Updates

Articles

Articles posted by Radical Socialist on various issues.

Corruptions, Scandals and the Charade of Indian Parliamentary Politics

Corruptions, Scandals and the Charade of Indian Parliamentary Politics

(Radical Socialist statement)

Recent events in the monsoon parliament session gives lie to the charade of the political democracy in India. Slogans and stunts from the opposition parties have been raining, demanding resignation of the External Affairs Minister Sushma Swaraj, Madhya Pradesh Chief Minister Shivraj Singh Chauhan, and Rajasthan Chief Minister Vasundhara Raje Scindia for their involvement in corruption scams. Sushma Swaraj purportedly acted in a ‘humanitarian’ interest to help Lalit Modi. All this seems straight out of a comedy skit, but the tragic part is, this is the reality of Indian politics.

The Congress (and some other parties), creating hullabaloo with their demands of investigation into the charges of corruption,and resignations of the people named in them, is itself mired in a number of scams involving crores of rupees. How credible is it going to be to the masses, if Congress raises its voice against corruption and scams?

It needs to be acknowledged that corruption is a real issue that plagues the country, and there is real anger and frustration amongst people concerning the issue. Looking at the meteoric rise of AAP, it should not be hard for us to discern that anyone who tries to tap in to people’s issues, albeit in a populist fashion, will have real purchase amongst the electorate, because the traditional left has ceded space to the right wing parties, by being in alliance with capitalist parties and embracing neoliberal policies wherever they have been in power.

But, we should never lose sight of the fact that the real problems facing Indian society is not corruption or scams—they are symptoms of larger underlying structural issues endemic to capitalism. Congress and BJP have more in common when it comes to corruption, scams or economic policies, than one is led to believe from the acrimonious proceedings in the parliament session. When welfare and social security schemes are cut, farmer’s debt are not pardoned, and indirect taxes hitting the toiling masses far more than the super rich are introduced or raised from their present levels to meet up the budget deficit; capitalists like Adani get loans from nationalised banks to the tune of 5,000 crore, and labour laws to land acquisition laws are all changed to suit the needs of the richest of the rich, all these parties play the same role when in power. In other words, there are battles among the political elite for spoils of the loaves and fishes, but they are united in their basic duty to the ruling class, in exploiting and assisting in the exploitation of the toilers.

Corruption is no more an aberration but an inseparable rule of the game, where swindling of thousands of crores is in the offing every season. May, it be self-styled cricket tournaments like IPL, violation of tender rules by the BJP-Shiv Sena government in Maharashtra, allocation of natural resources like coal, allocating telecom bandwidth, no avenues are wasted in this game of profit. Here, Lalit Modi and Rajeev Shukla, both former IPL chairman’s embezzle money and undue favours and reprieves from governments, establish the clique. Meanwhile, the governments in power try to settle scores with activists like Teesta Setalvad aiding Gujarat pogrom victims get justice, unduly implicating them for receiving foreign funds for running their organisations. Repression is unleashed with sinister motives to muzzle any dissent against the central government.           

Revolutionaries fight for every legitimate reform. We welcome real struggles against corruption and scams. But we should not be blind or overlook the spurious nature of such endeavours of the capitalist parties. As the TMC has shown in Parliament, well aware of its own precarious position over the Saradha Scam, its MPs will “agitate” with the other opposition parties, but will not demand resignations, for that demand can come home to roost in West Bengal as well. We therefore cannot present before people the issue as if fighting corruption is in itself enough. For example, we cannot fight merely against corruption in BPL cards, we need to demand the restoration of the full Public Distribution System. When we look at repeated corruption scandals in the finance market, from the 1980s to the present, we need to make toiling people aware that this is also a way in which capital accumulation occurs in the less developed world.

 Not only do we demand the resignation of the ruling corrupt ministers, and due punishment to the perpetrators who have embezzled crores of money; we demand the same of the corrupt politicians who today are in the opposition. We stress the need to build working class struggles with a rainbow of worker’s collective, peasants’ union, oppressed castes, and gender against the depredations of capitalism which exploit the toiling masses. Corruption is all but a symptom of the capitalist society we live in, and breaking the hegemony of capitalism and replacing it with a just and humane order free of any form of exploitation can only be a viable alternative.

 

 

27 July 2015 

Oxi to Capitulation: What Road Ahead for Greece?

Oxi to Capitulation: What Road Ahead for Greece?
Sushovan Dhar

If the Greeks want to get out of this imprisonment, they have to adopt radically different measures -- fiscal, financial, economic and of course, political. They must also be prepared to leave the Eurozone voluntarily

  •  Anti-austerity protesters may face a tough road ahead  
    Photo- REUTERS

The Nobel laureate Jose Saramago, speaking about the Venezuelan opposition once said: “It is difficult to understand these people who democratically take part in elections and a referendum, but are then incapable of democratically accepting the will of the people.” Meanwhile, a little more than a decade later, the Greeks could not believe that not only the opposition, but their prime minister, Alexis Tsipras, who called for a referendum to challenge the Troika’s absolutism -- found it difficult to accept this “will of the people.”

True, there was no lack of apprehension that Tsipras and his close collaborators intended to utilise the Greek refusal of the reprehensible austerity to get the crumbs earlier refused to them. As morally “good negotiators,” they wanted to return to the tables and the green rooms on the shoulders of a resounding NO vote. However, very few -- both in Greece and outside -- could believe that Tsipras could capitulate with such ruthless “efficiency.” The euphoria and the hope surrounding the referendum turned into shockwaves, and that too, barely within a week.

Tsipras accepted a deal that 61% of the Greek voters rejected. Not only the new “accord” is worse than what creditors offered earlier, the new memorandum exacted much more from this Hellenic government than its pro-austerity predecessors. The creditors are resolute on demanding more than “one pound of flesh.”

It is indeed hard to believe that this historic victory for the Greeks and its democratic accountability was sold so cheaply, and that even, sans resistance or confrontation. None were prepared to see their government imploring, beseeching, begging on its knees for a “deal.” The Greek people were once again defeated, let down, sold out, betrayed, double-crossed, stabbed in the back, and cheated, by a government they considered their own.

Syriza came to power in January, riding on the crests of mass movements calling for a NO to the Troika’s failed policies and an end to austerity. Once in power, the leadership decided to solve matters through “better negotiations,” and disband the masses.

There were already signs of despair and frustrations. Hopes were rekindled the moment Tsipras announced the referendum. The mass movement was genuinely revived, but all that Tsipras and his trusted aides were prepared to do was to fight for the best possible terms of their continuing enslavement. They badly coiled up with even harsher terms than that were originally offered.

The erstwhile finance minister, Yanis Varoufakis, resigned (under the creditors’ pressure) to be replaced by the Oxford educated Euclid Tsakalotos, who, from the first minute started acting as the creditors’ finance manager. His German counterpart, Herr Wolfgang Schäuble’s praise for him as a more conventional and acceptable figure is barely a surprise.

The EU, earlier terrified by Tsipras’ call for referendum could see Greece’s resistance miserably crushed, enabling them to play the Grexit card and impose stronger austerity measures. Disregarding the total rejection of their devastating policies imposed on Greece for the last five years, they could impose an “accord” to extend the damage of the Greek state and immiserise the population. A black deal was signed on Monday, July 13 at the Eurozone heads of state meeting, sums up this sordid tale.

Of course, there are still resistances and protests against this wholesale tragedy inside Greece. There were huge mobilisations in the streets of Athens, Thessaloniki and other places. A general strike against the third memorandum was called by the public sector trade union federation. The “notorious” riot police, which Syriza had earlier pledged to disband, was sent out to disperse protesters as the leadership was afraid that unlike the previous “no” rallies, the new ones would never be in their favour. 

While the president of the Hellenic Parliament, Zoé Konstantopoulou, in a speech, declared her staunch refusal to accept this humiliating “accord,” 109 members out of 201 of the Syriza Central Committee, signed a statement condemning the capitulation. Nevertheless, caving in to the creditors’ threats and blackmails, Tsipras decided to oblige them ignoring his comrades. With this surrender he accepts terms even harsher than what he had turned down before.

The contents of the “new” accords precisely lack any newness. The same old measures, viz budgetary surpluses through pension cuts, increase in the VAT and other taxes, further privatisations and rapidly, additional “market reforms,” restraint on collective bargaining (read: Wages to be kept as low as possible), etc. As Stathis Kouvelakis, a central committee member of Syriza who teaches political theory at King’s College London points out that the deal included “(...) a handful of measures to give it a slight flavour of ‘social justice’ (eg an increase in the corporate tax rate by two points).”

Sensing rebellion in his own ranks including senior ministers like Panos Kammenos, head of the Independent Greeks party (ANEL), and Panagiotis Lafazanis, the leader of the Left Platform Tsipras, colluded with three right-wing parties -- PASOK, Potami, New Democracy -- to get the deal passed in Greek parliament on July 16. 32 Syriza MPs voted against and seven abstained.

Is there a way out?

The EU hawks successfully spread the canard that suspending debt payment was synonymous with exiting the Euro. Their spin doctors were successful in blackmailing Tsipras into conceding to their demands and more, but the reality lies elsewhere. A series of sovereign measures of self-defense, viz control on banks, currency, and taxation could work strongly for a Greek economic recovery and make the threat of Grexit irrelevant. However, the current measures mean that the crisis would recur from time to time and Troika would successfully use the threat to subordinate the Greeks incrementally.

Greece is also used as a precedent to warn current and potential rebellion in Ireland, Spain, Italy, Portugal, and of course, the whole of Europe.

While it was perfectly possible to reject the European Central Bank, the Eurogroup and the European Commission’s nefarious designs expressed through unbearable and illegitimate injunctions, Tsipras squandered his chances and converted a prospective advantage to a deficit. His tragic subordination to EU’s arm-twisting would result not only in more austerity -- misery, pauperisation, and impoverishment -- but a sell-out of the country’s national heritage.

However, one thing is for sure, if the Greeks want to get out of this imprisonment, they have to adopt radically different measures -- fiscal, financial, economic, and of course, political. They must also be prepared to leave the Eurozone voluntarily. Reports suggest that there might not be any overwhelming endorsement for the latter idea at this point of time -- a vulnerability well-exploited by the creditors as well as the pro-deal political actors.

Nevertheless, the terms and conditions of the agreement would sooner or later convince a majority of Greeks, that a future that includes justice and emancipation, or in other words, a prospect where they cease to be guinea pigs but survive as decent human being doesn’t lie in the Eurozone. 

- See more at: http://www.dhakatribune.com/op-ed/2015/jul/25/greeces-way-out#sthash.Poq6kgHm.dpuf

Why We Oppose all Death Penalties, and Why We Oppose the hanging of Yakub Memon

Why We Oppose all Death Penalties, and Why We Oppose the hanging of Yakub Memon

 

Radical Socialist has consistently opposed death penalty as a form of punishment. This stems from a number of considerations. In the first place, long before the emergence of modern socialism, during the Enlightenment, it was pointed out, by Cesare Beccaria above all, that if the aim of punishment is to go beyond taking revenge, then the death penalty is unacceptable.

According to liberal theory, the state represents everyone. It is to ensure peace. But if the state is a rational entity, then revenge cannot be a principal motivating factor. During the hanging of Afzal Guru, it was argued that the collective conscience of society will only be satisfied if capital punishment is awarded to the offender. In other words, what motivated the Court was at least as much a perceived desire to pacify the alleged collective conscience of society, as any desire for justice. This shows the gap between Liberal claims and Liberal reality.

Two parallel events have again brought hanging back into the news. The first is the imminent hanging of Yakub Memon. Memon was a participant in the 1993 terror bombing in Mumbai. He was however a secondary figure, the leading figures being Dawood Ibrahim, Yakub’s elder brother Mushtaq (Tiger) Memon, and others. A year and a half after the event, Yakub returned to India and was arrested by the police, in an incident which remains murky (Yakub said he wanted to surrender, police said he had been arrested).

Yakub played an important role in the Indian police proving that Pakistan had been concealing the truth. In other words, he played a kind of approver’s role. An approver is of course one who was originally part of the criminals. But it is standard for approvers to get lesser punishments. But the Indian police and the political establishment wanted a Memon to hang. So he must be hanged, even though he has already spent 21 years in prison. This seems to be the principal reason for the rejection of his mercy petitions, and the death penalty in the first place, with all mitigating circumstances being ignored.

Very different is the other case. In 2002, after the Godhra train burning, there were planned pogroms all over Gujarat. One of the persons finally convicted for many of those crimes was Maya Kodnani. Kodnani was found guilty for the murder of 97 Muslims in Naroda Patiya, along with Babu Bajrangi and others. The Special Court that tried her gave her a 28 year prison term. The Gujarat Government refused to give the Special Investigation Team (SIT) the permission to seek the Death Penalty in a higher court.

This needs to be generalised and certain other facts understood. It is only when major issues, like the hanging or not hanging of Memon or Kodnani come up, that the death penalty is discussed. But according to Prashant Bhushan, who is a senior lawyer, certain basic data can be found in the patterns of people hanged – namely, a class bias. The figures from a recent study bear him out. Nearly 94 per cent of people in the Death Row in contemporary India, according to a recent study, are Dalits or minorities.  Over 75 per cent are economically vulnerable. The most important reason this happens is, these people, poor, often poorly educated, usually do not even manage to get a decent lawyer at the trial stage.

The recent revelations about the hanging of Dhananjoy Chatterjee reinforce this. He was an impoverished guard in a building where an 18-year-old named Hetal Parekh was found dead in March 1990. He was convicted of having raped and killed her and was hanged on his 39th birthday, August 14, 2004, protesting his innocence until the end. An analysis by Debashish Sengupta and Prabal Chaudhury of the case showed that a police witness in court denied having seen Chatterjee at the victim’s flat. The police seizure list was signed by someone who supplied tea to the police and did not turn up in court. The antecedents of some items presented as incriminating evidence, such as a necklace and a watch, were never checked. The trial court failed to question why no murder weapon was recovered and why there was no blood on Chatterjee’s clothes even though there were 21 stab wounds on the victim’s body. There are good possibilities that there might have been a so-called “honour killing” involved, since Parekh was supposedly raped and killed in a short window between 5:20 pm and 5:50 pm, (her mother had come back at 5:50), but the police were called only three hours later giving ample time to doctor evidence). The Parekh family members’ evidences were inconsistent, and they soon ended their business in Kolkata and left.

The standard legal procedure is that guilt must be established beyond doubt. But in the cases where the accused are poor or from socially weaker strata, like Chatterjee, courts have often routinely ignored gaps and inconsistencies, simply because they did not have hotshot lawyers. By the time senior lawyers took up the case, they could only argue about procedural flaws, since the basic hearing had been in a trial court.

Yet, in 2004, when Chatterjee was hanged, his guilt was taken for granted, and those who campaigned that as he had already served 14 years in prison the penalty should at least be commuted to imprisonment were aggressively attacked.

His case, the cases of Memon versus that of Kodnani, all go to show that the death penalty in our society will only serve the economically and the politically powerful.

The mercy petition of Memon should therefore be supported, not because he is innocent, but because he does not deserve hanging.

 

Radical Socialist, 26 July, 2015 

Debt Crisis: Today Greece, tomorrow the world

Today Greece, tomorrow the world

20 July by Mike Roscoe

 

Greece has been living beyond its means, having borrowed too much during the easy times. Its underlying economy is too weak to support its preferred lifestyle, which is why the Greek government is now being told by its main creditors, the IMF and the Eurozone central banks, that it needs to make more cuts, especially to state pensions.

Is Greece unique in this regard? No, it is not. In fact, Greece is just the current and most obvious case of a problem that affects most developed economies to some degree, and even some developing economies, including the biggest of them all, China. The US Federal Reserve, in recent budget forecasts, has repeatedly warned that the US will not be able to pay future pension and welfare commitments.

The problem is caused by unrealistic expectations brought about by the rise of the financial sector relative to the real economy: banking has grown out of all proportion to its true purpose, which is to fund real industry.

All wealth creation begins with real industry: workers add value to the earth’s natural resources by creating useful products through industry. This is the process of real wealth creation. Financial services do not create wealth, they merely shift around the wealth that’s already been created by real industry, trying to profit in the process.
As the following two charts show, only 20% or so of lending these days goes to productive industry, the rest adds to the kind of unproductive debt that is crippling Greece and will soon cripple many other economies.

JPEG - 160.8 kb

Where the loans go

Why did Greece borrow too much? Why did the nation adopt a live-now-pay-later mentality? The answer is simple: because it could. Previous Greek governments did what a great many governments, businesses and individuals have been doing ever since the 1980s, when the financial sector was first let loose to pursue its own agenda of trying to make money from money: they borrowed because the banks wanted to lend. They made it easy: easy credit, easy money.
Did the banks ever bother to work out if Greece could afford these loans? No, they didn’t. The good times were rolling along nicely, so who cared.

But even back then, in the late 90s and early 2000s, the good times were becoming illusory, withGDP figures increasingly boosted by debt, as my next chart shows.

JPEG - 87.5 kb

How GDP has been boosted by debt

Governments base a lot of their economic decisions on GDP figures, as they give an indication of economic activity and supposedly of economic health. They’re also useful when making international comparisons.
But GDP figures are a very poor indicator of true economic health: they are boosted just as much by unproductive economic activity based on debt as they are by real productive industry (more here).
Because of internationally agreed accounting rules, banks actually add to GDP when they make loans, regardless of where the loan is going. This explains why nations with big banking sectors, such as Britain, have relatively strong GDP figures even though, with 80% of the economy based on services, they don’t produce much anymore. Our prosperity is a debt-based illusion.

Unfortunately there comes a time, as Greece is finding now, when debts have to paid, one way or another. If this wasn’t the case, then we’d have found a way to create wealth out of nothing. But we haven’t found a way to create wealth out of nothing, what we’ve done is borrowed from future earnings. This is why Greece is getting poorer, and it’s also why much of the developed world will get poorer too.

The solution, both for Greece and elsewhere, will not be easy. Firstly we must accept the reality, that debt-based economies are living well beyond their means and that the future growth that repayments depend on is not going to happen. This was the big mistake, to assume that rapid growth would continue forever. How could it?
The oil-powered postwar boom times were bound to fizzle out eventually because they were based on a virtuous cycle of rapid industrialization, job creation and consumer demand following the devastation of war and the previous decades of hardship. China has seen a similar thing in recent decades, but this is already fading. We need to adapt to the reality of low or no growth, and if we’re lucky this might have the added bonus of reducing global warming and saving humanity into the bargain.

In the meantime there will be defaults on loans, both in Greece and elsewhere, because there is no way all these loans can be repaid. And why should they be? Is it the fault of the Greek people that their leaders borrowed far more than the country could afford? No, it isn’t. Is it the fault of the banks? Yes, it is – the banks are as much at fault as were the leaders that took the loans. So perhaps it is only right that wealthy investors should lose out. Why should Greek pensioners bear all the hardship?

Greece may or may not be the trigger for the next global economic crisis, a crisis that could make the last one look fairly mild, but whatever happens with Greece in the coming weeks and months, the global debt problem is only going to get worse. As long as banks, stock markets and property empires are built on the foundations of credit that is itself based on the illusion of future growth, another crash is inevitable.

 
From the Website of CADTM

Turkey: Revolutionary solidarity in the face of DAESH murders

 

WE CONDEMN JIHADIST BARBARISM AND THE WARLIKE POLICY OF THE AKP!

Wednesday 22 July 2015, by Yeniyol

More than thirty young revolutionaries have lost their lives as a result of a terrorist attack by the jihadist organization DAESH in the town of Suruc, on the border with Syria. We express our condolences to the families, friends and comrades of the victims.

This Monday, July 20, 2015 a group of three hundred young people were moving across the border to participate in the reconstruction of the Kurdish town of Kobane, destroyed during the heroic resistance of the local population, the PYD and the militias of the YPG-YPJ, as well as volunteer combatants from many places.

In the framework of the campaign of support organized by the Federation of Associations of Young Socialists, with packages of toys, sanitary products, pots of paint, books and films, these young people, for the most part students, hoped to contribute to the reconstruction of buildings, to building parks and nurseries for the children, to setting up a library.

It is this feeling of unshakeable internationalist solidarity with the Kurds of Kobane which was the target for DAESH, and not “Turkey”, as claimed by Prime Minister Davutoglu. The jihadist organization is trying to export its war against the PYD, against which it was losing ground in Syria, to Turkish territory with this dastardly attack, as with the explosions at the meeting in the Democratic Party of the Peoples (HDP) in Diyarbakır.

But how can we not see here the consequences of the foreign policy of the AKP, resolved to bring down the regime in Damascus at any price, by offering temporary support to various jihadist groups in order to extend its hegemony in the Middle East? Let us remember the trucks packed with weapons and missiles prepared to go to Syria under the control of intelligence services, the hospitals available to wounded DAESH militants. Let us remember the barely concealed mirth of Erdogan when he stated that “Kobane is on the verge of falling”. Was it not Davutoglu who proclaimed, when he was still Minister of Foreign Affairs, that DAESH could be seen as a radical structure but that it was “previous discontent and indignation” which had caused this “reaction”? A month ago the press of the AKP announced on its front page, referencing military sources, that “the PYD is more dangerous than DAESH”. And finally how can we forget the photograph showing the confident smile of this terrorist jihadist during his arrest by the Turkish police?

Faced with jihadist barbarism and its collaborators, we oppose the smiles full of audacity and hope which these young revolutionaries, dead on the road to Kobane, have bequeathed us. It is in continuing their struggle that we will embody the spirit of solidarity which drove them.

- For the right to self-determination of Kurdish people! 
- Long live internationalist solidarity! 
- DAESH Assassin, AKP Collaborator!

CONDEMN TERRORISATION OF PEOPLE, AND THE MOVE TOWARDS POLICE STATE

Radical Socialist Statement

CONDEMN TERRORISATION OF PEOPLE, AND THE MOVE TOWARDS POLICE STATE

 

Radical Socialist condemns the Central Bureau of Investigation (CBI) raid on activist Teesta Setalvad and her husband, Javed Anand’s Mumbai residence and organisations they established and run Sabrang Communications, Sabrang Trust and Citizens for Justice and Peace. The raid is a clear case of vindictiveness shown by Narendra Modi and BJP towards Setalvad and Citizens for Justice and Peace. Setalvad and Anand, along with fellow activists, have been responsible for keeping alive the memory of the pogrom of 2002, for ensuring that some of the guilty at least were punished. As it has already been pointed out by defenders and supporters of Setalvad, the CBI raid’s timing is significant exposing the malafide intent of the government in power. On 13 July, the Gujarat High Court was to hear appeals by Babu Bajrangi and Maya Kodnani. On 27 July, the same court will begin its final hearing into the petition filed by Zakia Jafri.

 

The CBI has been used as a weapon by the Modi government to muzzle critics or dissent in any form and discipline political rivals. Setalvad and her colleagues have been harassed since 2006 by the Gujarat police. With Modi assuming the office of Prime Minister in 2014, these cases are now being pursued by central agencies. 

 

Modi’s one year in office has seen frequent incidents of attacks on minorities.  Repeatedly, Modi, or his ministers, have advocated causes from the Hindutva agenda, and have intentionally attacked and hurt minority sentiments. The reason for the severe persecution of Teesta Setalvad is of course an aggressive reaction to the determined fight put up by the organisations they have been running. 

 

But more than that, it is a form of state sponsored terrorisation, where the aim, just as with any non-state terrorists, is not only to attack or kill certain persons, but even more, to strike terror among other people. By attacking prominent civil rights activists, the regime is seeking to discredit them in the public eye; to tie them and their time up in innumerable cases in self defence, so that they have less and less time to fight for the rights of oppressed groups of people and while knowing that these people are hardened fighters and may go on resisting, this terrorisation is trying to silence and iontimidate others, whether in Gujarat, or elsewhere, so that they accept the move to implementation of more and more Hindutva agenda without protest. The assassins of senior Communist Party leader of Maharashtra, Govind Pansare, killed in February this year, have not been caught. Similar is the case with the murderers of rationalist Narendra Dabholkar.  

 

Radical Socialist joins voices in supporting Teesta Setalvad, Javed Anand and several other activists and citizens in the time of assault from the BJP- Sangh Parivar led government. We believe in spirited action against communal-fascism and terrorism unleashed by the BJP-Sangh Parivar in the country. We join in criticism of the Police State; as affairs have come to be in the Modi regime.    

 

In order to express our solidarity, we believe that forms, such as statements by prominent individuals, or online petitions, cannot be fully adequate. We are facing a government, headed by a party that has been repeatedly identified as fascist by many left and progressive forces. Solidarity has to take on more militant and mass forms. We propose an all India day of action, when there will be protest meetings, in public spaces if we can mobilise sufficient people, in halls where that is not possible, but in cities and towns all over India, where our demands should include:

 

•Oppose the move towards a police state

•Oppose the Central Government’s attempts at pushing the Hindutva agenda

•Stop the harassment of Teesta Setalvad and all other campaigners for communal harmony

•Stop state support to peddlers of communal violence from Gujarat to Muzaffarnagar

•Punish the killers of Pansare and Dabholkar

 

19 July 2015 

 

সিরিজার আত্মসমর্পণ : সাম্রাজ্যবাদ, শ্রেণী সংগ্রাম ও বামপন্থী সংস্কারবাদ

সিরিজার আত্মসমর্পণ : সাম্রাজ্যবাদ, শ্রেণী সংগ্রাম ও বামপন্থী সংস্কারবাদ

সোমা মারিক

২০১৫-র জ্যানুয়ারিতে গ্রিসের সাধারণ নির্বাচনে প্রধান বামপন্থী দল সিরিজা পেয়েছিল ৩৬.৩৪ শতাংশ ভোট। সব বামপন্থীদের ভোট মিলিয়ে হয়েছিল ৪৩ শতাংশ।  ছ’মাস পরে, জুলাইয়ের গণভোটে সিরিজার প্রস্তাবের পক্ষে, অর্থাৎ ইউরোপীয় ইউনিয়নের উচ্চশ্রেণীদের প্রস্তাবিত ব্যয় সংকোচ বৃদ্ধি খারিজ করার পক্ষে, ভোট পড়েছে ৬১ শতাংশের সামান্য বেশী। ফ্যাসিবাদী গোল্ডেন ডন দলের ৬.২৪ শতাংশ বাদ দিলেও, বামপন্থী ভোট যে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে, তা বোঝা যায়। কিন্তু দেখা গেল, গণভোটের এক সপ্তাহ পরে, গ্রিসের শ্রমিক শ্রেনী ও অন্যান্য সাধারণ মানুষের জোট যে প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিলেন, তাঁর চেয়ে অনেক কুৎসিত শর্ত মেনে নিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী সিপ্রাস।

গ্রিক বামপন্থার ধারাগুলিঃ

গ্রিসে গত কয়েক বছরে প্রধান বামপন্থী দল হিসেবে দেখা দিয়েছে সিরিজা। এ ছাড়া একদা বামপন্থী বলে পরিচিত ছিল প্যাসক দল – একেবারে আকণ্ঠ দুর্নীতিগ্রস্থ, এবং বুর্জোয়া ব্যবস্থায় পুরোদমে মিশে যাওয়া, যার ফলে গ্রিসে এখন কেউ এই দলকে আর বামপন্থী মনে করে না। এরপর বলতে হয় এক চূড়ান্ত সংকীর্ণতাবাদী দল, যারা নীতিগত ভাবে সিরিজার সঙ্গে কোনো যুক্ত ফ্রন্ট করবে না, এবং যাদের নেতৃত্ব গণভোটে “না’ ভোট দিতে অস্বীকার করেছিল, সেই গ্রিক কমিউনিস্ট পার্টির (কে কে ই) কথা। অঞ্চলভিত্তিক ভোট বিশ্লেষণ অবশ্য দেখায়, কে কে ইর সমর্থকরা ৮০ শতাংশই ‘না” ভোট দিয়েছেন। র্যা ডিকাল বামপন্থীদের বৃহদাংশ আন্তারসিয়া জোটের সদস্য, তবে এর বাইরেও আছে  কয়েকটি দল। এই র্যাতডিকাল বামপন্থীদের নির্বাচনী শক্তি সীমিত হলেও, ট্রেড ইউনিয়ন আন্দোলনে বা সামাজিক লড়াইগুলিতে এঁরা  শক্তিশালী। তাই গণভোটে এঁরা “না”-এর জন্য যে জঙ্গী প্রচার করেছিলেন, সেটা গুরুত্বপূর্ণ।   

ভোট হওয়ার আগেই ভারুফাকিস ঘোষণা করেছিলেন, “না” হেরে গেলে তিনি ইস্তফা দেবেন। এ থেকে অনুমান করা যায়, সিরিজা নেতৃত্ব গণভোটকে নিছক নিজেদের মুখরক্ষার রাস্তা বলে মনে করেছিলেন। সেই কারণে, গণভোটের ফল একদিকে যেমন ইউরোপীয় বুর্জোয়া শ্রেণীকে সজোর চপেটাঘাত, অন্যদিকে তেমনি গ্রিসে সিরিজাকে সাবধান করে দেওয়া, যে শ্রমিক শ্রেণী ক্রমাগত রফা মানতে প্রস্তুত না।

এখানে তাই আমাদের বুঝতে হবে, সিরিজা কেমন দল। সিরিজাকে “অতি বামপন্থী” বলাটা একরকম রাজনৈতিক কৌশল। মোটামুটি গৌতম দেবের চেয়ে সামান্য র্যা ডিকাল যে কোনো দল বা ব্যক্তিকে অতিবাম বলে গণপ্রচার মাধ্যমে চিহ্নিত করার কৌশল দেশে দেশে দেখা যায়। এর ফলে, বুর্জোয়া রাজনীতির গৃহীত অবস্থান নিয়ে প্রশ্ন তোলাটাই যেন উগ্র, হঠকারি রাজনীতি। কিন্তু ইতিহাস দেখায়, পুঁজিবাদী সঙ্কটের সময়ে বামপন্থী সংস্কারবাদ অনেক ক্ষেত্রেই জন্ম নেয়। ১৯৩৪-এ ভিয়েনার পথে অস্ট্রো-ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে বন্দুক হাতে লড়াইয়ের নেতৃত্ব কমিউনিস্টরা দেন নি, দিয়েছিলেন অস্ট্রিয়ার সোশ্যাল-ডেমোক্র্যাটিক দল। সিরিজা তৈরী হয়েছিল ১৯৮৯ সালে প্রতিষ্ঠিত কোয়ালিশন অফ দ্য লেফট এন্ড প্রোগ্রেস (সাইনাসপিসমোস) দল গ্রিক নির্বাচনী আইন মেনে ন্যূনতম যে ভোট পেলে সংসদে প্রবেশ করা যায়, তা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন গণ সংগঠন ও কিছু বিপ্লবী গোষ্ঠীর সংগে জোট তৈরী করে। সাইনাসপিসমোস এযুগের গড়পড়তা সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক দলের চেয়ে অনেক প্রগতিশীল এবং বামপন্থী অবস্থান নিয়েছিল। তাই তাকে দেখে গ্রিসের এবং ইউরোপের আরো বিভিন্ন দেশের বিপ্লবীরাও মনে করেছিলেন, এই দলের পক্ষে অনেকদূর যাওয়া সম্ভব। কিন্তু ক্রমে, সিরিজা যত নির্বাচনী শক্তি সঞ্চয় করতে থাকে, তত দলকে ঐক্যবদ্ধ করার কথা ওঠে। ফলে কালক্রমে জোট পরিণত হয় অনেক কেন্দ্রীভূত দলে। আলেক্সিস সিপ্রাসের নেতৃত্বাধীন বর্তমান সিরিজা হল সংস্কারবাদী এবং বিপ্লবীদের একটি দল, যাতে বিপ্লবীরা সংখ্যালঘু । ‘বামপন্থী প্ল্যাটফর্ম’ দলীয় ভোটে ৪০ শতাংশ পেলেও, সরকার সিপ্রাসের হাতে। দলীয় পতাকার লাল, সবুজ ও বেগুনী রঙ শ্রমিক, পরিবেশবাদী এবং নারীবাদী আন্দোলনের প্রতীক। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে পরিবেশ বা নারী আন্দোলনের স্বার্থে সিপ্রাসের সরকার কি পদক্ষেপ নিয়েছে? অর্থনৈতিক সঙ্কট বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যৌনকর্মীর সংখ্যা ১৫০ শতাংশ বেড়েছে। অথচ এইচ আই ভি বৃদ্ধির জন্য পুলিশ দায়ী করেছে এই মেয়েদের, স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়াকে নয়।

গ্রিক জনগণের উপর আক্রমণঃ

গ্রিসের সংকট প্রসঙ্গে বারে বারে বলা হয়েছে, গ্রিকরা অন্যায়ভাবে, দেনা করে খরচ করেছে, এখন দেনা শোধ করতে চাইছে না। বলা হচ্ছে, ইউরো চালু করার জন্য গ্রিসের যে শর্তাবলী মানার দরকার ছিল, গ্রিক সরকার তা না মেনে হিসেবের ক্ষেত্রে জুয়াচুরি করেছিল। সঙ্গে যে কথাটা বলা দরকার কিন্তু প্রায়ই বলা হচ্ছে না, তা হল, এই কাজে তাদের প্রভূত সাহায্য করেছিল গোল্ডম্যান স্যাকস (এক বড় মার্কিন বহুজাতিক, যারা বিনিয়োগ ব্যাঙ্কিং-এর কারবার করে থাকে)। আর, গ্রিক শাসকরা স্থির করেছিল, বেশী শক্তিশালী জার্মান প্রভৃতি অর্থনীতির সঙ্গে তাল রাখার জন্য গ্রিসের উপর যে চাপ পড়বে, সেটা পুরো চালিয়ে দেওয়া হবে খেটে খাওয়া মানুষের মূল্যে। 

দ্বিতীয়ত, গ্রিক এবং ইউরোপীয় ও মার্কিণ ব্যাঙ্করা ২০০৮ সালের ইনভেস্টমেন্ট ব্যাঙ্কিং বিপর্যয়ের পর বহু দেশে দাবী তুলল, রাষ্ট্রীয় ব্যয়ে ব্যাঙ্কদের বাঁচাতে হবে। এতদিন নয়া-উদারপন্থীদের দাবী ছিল, অর্থনীতিতে রাষ্ট্রীয় হস্তক্ষেপ যেন না হয়। তারাই এবার ঘুরে সম্পূর্ণভাবে অপরিশোধযোগ্য ব্যাঙ্কদের বেসরকারি ঋণগুলিকে সরকারি দেনাতে পরিণত করারও জন্য লড়ে গেল। শুধু গ্রিস নয়, আয়ার্ল্যান্ড, পর্তুগাল স্পেন সহ বিভিন্ন দেশের উপর এর কোপ পড়েছিল। যে সব দেশের অর্থনীতি সবল, সে সব দেশেও, ব্যাঙ্কদের বাঁচাতে সাধারণ মানুষ আক্রান্ত হলেন। গ্রিসের ক্ষেত্রে, ব্যাঙ্করা পেল ৩০ বিলিয়ন মার্কিণ ডলার। দেনায় ডুবল রাষ্ট্র।

এবার আসরে নামল মুডিস, স্ট্যান্ডার্ড এন্ড পুওর, প্রভৃতি আন্তর্জাতিক রেটিং সংস্থাগুলো। এরা এতদিন ব্যাঙ্কদের জুয়াচুরিকে লুকিয়ে রাখার জন্য সাব প্রাইম ঋণ-জাত বাণিজ্যেরও উঁচু রেটিং দিয়েছিল। এবার, রাষ্ট্রদের রেটিং খারাপ দেখানো হল। তা হলে সুদের হার বাড়ে, লাভ হয় ব্যাঙ্কদের। ২০১১-র মধ্যে গ্রিসের অর্থনীতি এবং রাজনীতি এতটাই ব্যাঙ্কদের হাতে চলে যায়, যে তাদের শর্ত মানা নিয়ে টালবাহানা করায় ইস্তফা দিতে হয় প্রধানমন্ত্রী পাপান্দ্রুকে, যিনি আদৌ প্রগতিশীল ছিলেন না, কিন্তু অক্ষরে অক্ষরে ব্যাঙ্কদের হুকুম মানতে টালবাহানা করেছিলেন। তাঁর জায়গায় আসেন প্রাক্তন ব্যাঙ্কার লুকাস পাপাডেমস। ২০১২ সালে যে চুক্তি হল, তা অনুযায়ী গ্রিস তার অর্থনীতির উপর ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক, আন্তর্জাতিক আর্থভান্ডার এবং ইউরোপীয় কমিশনের (“ত্রোইকা”) ছড়ি ঘোরানো মেনে নিল। 
 
ঠিক কী কী দাবি করেছিল, “ত্রোইকা”?গ্রিসের আভ্যন্তরীণ ব্যাপারে তারা বিস্তারিত হুকুম জারী করে। তাদের নির্দেশ ছিল – দেশের লাভজনক সম্পদের বেসরকারিকরণ চাই; শস্তায় সে সব ধনীদের কাছে বিক্রী করতে হবে। মুদ্রাস্ফীতি কমিয়ে এবং সে জন্য ব্যয়সংকোচের বোঝাটা চাপাতে হবে শ্রমজীবী মানুষের উপর। সামাজিক নিরাপত্তা, জনস্বাস্থ্য, শিক্ষা খাতে ব্যয় কমাতেই হবে সামরিক খাতে ব্যয়কে অটুট রেখে; ধনীদের উপর প্রত্যক্ষ কর বাড়ানো চলবে না। বোঝাই যায়, কেন গ্রিসের উপর তলার প্রায় ৩৯ শতাংশ “ত্রোইকার” প্রস্তাব মেনে নেওয়ার পক্ষে গণভোটে মতদান করেছে।  

২০০৯-এ, গ্রিক ট্রেড ইউনিয়ন কর্মীদের সঙ্গে সাক্ষাতকারের ফলে, আমার পক্ষে জানা সম্ভব হয়, যে গ্রিসে ট্রেড ইউনিয়নের অধিকার অনেক দেশের চেয়ে সুরক্ষিত। গ্রিসের নাগরিকদের ন্যূনতম মজুরী ছিল বাঁচার মতো মজুরী। ২০১২-১৩-র মধ্যে ছবিটা পালটে যায়। কিন্তু গণপ্রচার মাধ্যমের উপরেও মালিকদের নিয়ন্ত্রনের ফলে, বারে বারে ব্যাঙ্কারদের এবং “ত্রোইকা”কেই দেখানো হয়েছে সাধারণ মানুষের “ত্রাতা” হিসেবে, আর ইউনিয়নদের খলনায়ক হিসেবে।  

২০০৯ থেকে ২০১৫-র মধ্যে, উপরে বর্ণিত পদক্ষেপগুলির ফল কী হল? গ্রিসের  অর্থনীতি ২৫ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। “সংস্কারের” তোড়ে জনস্বাস্থ্য, শিক্ষা, এই সব খাতে ব্যয় বিপুলভাবে কমেছে। সরকারী পরিষেবার বেসরকারীকরণ ঘটেছে। শ্রমজীবী মানুষের উপর কর বেড়েছে। গ্রিসের পেনশনভোগীদের ৪৫ শতাংশ এখনই দারিদ্র সীমার নীচে বাস করছেন। গ্রিসে যে আদৌ সামাজিক নিরাপত্তা রয়েছে, সেটাই যেন অন্যায়। অন্যান্য দেশের শ্রমজীবী মানুষের কাছেও এই প্রচার  করা হয়েছে, যে গ্রিসের অলস লোকেরা অন্য দেশের খেটে খাওয়া মানুষের টাকায় বাস করতে চায়। বাস্তবে, ২০১৫ সালে জুবিলী ডেট ক্যাম্পেন-এর গবেষণা থেকে দেখা গেছে, গ্রিসকে সঙ্গকটমোচনের নামে যে টাকা দেওয়া হয়েছে, তার ৯০% বা তার বেশী চলে গেছে ঋণদাতাদের পকেটে। অথচ, গ্রিসের দেনার ভার বেড়েছে, ২০১০-এ জি ডি পি-র ১৩৪% থেকে, ২০১৫-র গোড়ায় জি ডি পি-র  ১৭৪%-এ।

বামপন্থী সংস্কারবাদ ও শ্রেণী সংগ্রাম:

সিরিজার বাইরে বিপ্লবী শক্তিদের যে জোট, সেই আন্তারসিয়ার এক নেতা, যিনি চতুর্থ আন্তর্জাতিকের গ্রিক শাখারও নেতা, তিনি গণভোটের পরও একটি সাক্ষাৎকারে বলেছেন, দলীয় শৃংখলার কথা ভেবে  ‘বামপন্থী প্ল্যাটফর্ম’ অনেক সময়েই আন্তারসিয়ার সঙ্গে যৌথ লড়াইয়ে যেতে ইতস্তত বোধ করে। আর সিপ্রাস তো স্পষ্ট দেখিয়েছিলেন, তাঁর মতে ‘ত্রোইকার’ সঙ্গে আলোচনা করে “যুক্তির” পথে হাঁটাই প্রকৃত পথ। এজন্য তিনি প্রথমে সিরিজার নিজের অর্থনৈতিক কর্মসূচীকে স্থগিত রাখেন। তারপর ফেব্রুয়ারী মাসে অতীতের ব্যয়সংকোচ কিছুদিনের জন্য চালু রাখতে রাজী হন। এপ্রিলে এবং মে মাসে আইএমএফ-কে যথাক্রমে ৪৯.৫ কোটি এবং ৮২.৬ কোটি ডলার ‘দেনা’  শোধ করা হয়।

সুতরাং, ভারুফাকিস কতটা ঝগড়াটে ধরণের লোক, এ সব গল্প নয়, গ্রিক সরকারকে ফেলে দিতে ইউরোপীয় পুঁজি কেন উদগ্রীব ছিল, সেই প্রশ্ন থেকে এগোতে হবে। ফ্রান্সের সোসিয়েতে জেনারাল ব্যাঙ্কের চেয়ার, এবং ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের কার্যনির্বাহক বোর্ডের ভূতপূর্ব সদস্য, লোরেঞ্জো বিনি স্মাঘি, স্পষ্ট বলেছেন, গ্রিসের ৩৫৫ বিলিয়ন ডলার ঋণকে নতুন, দীর্ঘমেয়াদি বন্ডের মাধ্যমে, এবং সুদের হার কমিয়ে, নিয়ন্ত্রনে আনা কিছু কঠিন নয়। তা হলে, ঋণ শোধ না করে যে টাকা থেকে যাবে, তা দিয়ে মাইনে, পেনশন, সামাজিক সুরক্ষা, এ সবের ব্যয়বরাদ্দ বাড়ানো যাবে। কিন্তু স্মাঘি লিখেছেন, ওটাই যে আপত্তির জায়গা। নয়া উদারপন্থা ব্যাঙ্কদের স্বার্থে রাষ্ট্রীয় খরচ মানবে, শ্রমজীবীর স্বার্থে না। অর্থাৎ, ইউরোপীয় বুর্জোয়া শ্রেণী, বিশেষত জার্মান বুর্জোয়া শ্রেণী, ভালই জানে, তারা কড়াভাবে শ্রেণী সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে। সংস্কারবাদ সবসময়ে “মালিকের দালাল” না-ই হতে পারে। কিন্তু যে কোনো সংস্কারবাদ-ই মনে করে, পুঁজিবাদের মধ্যেই, যুক্তি ব্যবহার করে, বুঝিয়ে-সুঝিয়ে শ্রমজীবী মানুষের স্বার্থ দেখা সম্ভব। এই হল সবচেয়ে বামপন্থী সংস্কারবাদ-এরও মোহ। ফলে, গ্রিক শ্রমজীবী মানুষের নেতৃত্বর চেয়ে ইউরোপীয় বুর্জোয়া শ্রেণীর নেতৃত্ব অনেকটাই খোলা চোখে কাজ করেছিল। 


সিরিজা বামপন্থী সংস্কারবাদী বলেই, সিপ্রাস গণভোটের মতো পদক্ষেপ নিতে পেরেছিলেন। এটা গ্রিসের প্রাচীন ঐতিহ্যের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হলেও, ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাজনীতির সম্পূর্ণ বিরোধী। ইউরোপীয় ইউনিয়নের ইতিহাস হল গণতান্ত্রিক নিয়ন্ত্রন থেকে যথা সম্ভব সরে থাকার ইতিহাস। আজকের পরিস্থিতিতে গণভোটের সিদ্ধান্ত ছিল প্রকারান্তরে স্বীকার করা যে গত ক’মাসে অনুসৃত নীতি ক্ষতিকর এবং ভ্রান্ত, এবং শ্রমিক শ্রেণীর শক্তির উপর নির্ভর করতে চাওয়া। কিন্তু সিপ্রাসের কাছে গণভোট ছিল শুধু একবার একটু “ফোঁস” করা – বাস্তব লড়াইয়ের সূচনা নয়। স্ট্যাথিস কুভেলাইটিসের সঙ্গে সেবাস্টিয়ান বাজেনের “জ্যাকোবিন” পত্রিকায় সাক্ষাৎকার থেকে জানা যায়, দলের দক্ষিণপন্থীরা গণভোটকে বিপজ্জনক মনে করে তার বিরোধী ছিলেন। তাঁরা বলেছিলেন, এর ফলে পাওনাদারদের সঙ্গে তিক্ততা বাড়বে, আর অন্য দিকে তলা থেকে লড়াই তীব্র হবে, যার কোনোটাই তাঁরা চান না। সিপ্রাসের ধারণা ছিল   গণভোটকে ব্যবহার করে উন্নত শর্ত পাওয়া যাবে। আর বামপন্থী প্ল্যাটফর্মের নেতা এবং মন্ত্রীসভার সদস্য পানাজিওটিস লাফাযানিস বলেন, গণভোটের সিদ্ধান্ত সঠিক, কিন্তু বড় দেরীতে নেওয়া সিদ্ধান্ত। তিনি সাবধান করে দেন, এর অর্থ হবে যুদ্ধ ঘোষণা, এবং শত্রুপক্ষ অচিরে টাকার সরবরাহ বন্ধ করে গ্রিসের অর্থনীতিকে বিপর্যয়ে ফেলতে চাইবে। কয়েক দিনের মধ্যে, সেটাই ঘটল, এবং দেখা গেল, জনগণ তার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে প্রস্তুত হলেও, সিপ্রাসের হাঁটু কাঁপতে শুরু করেছিল।

জার্মাণ পুঁজির পুনরুত্থান:

যে সংযুক্ত ইউরোপ গড়ে উঠেছে, ১৯৬০-এর দশকের থেকে আজ তার অনেক পার্থক্য আছে। গোড়ার দিকের ইউরোপীয় জোটের পিছনে ছিল সোশ্যাল ডেমোক্রেসীর একটা বড় ভুমিকা। একদিকে সোভিয়েত ব্লকের অবক্ষয়, আর অন্যদিকে রেগন-থ্যাচার যুগ থেকে শ্রমিক অধিকারের উপর তীব্র আক্রমণ, ঐ  সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক ইউরোপকে বহুদূরে ঠেলে দিয়েছে।

সেই সঙ্গে ঘটেছে জার্মান পুঁজির পুনরুত্থান। “ক্যাপিটাল ইন দ্য টোয়েন্টি-ফার্স্ট সেঞ্চুরী”-র রচয়িতা, টমাস পিকেটি, জার্মান সংবাদপত্র ডি জাইটকে প্রদত্ত এক সাক্ষাৎকারে বলেছেনঃ “জার্মানী হল সেরা নজীর, কীভাবে একটা দেশ তার ইতিহাসে কখনো বিদেশী ঋণ পুরোমাত্রায় শোধ করে নি।“ তিনি বলেন, ঋণের বোঝা জমলে ঋণ মকুব করা কেবল মানবিক নয়, অর্থনৈতিক দিক থেকেও যুক্তিসঙ্গত। ঋণের বোঝা কমলে একটা দেশের অর্থনীতি অনেক দ্রুত উন্নত হতে পারে। ১৯৫০-এর দশকে যখন জার্মানীর ঋণ মকুব করা হয়েছিল, তখন তাঁর পিছনে ছিল সোভিয়েত ব্লকের সম্পর্কে ভীতি, এবং ঐ ব্লকের অগ্রগতি রোধের জন্য মজবুত জার্মানি গড়ে তোলার বিষয়ে মার্কিন আগ্রহ।
আজকের পরিস্থিতি আলাদা। সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে পড়েছে ২৫ বছর। জার্মানির একীকরণের পর সে  দেশের পুঁজিবাদ পৃথিবীর অন্যতম শক্তিশালী পুঁজিবাদ। সামরিক দিক থেকে জার্মানী অবশ্যই মার্কিণ  যুক্তরাষ্ট্র কেন, আজকের রাশিয়ারও হয়ত সমকক্ষ না। কিন্তু অর্থনৈতিক বিকাশের কথা স্বতন্ত্র। ১৯৯১ থেকে ২০১৩-র মধ্যে, জার্মানীর রপ্তানির হার ২২.২ শতাংশ থেকে বেড়ে ৪০ শতাংশ অবধি উঠেছে। ১৯৯১-এ জার্মান পুঁজি বিদেশে লগ্নী হয়েছিল ১৩৪ বিলিয়ন ইউরো। ২০১২-তে তা বেড়ে হয় ১.২ ট্রিলিয়ন ইউরো। ২০১৪-তে জার্মানীর মোট পণ্য, পরিষেবা এবং আর্থ ক্ষেত্রে উদবৃত্ত (কারেন্ট একাউন্ট সারপ্লাস) ছিল ৭.৪  শতাংশ, যা চীনের চেয়েও বেশী। অর্থাৎ, ইউরোপীয় ইউনিয়নের আপাতঃ বিবর্ণ আমলাতন্ত্রের আড়ালে লুকিয়ে আছে জার্মান সাম্রাজ্যবাদের ঈগল।

গণভোটের পর সিপ্রাসের আত্মসমর্পণ:

গ্রিক শ্রমিক শ্রেণী নিজেদের জীবন নিজেরা নিয়ন্ত্রণ করতে চেয়েছেন। ২০১২ সালে একজন গ্রিক সরকারী মুখপাত্র স্বীকার করেন, অন্তত ৮০,০০০ ধনী গ্রিক বিদেশী ব্যাঙ্কে মাথা পিছু কমপক্ষে ২,০০,০০০ ইউরো কালো টাকা পুরে রেখেছে। এই যে কমপক্ষে ১৬০০ কোটি ইউরো, এ সম্পদের মালিকদের উপর জরিমানা সহ কর ধার্য করা, উচ্চবিত্তের উপর প্রত্যক্ষ কর বাড়ানো, প্রয়জনে দ্রাখমাতে ফিরে গিয়ে বড় পুজিপতিদের স্বার্থের পরিবর্তে শিক্ষা, চিকিৎসা, ইত্যাদি ক্ষেত্রে সরকারি ব্যয় বাড়ানো – গণভোটে বিপুল “না”-এর অর্থ এই পদক্ষেপগুলির দাবী। 

কিন্তু গ্রিক সহ ইউরোপীয় উচ্চশ্রেণীরা নীরবে বসে থাকে নি। তারা গণভোটের জবাবে সোজা জানায়, তাদের শর্ত আরো কড়া হবে। ৬১ শতাংশকে সক্রিয় করে তুলে শাসকদের উপর কি আক্রমণ শুরু হবে? সিপ্রাসের সোজা উত্তর ছিল, তিনি রফার দিকেই যাবেন। এবার এক বহু পুরোনো খেলা আরেকবার দেখানো হল। জার্মানী সাজল বেশী উগ্র। আর মার্কিণ যুক্তরাষ্ট্র এবং ফ্রান্স হল “নরম”। তাদের সাহায্যেই নাকি গ্রিস রক্ষা পাবে। কিন্তু তার একটা মূল্য দিতে হবে। পেনশন আরো কমাতে হবে। ভ্যাট বাড়াতে হবে। আর, গ্রিসকে ৫০ বিলিয়ন ইউরো সম্পত্তি ইনস্টিটিউশন ফর গ্রিসের হাতে তুলে দিতে হবে। তারা ঐ সম্পত্তি নিলামে তুলবে। ইনস্টিটিউশন ফর গ্রিসের মালিক হল জার্মান কে এফ ডব্লিউ ব্যাঙ্ক গোষ্ঠী, যাদের তত্বাবধায়ক ডিরেক্টরদের চেয়ারম্যান হলেন – অবাক হলেন নাকি? – জার্মান অর্থমন্ত্রী উলফগ্যাং শাউএব্ল।

সিপ্রাস যে দ্রুততার সঙ্গে পাল্টেছেন, সেটা দেখায়, সংস্কারবাদ সি পি এমের চেয়ে বহু ডিগ্রী বায়ে  থাকলেও পুঁজির আক্রমণ তীব্র হলে সে দিশাহারা হয়ে পড়ে। সংস্কারবাদীরা “জানে”, শ্রমজীবীরা অবোধ। উপর থেকে সাহায় না থাকলে তাঁরা কখনোই দেশ চালাতে পারেন না। তাই ছোটোখাটো ব্যাপারে একজন মানুষ, একটি ভোট, এই নীতি মানা যেতে পারে। কিন্তু, বড় প্রসংগ এলে ইউরো যার,হুকুমও তার ।

সিরিজার ভিতরের ও বাইরের বিপ্লবীরা কি বিকল্প নেতৃত্ব গড়তে পারবেন? পার্লামেন্টে প্রথম দফা ভোটে ১৭ জন নানা ভাবে বিরোধী মত প্রকাশ করেছেন। বুধবার, ১৫ই জুলাই, ইউরোপীয় বৃহৎ পুঁজির সব দাবী মেনে দ্বিতীয়বার পার্লামেন্টে ভোট চাইতে গেলে, দেখা যায়, ৩০০ সদস্যের মধ্যে, ২২৯ জন সিপ্রাসের প্রস্তাবের পক্ষে। কিন্তু সিরিজার ৩৮ জন সাংসদ প্রস্তাবের পক্ষে ছিলেন না। লেফট প্ল্যাটফর্মের সকলে, (মূলত ট্রটস্কীপন্থী), কে ও ই ধারা (মাওবাদী) এবং সম্ভবত সিপ্রাসের ধারার ৬ জন এই বিরোধী ভোটদাতা।  সিপ্রাসের অবস্থা নড়বড়ে হয়ে পড়েছে। তাকে হয় “জাতীয় ঐক্যের” সরকার গড়তে হবে, না হলে নির্বাচন ডাকতে হবে, এবং একদিকে অর্থনৈতিক সঙ্কট আর অন্যদিকে ফ্যাসিবাদী গোল্ডেন ডনের অজুহাতে সেই “জাতীয় ঐক্যের” আহবানই করতে হবে। যে কোনো সরকার, বিশেষত যে কোনো বাম-সংস্কারপন্থী সরকার, যখন শ্রমিকদের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা করে, তারা তখন তাদের র্যােডিকাল বামপন্থী বিদ্রোহী গোষ্ঠীদের মুখ এইভাবেই বন্ধ করতে চায়। সিরিজার বামপন্থী প্ল্যাটফর্ম দাবী করেছেন, ব্যাঙ্ক জাতীয়করণ, ব্যয়সঙ্কোচ নীতি পূর্ণমাত্রায় বর্জন, ইউরোজোন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি শুরু করা; ইত্যাদি। ট্রেড ইউনিয়নরা বুধবারে সাধারণ ধর্মঘট ডেকেছিলো। এতে আন্তারসিয়ার সঙ্গে কে কে ই, এবং সিরিজার ট্রেড ইউনিয়ন ফ্রন্ট একত্রে কথা বলছে। গোপন আলোচনা সম্পর্কে যে সব তথ্য বেরচ্ছে, তা থেকে মনে হয়, ট্রেড ইউনিয়নদের উপর নানা নিষেধাজ্ঞা জারী হতে চলেছে। ফলে মন্ত্রী-দলনেতা বা বুদ্ধিজীবিরা যা-ই বলুন, নিচের তলার কর্মীদের মধ্যে লড়াইয়ের দাবী জোরদার হচ্ছে। সিরিজার ২০১ সদস্যএর কেন্দ্রীয় কমিটির ১০৭ জন এক যৌথ বিবৃতিতে সিপ্রাসের নিতির সমালোচনা করেছেন। আন্তারসিয়ার কর্মীরা বিকল্পের জন্য লড়াইয়ের আহবান করেছেন। স্পষ্টতই, লড়াই এখনো চালু আছে। যা হেরে গেছে, তা হল বামপন্থী সংস্কারবাদের মোহ, যে জনগণের নির্বাচনী সমর্থন থাকলে বুর্জোয়া ব্যবস্থার মধ্যেই যুক্তি ও জনমতের ঐক্যের মাধ্যমে শ্রমজীবী মানুষের স্বার্থ দেখা যায়।


Subcategories