছিলেন। শাসন করতে হতে পারে এই ভয়ে মিলিউকভ  রাজতন্ত্র বাঁচিয়ে রাখার জন্য মরীয়া চেষ্টা চালান।

অবিশ্বাস্য ভাবে, সমাজবাদীরা তা মেনে নেন এবং জারের ভাই মাইকেলকে সিদ্ধান্ত নিতে দেন সে শাসন করতে চায় কিনা। নিজের ব্যক্তিগত নিরাপত্তার কোন নিশ্চয়তা না পেয়ে, গ্র্যান্ড ডিউক সবিনয়ে তা প্রত্যাখ্যান করেন। অবশ্যই এই সব অন্দরমহলের আলোচনা শ্রমিক ও সৈনিকদের আওতার বাইরে হয়েছিল।

এই আলোচনাগুলো থেকে যে "দ্বৈত ক্ষমতা" ব্যবস্থার উদ্ভব হল অর্থাৎ একদিকে সোভিয়েত ক্ষমতা, এবং অন্যদিকে অনির্বাচিত অস্থায়ী সরকার তা আটমাস টিঁকেছিল।

জিভা গালিলি এই সমঝোতার বর্ণনা দিয়েছেন এই বলে, এ ছিল মেনশেভিকদের শ্রেষ্ঠ সময়কালট্রটস্কী একে তুলনা করেছেন দুই ভাগে বিভক্ত এক তামাশা-নাট্যের সাথে: প্রথমাঙ্কে বিপ্লবকে বাঁচিয়ে রাখতে বিপ্লবীরা অনুনয় করছেন উদারপন্থীদের কাছে, পরের অঙ্কে উদারপন্থীরা উদারনীতি বাঁচিয়ে রাখতে রাজতন্ত্রের কাছে অনুনয় করছেন

তাহলে এত বীরত্বের সাথে লড়াই করে জারের শাসন উৎখাত করার পরে, শ্রমিক ও সৈনিকরা কেন বিত্তবানদের তৈরি এমন সরকারের কাছে সোভিয়েতকে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে দিলেন?  প্রথমত, বেশির ভাগ শ্রমিক তখনো বিভিন্ন সমাজতান্ত্রিক দলগুলোর নীতি বুঝে উঠতে পারেননি।, in part because they had retained a (quickly outdated) understanding of the revolution as bourgeois-democratic, in which a provisional revolutionary government would rule. What this meant in practice, particularly after the Provisional Government’s formation, was open to different interpretations.উপরন্তু, বলশেভিকরা নিজেরাই পরিষ্কার ছিলেন না তারা কিসের জন্য লড়াই করছেন। এর জন্য অংশত দায়ী ছিল বিপ্লব সম্পর্কে তাদের (দ্রুত অচল হয়ে যাওয়া) ধারণা যে বিপ্লবটা হবে বুর্জোয়া গণতান্ত্রিক, যেখানে শাসন করবে এক অস্থায়ী বিপ্লবী সরকার। ব্যবহারিক স্তরে এই ধারণা, বিশেষ করে অস্থায়ী সরকারের পরে কি হবে, তা বিভিন্ন ব্যাখ্যার জন্য উন্মুক্ত ছিল।

যদিও বলশেভিক জঙ্গিরা বিপ্লবের দিনগুলোতে মহত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন, তারা তা অনেক সময়ই করেছেন তাদের নেতাদের বিরোধিতা সত্ত্বেও। টেক্সটাইল শিল্পের মহিলা শ্রমিকরা ফেব্রুয়ারিতে ধর্মঘট করেন তাদের নেতাদের আপত্তি, যে এখনও সময় আসে নিজঙ্গী বিরোধিতা করার , অগ্রাহ্য করে।

বলশেভিক ব্যুরোর নেতৃত্ব (শ্লিয়াপনিকোভ, মলোটভ, এবং জালুৎস্কি) ঘাটতি দেখিয়েছিল।  ২৩শে ফেব্রুয়ারির ধর্মঘটের পরেও শ্লিয়াপনিকোভ যুক্তি দেন যে এখনও সাধারণ ধর্মঘট ডাকার সময় হয়নি। সৈনিকদের জন্য কোনও ইস্তেহার তৈরি করতে ব্যুরো ব্যর্থ হয় এবং আসন্ন যুদ্ধের প্রস্তুতির জন্য শ্রমিকদের অস্ত্রের দাবী নাকচ করে দেয়। বেশিরভাগ উদ্যোগ আসে হয় ভাইবর্গ জেলা কমিটি, যারা বস্তুত শহরে পার্টির নেতা হিসেবে কাজ করেন, তাদের থেকে, অথবা একদম প্রথম স্তরের সদস্যদের থেকে, বিশেষ করে প্রথম দিন, যেদিন মহিলারা তাদের পার্টি নেতাদের আদেশ অমান্য করে ধর্মঘটের ভবিষ্যৎ নির্ণয় করেন।  

মার্চ মাস ধরে বিভ্রান্তি আর বিভাজনে ঢেকে রেখেছিল বলশেভিকদের। মার্চের এক তারিখ, যেদিন পেত্রোগ্রাদ বুর্জোয়াদের হাতে রাজনৈতিক ক্ষমতা তুলে দেয়, সেদিন কার্যকারী সমিতির এগারোজন বলশেভিকের একজনও এর বিরোধিতা করেননি। যখন সোভিয়েতে উপস্থিত বাম বলশেভিক প্রতিনিধিরা সোভিয়েতকে সরকার গঠনের জন্য প্রস্তাব দেন, তখন মাত্র উনিশ জন পক্ষে এবং  বহু বলশেভিক বিপক্ষে ভোট দেন। মার্চের পাঁচ তারিখ, শ্রমিকদের কাজে ফিরে যাবার জন্য সোভিয়েতের আহ্বানকে পিটার্সবার্গ কমিটি সমর্থন জানায়। যদিও আট-ঘন্টার দিন, বিপ্লবী আন্দোলনের এই অন্যতম প্রধান দাবী তখনও আদায় হয় নি। ভাইবর্গের জঙ্গিরা, যারা সোভিয়েত শাসনের ডাক দিয়েছিলেন, শ্লিয়াপনিকোভের অধীনে পার্টি ব্যুরো তাদের দিকে হেলে। কিন্তু যখন কামেনেভ, স্তালিন, এবং মুরানোভ সাইবেরিয়ার নির্বাসন থেকে ফিরে আসেন এবং ১২ মার্চ ব্যুরো দখল নিলেন, পার্টির নীতি একদম ডানদিকে টাল খায়। এই পরিবর্তন মেনশেভিক ও স-বির নেতৃত্বের আনন্দের কারণ হলেও, কারখানার জঙ্গি পার্টি-সদস্যদের বিরক্তির উদ্রেক করে, যাদের মধ্যে কেউ কেউ এই ত্রয়ীকে বিতাড়নের আহ্বান জানান।

বিরক্ত সদস্যদের একজন ছিলেন লেনিন। মার্চ মাসের ৭ তারিখ, সুইৎজারল্যান্ড থেকে তিনি লেখেন, “এই নয়া সরকার এখনই সাম্রাজ্যবাদী পুঁজির কাছে, যুদ্ধ এবং লুঠের সাম্রাজ্যবাদী নীতির কাছে, নিজের হাত-পা বাঁধা দিয়েছে।উল্টোদিকে, মার্চের পনেরো তারিখ কামেনেভ প্রাভদায় লিখছেন, “মুক্ত মানুষ নিজের খুঁটিতে শক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে থাকবে, প্রতিটি বুলেটের উত্তর বুলেটে, প্রতিটি শেলের উত্তর শেলে দেবে।মার্চের শেষদিকে স্তালিন মেনশেভিকদের সাথে এক জোটের সমর্থনে বক্তব্য রাখেন এবং যুক্তি দেন যে অস্থায়ী সরকার, “বিপ্লবের বিজয় রক্ষার্থে বিশেষ ভূমিকা নিয়েছে

নেতৃত্বের এই দক্ষিণদিকে বাঁক নেওয়া লেনিনকে এতটাই চিন্তিত করে তুলেছিল যে ৩০শে মার্চ তিনি লেখেন কেরেনস্কী ও তার দলবলের এই সমাজবাদী দেশভক্তির প্রতি আমাদের পার্টির যারা আপোস করতে চাইছে, তাঁরা যারাই হোক না কেন, তাঁদের সঙ্গে আসু ভাঙ্গনতাঁর কাছে কাম্য। লেনিনের বক্তব্যকে স্পষ্ট করার জন্য বা কার সম্বন্ধে বলছেন তা বোঝার জন্য কোন উকিলের প্রয়োজন হয়না। কামেনেভের বোঝা উচিৎ  যে তাঁর উপর এক বিশ্ব-ঐতিহাসিক দায় বর্তাচ্ছে

১৯০৫ থেকে লেনিনবাদের সারতত্ত্ব জোর দিয়েছে প্রতিবিপ্লবী শক্তি হিসেবে উদারনীতির ওপর সম্পূর্ণ অবিশ্বাসে, এবং সেই সব সমাজবাদীদের তীব্র সমালোচনায়, যারা আপ্রাণ চেষ্টায় উদারপন্থীদের তুষ্ট করতে চাইছেন। 

লেনিনের ১৯০৫র লেখায় যা পাওয়া যাচ্ছে, তাতে তিনি অস্থায়ী বিপ্লবী সরকারকে আহবান করছেন বুর্জোয়া বিপ্লবের জন্য, যা তার মতে ট্রটস্কীর "সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব" -এর "অদ্ভুত ও আধা নৈরাজ্যবাদী ধারনা"র বিপরীতে। অথচ লেনিন নিজেই এখন এই সমাজতান্ত্রিক অদ্ভুত ধারণার দিকে ঝুঁকছেন আর তাই অন্যদিকে রক্ষণশীল বৃদ্ধ বলশেভিকরা তাকে ট্রটস্কীবাদেরঅভিযোগে অভিযুক্ত করছেন।

মার্চের শুরুর এই অভ্যুত্থান অনেক দিক দিয়েই পূর্ববর্তী শতকের বহু ঘটনার প্রতীকস্বরূপ। একটি অনির্বাচিত, ক্ষুদ্র গোষ্ঠী ক্ষমতা বেদখল করা নিজেদের শ্রেণি স্বার্থে, যে আন্দোলন তাদের ক্ষমতায় বসিয়েছে, তাদেরই ব্যবহার করে ও তাঁদের স্বার্থহানি করে। কিন্তু এক্ষেত্রে দুটি প্রধান তফাৎ রয়েছে। প্রথমত, শ্রমিক-শ্রেণির নিজের একটা পার্টি ছিল, যা নিজের স্বার্থেই নিরলস যুদ্ধ চালিয়ে যাবে। এবং দ্বিতীয়ত, সোভিয়েত ছিল।

রুশ বিপ্লবের সবে শুরু হল।

 

 



[i]Tsuyoshi Hasegawa, February Revolution: Petrograd, 1917, University of Washington Press, Seatle, 1981.

[ii]ইংরেজী প্রবন্ধে মারফি autocracy শব্দটি ব্যবহার করেছেন। আমরা তাকে স্বৈরতন্ত্র প্রতিশব্দ দিয়ে ব্যাখ্যা করেছি। তবে সেই সঙ্গে বলে রাখা ভাল, এই উপাধিটি মধ্যযুগের গ্রিক থেকে এসেছে। সে সময়ে সম্রাট উপাধিধারী সকলকেই গ্রিক ভাষাতে autokrates বলা হত। কনস্ট্যান্টিনোপলের পূর্ব রোম সাম্রাজ্যের পতন হলে মাস্কোভির গ্র্যান্ড ডিউকরা নিজেদের ঐ সাম্রাজ্যের উত্তরাধিকারী বলে দাবী করেন। ফলে তাঁদের অন্যতম উপাধি হয় autokrates। পিটার দ্য গ্রেটের সময় থেকে বাস্তবে জারেদের একচ্ছত্র ক্ষমতা তৈরী হয়।

 

[iii]শহরের শ্রমিক এলাকাগুলির অধিকাংশ ছিল নেভা নদীর ওপারে, এবং ব্রিজগুলি তুলে নিলে বিত্তবান-মধ্যবিত্তদের এলাকা থেকে শ্রমিক এলাকাদের বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া যেত।

Subcategories